গণতন্ত্র ও ইসলামের পার্থক্য


আজকের সমাজে আমরা মানব রচিত বিধানকে জাতীর সমাধান মনে করছি আল্লাহর বিধান ত্যাগ করে। অথচ আল্লাহ্ আমাদের জন্য কি বিধান ভুল দিয়েছেন? (নাউজুবিল্লাহ) # আল-কুরআনঃ “যাবতীয় ক্ষমতা শুধুমাত্র আল্লাহরই জন্য ” [২:১৬৫]গনতন্ত্রঃ জনগনই সকল ক্ষমতার উৎস । # আল-কুরআনঃ “আল্লাহ ছাড়া কারও বিধান দেবার ক্ষমতা নেই। ” [১২:৪০]গনতন্ত্রঃ আইন প্রণয়নের ক্ষমতা জনগন, সংসদ, মন্ত্রী-এমপির (মদ, পতিতালয় বৈধও হতে পারে) । # আল-কুরআনঃ আল্লাহ তাআলা সার্বভৌমত্বের মালিক। [৩:২৬]গনতন্ত্রঃ সার্বভৌমত্বের মালিক জনগন। # আল-কুরআনঃ “(হে নবী) আপনি যদি অধিকাংশের রায়কে মেনে নেন তাহলে তারা দ্বীন থেকে বিচ্যুত করে ছাড়বে” [৬:১১৬]গনতন্ত্র ঃ অধিকাংশ লোকের রায়ই চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত যদিও তা আল্লাহ্র আদেশের বিরুদ্ধে হয়। # আল-কুরআনঃ “আল্লা’হ তা’আলা ক্রয়- বিক্রয় বৈধ করেছেন এবং সুদ হারাম করেছেন। ” [২:২৭৫]গনতন্ত্রঃ গণতন্ত্র সূদভিত্তিক অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করে। # আল-কুরআনঃ ব্যভিচার শাস্তিযোগ্যঅপরা ধ। [২৪:২]গনতন্ত্রঃ সংসদ পতিতালয়ের (যিনা) লাইসেন্স দেয়। # আল-কুরআনঃ মদ, জুয়া,লটারী নিষিদ্ধ। [৫:৯০]গনতন্ত্রঃ মদ এর লাইসেন্স দেয়। জুয়া,লটারী বৈধ। # আল-কুরআনঃ “হে মুমিণগণ! তোমরা ইহুদী ও খ্রীষ্টানদেরকে বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করো না।তারা একে অপরের বন্ধু। তোমাদের মধ্যে যে তাদের সাথে বন্ধুত্ব করবে,সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত। আল্লাহ জালেমদেরকে পথ প্রদর্শন করেন না।” [৫:৫১]গনতন্ত্রঃ কোন সমস্যা নাই। যার সাথে ইচ্ছা (আমেরিকা, ইসরাইল)বন্ধুত্ব কর। এখন সিদ্ধান্ত আপনাদের হাতে “গনতন্ত্র” গ্রহন করবেন নাকি “ইসলাম”? # আমাদেশের দেশের অধিকাংশ মানুষের “গণতন্ত্র” সম্পর্কে সঠিক ধারনা নেই। তারা এই গণতন্ত্রকে হালাল মনে করে। তারা আসলে বুঝতে পারে না যে এটি একটি কুফুরী মতবাদ। এই পোস্টে আমি গণতন্ত্রের আসল স্বরূপ উন্মোচন করার চেষ্টা করব ইনশাল্লাহ। গণতন্ত্র হচ্ছে- অধিকাংশ মানুষের রায়। অর্থাৎ অধিকাংশ মানুষ যেটা বলবে সেটাই মেনে নেয়া হবে, এর নাম হচ্ছে গণতন্ত্র।কিন্তু মহান আল্লাহ বলেন-“আর যদি আপনি পৃথিবীর অধিকাংশ লোকের কথা মেনে নেন, তবে তারা আপনাকে আল্লাহর পথ থেকে বিপথগামী করে দেবে। তারা শুধু অলীক কল্পনার অনুসরণ করে এবং সম্পূর্ণ অনুমান ভিত্তিক কথাবার্তা বলে থাকে। আপনার প্রতিপালক তাদের সম্পর্কে খুব জ্ঞাত রয়েছেন, যারা তাঁর পথ থেকে বিপথগামী হয় এবং তিনি তাদেরকেও খুব ভাল করে জানেন, যারা তাঁর পথে অনুগমন করে। (সুরা আন’আমঃ ১১৬-১১৭) এই আয়াত দ্বারা স্পষ্টভাবে বুঝা যায় যে, অধিকাংশ লোকের কথা মেনে নেয়া যাবেনা। আল্লাহ যেটা বলেছেন সেটাই মানতে হবে। আমি একটি উদাহরন দিয়ে বিসয়টি স্পট করার চেষ্টা করছি-আজ-কাল দূর পাল্লার নাইট কোচ বাস গুলোতে টিভি থাকে। ধরুন একটি বাসে টিভিতে অশ্লীল সিনেমা, নাচ-গান চলছে। সেই সিনেমাতে নারীদের অর্ধোলঙ্গ পোশাকে, অশালীন পোশাকে দেখানো হচ্ছে। এখন মুসলিমদের কি এটা দেখা বৈধ নাকি অবৈধ?এই ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন-“মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি নত রাখে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হেফাযত করে। এতে তাদের জন্য খুব পবিত্রতা আছে। নিশ্চয় তারা যা করে আল্লাহ তা অবহিত আছেন। (সুরা আন নুরঃ ৩০)তাই ঐ সিনেমা দেখা মুসলিমদের জন্য বৈধ নয় বরং হারাম।তাই একজন যাত্রী উঠে কন্ট্রাক্টারকে বলল- এই সিনেমা বন্ধ কর। তখন কন্ট্রাক্টার যাত্রীদের উদ্দেশে বলল- কে কে এই সিনেমা দেখতে চান না হাত উঠান। দেখা গেল বাসে মাত্র ৪/৫ জন যাত্রী হাত তুলল। আর বাকি ৩০/৩৫ জন-ই হাত উঠাল না অর্থাৎ তারা সিনেমা দেখার পক্ষে। তাহলে এখন গণতন্ত্র কি বলে?গণতন্ত্র অনুযায়ী হারাম জিনিস জয়ী হয়ে গেল। আবারএকজন পার্লামেন্ট মেম্বারের পদটা হলো সেই পদ যেখানে বসে আইন প্রণয়ন করা হয়। হালাল-হারাম নির্ধারন, যেটা সম্পূর্ণ একমাত্র আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতা’আলার এখতিয়ারে।মহান আল্লাহ আল্লাহ্ বলেন-” আল্লাহ ছাড়া কারও বিধান দেবার ক্ষমতা নেই। (সুরা ইউসুফঃ ৪০) কিন্তু গণতন্ত্র অনুযায়ী সেই জায়গাটায় একজন ব্যক্তি নিজেকে বসিয়ে দেয়। হিন্দুদের বিশ্বাস মতে লক্ষীর মূর্তিটা কেবল সম্পদ দিতে পারে, বিদ্যার জন্য স্বরস্বতির কাছে যেতে হবে। কিন্তু আল্লাহর এখতিয়ারে থাকা কেবল একটা বিষয় নয় বরং আল্লাহ্ ছাড়া অন্য কারো কিছু করার ক্ষমতা আছে এমন দাবী করা বা বিশ্বাস করা শিরক। যে এমনটা দাবী করছে সে তাগুত (আল্লাহর বদলে যাদেরকে উপাসনা করা হয়)। যে লোক পার্লামেন্ট মেম্বার পদে নির্বাচন করছে সে সরাসরি নিজেকে ঐ পদটার যোগ্য বলে স্বীকার করে নিয়েই নির্বাচন করছে। অর্থাৎ সন্দেহাতীতভাবে সে তাগুত। অনেকে বলে এটা ইসলামকে প্রতিষ্ঠা করা হিকমাহ। জি না। এটি ভুল পদ্ধতি। নিজেই তাগুত বনে যাওয়া হিকমাহ এর অংশ না কোনভাবেই। এটা কোন অবস্থাতেই জায়েজ নয়। যারা ভোট দিচ্ছে তারা মূলত কয়েকটা তাগুতের মধ্য থেকে কোন তাগুতের উপাসনা করা হবে, কাকে মান্য করা যায় আগামী পাঁচ বছর সেটা সিদ্ধান্ত নেয়। এটাকে তুলনা করা যায় ঐ ঘটনার সাথে যে, দুর্গার পূজা হবে নাকি লক্ষীর পুজা হবে সেটা বসে সিদ্ধান্ত নিলাম। এর নামও হিকমাহ না। এর নাম শিরক। জবরদস্তির ক্ষেত্রে শিরক করা যায় ক্ষেত্রবিশেষে, কিন্তু এখানে ভোট দেবার জন্য কেউ কাউকে জোর করে না কখনও। ইচ্ছে করে শিরকে লিপ্ত হওয়া। হারাম সর্বাবস্থায়ই হারাম। তাই গনতন্ত্র, সমাজতন্ত্র বা এর চেয়েও কোন ভাল ব্যাবস্থাপনা কেউ আবিষ্কার করলেও সেটা চলবে না, কারন আল্লাহ্ সুবানাহুতায়ালা তা নাকচ করে দিয়েছেন। মহান আল্লাহ্ বলেন-“যে লোক ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ব্যাবস্থাপনার তালাশ করে, কস্মিণকালেও তা তার নিকট থেকে গ্রহণ করা হবে না এবং আখিরাতে সে হবে ক্ষতিগ্রস্তদের একজন। (সুরা আলে ইমরানঃ ৮৫) তাই গনতন্ত্র, সমাজতন্ত্র তথা সকল প্রকার তন্ত্র-মন্ত্রই আল্লাহ্ চিরতরে হারাম করে দিয়েছেন। তাই জ্ঞানী সমাজের প্রতি আমার আহ্বান আপনারা সচেতন হোন। হারাম পদ্ধতি বাদ দিয়ে আল্লাহ্র পথে ফিরে আসুন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s