রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাহর উপর আমলের আবশ্যকতা আর তার অস্বীকারকারীর কাফের হওয়া


بسم الله الرحمن الرحيم

ভূমিকা

সমস্ত প্রশংসা সৃষ্টিকুলের মহান রব আল্লাহর জন্য। উত্তম পরিণতি কেবল মুত্তাকীদের জন্য। সালাত ও সালাম নাযিল হোক তার বান্দা ও রাসূল আমাদের নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপর; যাকে সকল সৃষ্টির জন্য রহমত ও সমস্ত বান্দাদের জন্য দলীল হিসেবে প্রেরণ করা হয়েছে। আরও নাযিল হোক তার পরিবার-পরিজন ও সাথী-সঙ্গীদের উপর; যারা অত্যন্ত আমানতদারিতা ও দৃঢ়তার সাথে তাদের পবিত্র মহান প্রভুর কিতাব ও তাদের নবীর সুন্নাহ্‌কে বহন করেছে এবং শব্দ ও অর্থ পরিপূর্ণ সংরক্ষণ করে তাদের পরবর্তীদের নিকট পৌঁছিয়েছে। আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট ও তাদের খুশি করুন এবং আমাদেরকে তাদের সুন্দর অনুসারী হিসেবে কবুল করুন।
পূর্বের ও পরবর্তী যুগের সমস্ত আলেম এ বিষয়ে একমত যে, কোনো বিধান প্রমাণ করা ও কোনো বস্তুকে হারাম ও হালাল সাব্যস্ত করার ক্ষেত্রে প্রথম গ্রহণযোগ্য মূল উৎস হচ্ছে, আল্লাহর কিতাব, যার সামনে বা পিছন কোনোদিক থেকেই তাতে বাতিল অনুপ্রবেশ করতে পারে না, তারপর আল্লাহর রাসূলের সুন্নাহ্‌, যিনি ওহী ছাড়া নিজের থেকে কোনো কথা বলেন না, এ দুটি হচ্ছে মূল উৎস। তারপর গ্রহণযোগ্য মূল উৎস হচ্ছে, উম্মতের ‘আলেমদের ‘ইজমা‘। এ তিনটি ব্যতীত অন্যান্য উৎসের বিষয়ে আলেমগণের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। তন্মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কিয়াস; তবে অধিকাংশ আলেমের মতে এটিও হুজ্জত বা দলীল হিসেবে গণ্য হবে; যদি তার মধ্যে গ্রহণযোগ্যতার শর্তগুলো পাওয়া যায়। এ মূল উৎসগুলোর সাব্যস্ত করণে দলীল-প্রমাণাদি অগণিত ও অসংখ্য; যা এত প্রসিদ্ধ যে উল্লেখের প্রয়োজন পড়ে না।

 

[আহকাম তথা বিধি-বিধান সাব্যস্ত করার গ্রহণযোগ্য মূল উৎসসমূহ]
প্রথম মূল উৎস: আল্লাহর কিতাব
প্রথম মূল উৎস হচ্ছে, আল্লাহর কিতাব, আল্লাহর কিতাবের বিভিন্ন আয়াত দ্বারা আল্লাহর কিতাবের অনুসরণ করা, আল্লাহর কিতাবকে আঁকড়ে ধরা এবং আল্লাহ প্রদত্ত সীমানার সামনে অবস্থান করা ফরয হওয়া প্রমাণিত।
আল্লাহ তা‘আলা বলেন,
﴿ ٱتَّبِعُواْ مَآ أُنزِلَ إِلَيۡكُم مِّن رَّبِّكُمۡ وَلَا تَتَّبِعُواْ مِن دُونِهِۦٓ أَوۡلِيَآءَۗ قَلِيلٗا مَّا تَذَكَّرُونَ ٣ ﴾ [الاعراف: ٣]
“তোমাদের প্রতি তোমাদের রবের পক্ষ থেকে যা নাযিল করা হয়েছে, তা অনুসরণ কর এবং তাকে ছাড়া অন্য অভিভাবকের অনুসরণ করো না। তোমরা সামান্যই উপদেশ গ্রহণ কর”।[1]
আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
﴿وَهَٰذَا كِتَٰبٌ أَنزَلۡنَٰهُ مُبَارَكٞ فَٱتَّبِعُوهُ وَٱتَّقُواْ لَعَلَّكُمۡ تُرۡحَمُونَ ١٥٥ ﴾ [الانعام: ١٥٥]   
“আর এটি কিতাব- যা আমি নাযিল করেছি- বরকতময়। সুতরাং, তোমরা তার অনুসরণ কর এবং তাকওয়া অবলম্বন কর; যাতে তোমরা রহমতপ্রাপ্ত হও”।[2]
আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
﴿ قَدۡ جَآءَكُم مِّنَ ٱللَّهِ نُورٞ وَكِتَٰبٞ مُّبِينٞ ١٥ يَهۡدِي بِهِ ٱللَّهُ مَنِ ٱتَّبَعَ رِضۡوَٰنَهُۥ سُبُلَ ٱلسَّلَٰمِ وَيُخۡرِجُهُم مِّنَ ٱلظُّلُمَٰتِ إِلَى ٱلنُّورِ بِإِذۡنِهِۦ وَيَهۡدِيهِمۡ إِلَىٰ صِرَٰطٖ مُّسۡتَقِيمٖ ١٦ ﴾ [المائ‍دة: ١٥،  ١٦]
“অবশ্যই তোমাদের নিকট আল্লাহর পক্ষ থেকে আলো ও স্পষ্ট কিতাব এসেছে। এর মাধ্যমে আল্লাহ তাদেরকে শান্তির পথ দেখান, যারা তার সন্তুষ্টি অনুসরণ করে এবং তার অনুমতিতে তিনি তাদেরকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে বের করেন। আর তাদেরকে সরল পথের দিকে হিদায়াত দেন”।[3]
আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
﴿إِنَّ ٱلَّذِينَ كَفَرُواْ بِٱلذِّكۡرِ لَمَّا جَآءَهُمۡۖ وَإِنَّهُۥ لَكِتَٰبٌ عَزِيزٞ ٤١ لَّا يَأۡتِيهِ ٱلۡبَٰطِلُ مِنۢ بَيۡنِ يَدَيۡهِ وَلَا مِنۡ خَلۡفِهِۦۖ تَنزِيلٞ مِّنۡ حَكِيمٍ حَمِيدٖ ٤٢﴾ [فصلت: ٤١،  ٤٢]
“নিশ্চয় যারা উপদেশ [কুরআন] আসার পরও তা অস্বীকার করে, [তাদেরকে অবশ্যই এর পরিণাম ভোগ করতে হবে] আর নিশ্চয় এক সম্মানিত গ্রন্থ। বাতিল এতে অনুপ্রবেশ করতে পারে না, না সামনে থেকে না পিছন থেকে। এটি প্রজ্ঞাময়, স-প্রশংসিতের পক্ষ থেকে নাযিল কৃত”।[4]
আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
﴿وَأُوحِيَ إِلَيَّ هَٰذَا ٱلۡقُرۡءَانُ لِأُنذِرَكُم بِهِۦ وَمَنۢ بَلَغَۚ١٩﴾ [الانعام: ١٩]
“আর এ কুরআন আমার কাছে ওহী করে পাঠানো হয়েছে যেন তোমাদেরকে ও যার কাছে এটা পৌছবে তাদেরকে এর মাধ্যমে আমি সতর্ক করি”।[5]
আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
 ﴿ هَٰذَا بَلَٰغٞ لِّلنَّاسِ وَلِيُنذَرُواْ بِهِۦ٥٢ ﴾ [ابراهيم: ٥٢]
“এটা মানুষের জন্য পয়গাম। আর যা দ্বারা তাদেরকে সতর্ক করা হয়”।[6]
উল্লেখিত আয়াত ছাড়াও এ বিষয়ে আরও অনেক আয়াতই বিদ্যমান আছে।
আর এ বিষয়ে বহু বিশুদ্ধ হাদিসও অনেক রয়েছে, যাতে আল্লাহর কিতাবকে মজবুত করে ধরার এবং অনুসরণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে; যাতে প্রমাণিত হয়, যে ব্যক্তি আল্লাহর কিতাবকে মজবুত করে আঁকড়ে ধরবে, সে হিদায়াতের উপর থাকবে, আর যে ব্যক্তি আল্লাহর কিতাবকে বর্জন করবে, সে গোমরাহ হবে।
তন্মধ্য থেকে কিছু হাদিস:
·      রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিদায় হজের ভাষণে সমবেত সাহাবীদের সম্বোধন করে বলেন,
« إِنِّي تاركٌ فيكُمْ مَا لَنْ تضلوا إِن اعْتَصَمْتُمْ بِهِ كِتَابَ اللهِ  »، رواه مسلم في صحيحه
“আমি তোমাদের নিকট এমন একটি বস্তু রেখে যাচ্ছি, যদি তোমরা তাকে মজবুত করে পাকড়াও কর, তবে তোমরা কখনোই গোমরাহ হবে না। তা হল আল্লাহর কিতাব”।[7]
·      সহীহ মুসলিমে যায়েদ ইবন আরকাম রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে আরও বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,
«إِنِّي تارك فِيكُمْ ثِقْلَين أَوَّلهُما كِتابُ الله فيهِ الهُدَى والنُّور فَخُذوا بِكتَابِ اللهِ وَتَمَسّكُوا بِهِ »
“আমি তোমাদের মধ্যে দুটি বিষয় রেখে যাব, তার একটি হল, আল্লাহর কিতাব, তাতে রয়েছে হিদায়াত ও নূর। তোমরা আল্লাহর কিতাবকে আঁকড়ে ধর এবং তার প্রতি অবিচল থাক”।[8] হাদিসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর কিতাবের প্রতি উৎসাহ প্রদান করেন এবং আকৃষ্ট করেন। তারপর তিনি বলেন,
«وَأَهْلُ بَيْتي أذَكِّركُمُ الله في أهل بيتي أذكركم الله في أهل بيتي »
“এবং আমার আহলে বাইত। আমার পরিবার পরিজন সম্পর্কে আমি তোমাদের আল্লাহকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, আমার পরিবার পরিজন সম্পর্কে আমি তোমাদের আল্লাহকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই”।[9]
·      অপর শব্দে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কুরআন সম্পর্কে বলেন,
«هو حبل الله من تمسك به كان على الهدى ومن تركه كان على الضلال».
“এটি আল্লাহর রশি, যে তাকে মজবুত করে ধরবে, সে হিদায়াতের উপর থাকবে আর যে ব্যক্তি তাকে ছেড়ে দেবে-মজবুত করে ধরবে না- সে অবশ্যই গোমরাহির উপর থাকবে”।[10] এ বিষয়ে আরও অনেক হাদিস বিদ্যমান। আল্লাহর কিতাবকে মজবুত করে ধরা, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাহ্‌সহ আল্লাহর কিতাব অনুযায়ী বিচার ফায়সালা করা ফরয হওয়ার বিষয়ে সাহাবী ও তাদের পরবর্তী জ্ঞানী ও ঈমানদারগণের ঐকমত্য দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যা এর উপর দলীল-প্রমাণাদি পেশ করে আলোচনার পরিমণ্ডল দীর্ঘায়িত করার প্রয়োজনীয়তা লোপ করে দেয়।
দ্বিতীয় মূল উৎস: রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাহ।
[এ ব্যাপারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, তাঁর সাহাবী ও তাদের পরবর্তী আলেম ও ঈমানদার থেকে বিশুদ্ধ পদ্ধতিতে আসা বর্ণনাসমূহ]
শরী‘আতের যে তিনটি গ্রহণযোগ্য মূল উৎসের ব্যাপারে আলেমদের মধ্যে কোনো মতানৈক্য নেই তার দ্বিতীয়টি হচ্ছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে আসা বিশুদ্ধ হাদীসসমূহ। সাহাবায়ে কেরাম ও তাদের পরবর্তী জ্ঞানী ও ঈমানদারগণ এ মহান মূল উৎসটিতে বিশ্বাসী ছিলেন; তাঁরা এর দ্বারা ইসলামী বিধানের উপর দলীল পেশ করেছেন এবং উম্মতদের তা শিখিয়েছেন। এ বিষয়ে তারা অসংখ্য লেখনি লিখে গেছেন এবং উসূলে ফিকহ (ফিকহের নীতি) ও উসূলে হাদীস (হাদীসের নীতি) এর কিতাবসমূহে তারা বিষয়টি আরও স্পষ্ট করেছেন। এটি (অর্থাৎ রাসূলের হাদীস) বিধি-বিধানের জন্য মূল উৎস হওয়ার বিষয়ে প্রমাণাদি অসংখ্য অগণিত। যেমন,
·  মহান আল্লাহর কিতাবে আল্লাহ তা‘আলা কর্তৃক এ উম্মতকে রাসূলের অনুকরণ ও অনুসরণ করার বহু নির্দেশ প্রদান। কারণ,
–  এ নির্দেশগুলো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগ থেকে সর্বকালের সকল দুনিয়াবাসীর উপর প্রযোজ্য। কেননা, তিনি কোনো বিশেষ সময় বা বিশেষ গোষ্ঠীর নবী নন, তিনি সমগ্র বিশ্ববাসীর প্রতি নবী-কেয়ামত অবধি যত মানুষ দুনিয়াতে আগমন করবে তাদের সবার নবী। এ কারণেই কিয়ামত পর্যন্ত সকলকেই রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অনুসরণ ও আনুগত্য করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
–  তাছাড়া তিনিই আল্লাহর কিতাবের ব্যাখ্যা দানকারী, আল্লাহর কিতাবের অস্পষ্ট বিষয়গুলির বর্ণনাকারীও তিনি। তিনি তার কথা, কর্ম ও স্বীকৃতি দ্বারা আল্লাহর কুরআনের বিধানগুলোর বর্ণনা দেন। যেমন, যদি হাদিস তথা -রাসূলের সুন্নাত- না থাকত তাহলে সালাতের রাকাত, সালাত আদায়ের পদ্ধতি ও সালাতের ওয়াজিবসহ বিভিন্ন বিধান জানার কোনো উপায় থাকত না। অনুরূপভাবে রোজা, হজ ও যাকাতের বিধানসমূহ বিস্তারিত জানার কোনো উপায় থাকত না। ভালো কাজের আদেশ ও অসৎ কাজ হতে নিষেধ করার বিষয়টিও মানুষের নিকট অজ্ঞাত থেকে যেত। মু‘আমালাত, মু‘আশারাত, লেন-দেন, বেচা-কেনা, মানুষের সাথে কথা-বার্তা বলা, চলা-ফেরা, উঠা-বসা করা, হারাম হালাল সম্পর্কে জানা, ও শাস্তি ও হদ কায়েম করা ইত্যাদির বিধান সম্পর্কে মানুষ কখনোই জানতে পারত না।
এ বিষয়টির উপর কুরআন থেকে প্রমাণ:
·      এ বিষয়ে যে সব আয়াত এসেছে তন্মধ্যে সূরা- আলে ইমরানের আয়াতটি অন্যতম, যাতে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,
﴿وَأَطِيعُواْ ٱللَّهَ وَٱلرَّسُولَ لَعَلَّكُمۡ تُرۡحَمُونَ ١٣٢﴾ [ال عمران: ١٣٢]
“আর তোমরা আনুগত্য কর, আল্লাহ ও রাসূলের, যাতে তোমাদেরকে দয়া করা হয়”।[11]
·      অনুরূপ সূরা আন-নিসাতে আল্লাহর বাণী,
﴿يَٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُوٓاْ أَطِيعُواْ ٱللَّهَ وَأَطِيعُواْ ٱلرَّسُولَ وَأُوْلِي ٱلۡأَمۡرِ مِنكُمۡۖ فَإِن تَنَٰزَعۡتُمۡ فِي شَيۡءٖ فَرُدُّوهُ إِلَى ٱللَّهِ وَٱلرَّسُولِ إِن كُنتُمۡ تُؤۡمِنُونَ بِٱللَّهِ وَٱلۡيَوۡمِ ٱلۡأٓخِرِۚ ذَٰلِكَ خَيۡرٞ وَأَحۡسَنُ تَأۡوِيلًا ٥٩ ﴾ [النساء : ٥٩]
হে মুমিনগণ, তোমরা আনুগত্য কর আল্লাহর আনুগত্য কর রাসূলের এবং তোমাদের মধ্য থেকে কর্তৃত্বের অধিকারীদের। অতঃপর কোনো বিষয়ে যদি তোমরা মতবিরোধ কর তাহলে তা আল্লাহ ও রাসূলের দিকে প্রত্যার্পণ করাও -যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখ। এটি উত্তম এবং পরিণামে উৎকৃষ্টতর।[12]
·      সূরা আন-নিসাতে আল্লাহ তা‘আলা আরও বলেন,
﴿مَّن يُطِعِ ٱلرَّسُولَ فَقَدۡ أَطَاعَ ٱللَّهَۖ وَمَن تَوَلَّىٰ فَمَآ أَرۡسَلۡنَٰكَ عَلَيۡهِمۡ حَفِيظٗا ٨٠﴾ [النساء : ٨٠]
“যে রাসূলের আনুগত্য করল, সে আল্লাহরই আনুগত্য করল। আর যে বিমুখ হল, তবে আমি তোমাকে তাদের উপর তত্ত্বাবধায়ক করে প্রেরণ করিনি”।[13]
কিভাবে তার আনুগত্য করা ও বিবদমান বিষয় আল্লাহ ও রাসূলের সুন্নতের দিকে প্রত্যাবর্তন করা সম্ভব হবে যদি সুন্নাতকে প্রমাণ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া না হয় অথবা দাবী করা হয় যে সুন্নাহ্‌ সংরক্ষিত নয়? সুন্নাহ্‌ যদি সংরক্ষিত না হয়, তাহলে বুঝতে হবে আল্লাহ তার বান্দাদের এমন বস্তুর দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন যা কোনো অস্তিত্ব নেই। যা সম্পূর্ণ বাতিল, আল্লাহর প্রতি খারাপ ধারণা করা এবং আল্লাহর সাথে কুফরি করার নামান্তর।
·      আল্লাহ তা‘আলা সূরা আন-নাহলে বলেন,
﴿وَأَنزَلۡنَآ إِلَيۡكَ ٱلذِّكۡرَ لِتُبَيِّنَ لِلنَّاسِ مَا نُزِّلَ إِلَيۡهِمۡ وَلَعَلَّهُمۡ يَتَفَكَّرُونَ ٤٤ ﴾ [النحل: ٤٤]
“আর আমরা তোমার প্রতি নাযিল করেছি কুরআন; যাতে তুমি মানুষের জন্য স্পষ্ট করে দিতে পার, যা তাদের প্রতি নাযিল হয়েছে। আর যাতে তারা চিন্তা করে।”[14]
·      একই সূরাতে পরবর্তী অপর একটি আয়াতে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,
﴿وَمَآ أَنزَلۡنَا عَلَيۡكَ ٱلۡكِتَٰبَ إِلَّا لِتُبَيِّنَ لَهُمُ ٱلَّذِي ٱخۡتَلَفُواْ فِيهِ وَهُدٗى وَرَحۡمَةٗ لِّقَوۡمٖ يُؤۡمِنُونَ ٦٤ ﴾ [النحل: ٦٤]
“আর আমরা তোমার উপর কিতাব নাযিল করেছি, শুধু এ জন্য যে, যে বিষয়ে তারা মতভেদ করছে, তা তাদের জন্য তুমি স্পষ্ট করে দেবে এবং এটি হিদায়াত ও রহমত সেই কওমের জন্য যারা ঈমান আনে।”[15]
আল্লাহ তা‘আলা তাঁর রাসূলের উপর তাদের জন্য নাযিলকৃত কুরআনের বর্ণনা করার দায়িত্ব কীভাবে দেন যদি রাসূলের সুন্নার কোনো অস্তিত্ব না থাকে? অথবা যদি রাসূলের সুন্নাহকে প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করা না হয়?
·      অনুরূপভাবে আল্লাহ তা‘আলা সূরা আন-নূরে বলেন,
﴿قُلۡ أَطِيعُواْ ٱللَّهَ وَأَطِيعُواْ ٱلرَّسُولَۖ فَإِن تَوَلَّوۡاْ فَإِنَّمَا عَلَيۡهِ مَا حُمِّلَ وَعَلَيۡكُم مَّا حُمِّلۡتُمۡۖ وَإِن تُطِيعُوهُ تَهۡتَدُواْۚ وَمَا عَلَى ٱلرَّسُولِ إِلَّا ٱلۡبَلَٰغُ ٱلۡمُبِينُ ٥٤﴾ [النور: ٥٤]
বল, তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রাসূলের আনুগত্য কর। তারপর যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও, তবে সে শুধু তার উপর অর্পিত দায়িত্বের জন্য দায়ী এবং তোমাদের উপর অর্পিত দায়িত্বের জন্য তোমরাই দায়ী। আর যদি তোমরা তার আনুগত্য কর, তবে তোমরা হিদায়াত প্রাপ্ত হবে। আর রাসূলের দায়িত্ব শুধু স্পষ্টভাবে পৌঁছে দেওয়া।[16]
·      আল্লাহ তা‘আলা সূরা নূরে আরও বলেন,
﴿وَأَقِيمُواْ ٱلصَّلَوٰةَ وَءَاتُواْ ٱلزَّكَوٰةَ وَأَطِيعُواْ ٱلرَّسُولَ لَعَلَّكُمۡ تُرۡحَمُونَ٥٦﴾ [النور: ٥٦]
“আর তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও এবং রাসূলের আনুগত্য কর, যাতে তোমরা রহমতপ্রাপ্ত হতে পার।”[17]
·      আল্লাহ সূরা আ‘রাফে বলেন,
﴿ قُلۡ يَٰٓأَيُّهَا ٱلنَّاسُ إِنِّي رَسُولُ ٱللَّهِ إِلَيۡكُمۡ جَمِيعًا ٱلَّذِي لَهُۥ مُلۡكُ ٱلسَّمَٰوَٰتِ وَٱلۡأَرۡضِۖ لَآ إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ يُحۡيِۦ وَيُمِيتُۖ فَ‍َٔامِنُواْ بِٱللَّهِ وَرَسُولِهِ ٱلنَّبِيِّ ٱلۡأُمِّيِّ ٱلَّذِي يُؤۡمِنُ بِٱللَّهِ وَكَلِمَٰتِهِۦ وَٱتَّبِعُوهُ لَعَلَّكُمۡ تَهۡتَدُونَ ١٥٨ ﴾ [الاعراف: ١٥٧]
“বল, হে মানুষ, আমি তোমাদের সবার প্রতি আল্লাহর রাসূল, যার রয়েছে আসমানসমূহ ও জমিনের রাজত্ব। তিনি ছাড়া কোনো সত্য ইলাহ নাই। তিনি জীবন দান করেন ও মৃত্যু দেন। সুতরাং তোমরা আল্লাহর প্রতি ঈমান আন ও তার প্রেরিত উম্মী নবীর প্রতি, যে আল্লাহ ও তার বাণীসমূহের প্রতি ঈমান রাখে। আর তোমরা তার অনুসরণ কর, আশা করা যায়, তোমরা হিদায়াত লাভ করবে।”[18]
উল্লেখিত আয়াতগুলো দ্বারা সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় যে, হিদায়াত ও রহমত একমাত্র রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আনুগত্য করার মধ্যেই নিহিত। সুতরাং, তার সুন্নতের অনুসরণ-অনুকরণ ও তদনুযায়ী আমল করা ছাড়া হিদায়াত লাভ কিভাবে সম্ভব? অথবা এ কথা বলা যে, তার সুন্নতের কোনো বিশুদ্ধতা নাই অথবা তার সুন্নতের উপর ভরসা করা যাবে না, তার হিদায়াত কিভাবে অর্জিত হবে?
·      আল্লাহ তা‘আলা সূরা আন-নূরে বলেন,
﴿فَلۡيَحۡذَرِ ٱلَّذِينَ يُخَالِفُونَ عَنۡ أَمۡرِهِۦٓ أَن تُصِيبَهُمۡ فِتۡنَةٌ أَوۡ يُصِيبَهُمۡ عَذَابٌ أَلِيمٌ ٦٣ ﴾ [النور : ٦٣]
“অতএব যারা তার নির্দেশের বিরুদ্ধাচরণ করে, তারা যেন তাদের ওপর বিপর্যয় নেমে আসা অথবা যন্ত্রণাদায়ক আযাব পৌছার ভয় করে।”[19]
·      সূরা আল-হাশরে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,
﴿وَمَآ ءَاتَىٰكُمُ ٱلرَّسُولُ فَخُذُوهُ وَمَا نَهَىٰكُمۡ عَنۡهُ فَٱنتَهُواْۚ وَٱتَّقُواْ ٱللَّهَۖ إِنَّ ٱللَّهَ شَدِيدُ ٱلۡعِقَابِ ٧ ﴾ [الحشر: ٧]
রাসূল তোমাদের যা দেয় তা গ্রহণ কর, আর যা থেকে সে তোমাদের নিষেধ করে, তা থেকে বিরত হও এবং আল্লাহকেই ভয় কর, নিশ্চয় আল্লাহ শাস্তি প্রদানে কঠোর।[20]
এ বিষয়ে আরও অনেক আয়াত রয়েছে যেগুলো প্রমাণ করে যে আল্লাহর রাসূলের আনুগত্য করা ও তিনি যা নিয়ে দুনিয়াতে আগমন করেছেন তার আনুগত্য করাও ফরয; যেমনটি এর পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে যে, আল্লাহর কিতাবের অনুসরণ-অনুকরণ করা, আল্লাহর কিতাবকে আঁকড়ে ধরা, আল্লাহর কিতাবের আদেশ নিষেধ পালন করা ফরয। এ দুটি-কুরআন ও সূন্নাহ-একটি অপরটির সম্পূরক ও অবিচ্ছেদ্য মূল উৎস। দুটির কোনোটিকেই অস্বীকার করা যাবে না। যদি কোনো ব্যক্তি একটিকে অস্বীকার করে, সে অপরটিকেও অস্বীকার করল এবং মিথ্যারোপ করল। আর এ জাতীয় কাজ সকল উম্মতে মুসলিমাহ্‌র ঈমানদার ও জ্ঞানীদের ঐকমত্যে কুফরি, ভ্রষ্টতা ও ইসলামের গণ্ডি থেকে বের হয়ে যাওয়া।
এ বিষয়ে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিস থেকে প্রমাণ:
o     যারা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগে ছিলেন এবং যারা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগে ছিলেন না কিয়ামত পূর্ব দুনিয়াতে আগমন করবে এমন সবার জন্য আল্লাহর রাসূলের আনুগত্য করা ও তার আনিত দ্বীনের অনুসরণ করা ফরয হওয়া এবং তার নাফরমানি করা নিষিদ্ধ হওয়া বিষয়ে বর্ণিত হাদিসসমূহ মুতাওয়াতির – তথা নিরবিচ্ছিন্নভাবে অগণিত অসংখ্য লোকের বর্ণনার কারণে অকাট্যভাবে প্রমাণিত হওয়ার -পর্যায়ভুক্ত।
·      তন্মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, বুখারি ও মুসলিমে আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন-
«مَنْ أَطَاعَنِي فَقد أَطَاعَ الله ومَن عَصَانِي فقد عَصَى الله»
“যে ব্যক্তি আমার আনুগত্য করল, সে আল্লাহর আনুগত্য করল আর যে আমার বিরুদ্ধাচরণ করল, সে আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণ করল।”[21]
·      অনুরূপভাবে সহীহ বুখারীতে আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন-
«كلّ أمَّتي يَدخُلونَ الجنةَ إِلا مَن أَبَى قِيلَ يا رسولَ اللهِ ومَن يَأبَى قَالَ مَن أَطَاعَني دَخَلَ الجنة ومَن عَصَاني فَقد أَبَى»
“যে ব্যক্তি অস্বীকার করে, সে ব্যক্তি ব্যতীত আমার সকল উম্মত জান্নাতে প্রবেশ করবে; সাহাবীগণ জিজ্ঞেস করলেন: হে আল্লাহর রাসূল! কোন ব্যক্তি অস্বীকার করে? তখন তিনি বললেন: যে ব্যক্তি আমার আনুগত্য করবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে; আর যে ব্যক্তি আমার অবাধ্য, সে ব্যক্তিই অস্বীকার করে।”[22]
·      ইমাম আহমদ, আবু দাউদ ও হাকিম বিশুদ্ধ সনদে মিকদাম ইবনে মা‘দি কারাব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণনা করেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন
«ألا إني أوتيتُ هذا الكتاب، ومثلَهُ معهُ، ألا يُوشِكُ رَجُلٌ شَبْعان على أريكته، يقولُ: عليكم بِهذَا القُرآن، فيما وَجدْتُم فيه من حلالٍ فأحِلُّوهُ، وما وجدْتُم فيه من حرام فَحَرِّموهُ».
“জেনে রাখ, নিশ্চয়ই আমাকে এই কিতাব দেয়া হয়েছে এবং তার সাথে তার অনুরূপ বস্তুও (সুন্নাহ) দেওয়া হয়েছে। সাবধান! অচিরেই কোনো কোনো ব্যক্তি এমন পাওয়া যাবে যে তার খাটের উপর বসে বসে বলবে: তোমাদের উপর আবশ্যক হল এই কুরআনকে গ্রহণ করা; সুতরাং তোমরা তাতে যা হালাল হিসেবে পাবে, তাকে হালাল বলে মেনে নেবে, আর তাতে যা হারাম হিসেবে পাবে, তাকে হারাম বলে ঘোষণা করবে[23]।”
·      আবু দাউদ ও ইবন মাজাহ বিশুদ্ধ সনদে ইবনে আবু রাফে তার পিতা থেকে বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন-
«لا أَلْفَينَّ أَحَدَكُم مُتّكِئًا عَلى أَريكتِهِ يَأتِيهِ الأمْرُ مِن أَمْري مَمّا أَمَرْتُ بِهِ أو نَهَيْتُ عَنْهُ فَيقولُ لا ندْري، ما وَجَدْنا في كِتابِ اللهِ اتَّبَعْنَاه ».
“আমি যেন তোমাদের কাউকে এমন দেখতে না পাই যে সে  তার খাটের উপর হেলান দিয়ে বসে থাকবে[24], তার নিকট আমার নির্দেশিত অথবা আমার নিষেধকৃত কোনো বিষয় পৌঁছবে, তখন সে বলবে, আমি জানি না, আমরা আল্লাহর কিতাবে যা পাব তা-ই কেবল অনুসরণ করব।[25]
·      হাসান ইবনে জাবের হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি মিকদাম ইবন মা‘দি কারাব রাদিয়াল্লাহু আনহুকে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন,
«حَرّمَ رَسولُ الله r يومَ خَيْبَر أَشْياءَ ثم قَالَ يُوشِكُ أَحَدُكُم أَن يُكذِّبَني وَهو مُتّكِئ يُحًدّث بحدِيثي فَيقولُ بَيْنَنا وَبَيْنكُم كِتابُ اللهِ فما وَجَدْنَا فِيهِ من حَلالٍ اسْتَحْلَلْنَاهُ وَمَا وَجَدْنا فيه من حَرام حَرّمْنَاهُ أَلا إِنَّ مَا حَرّمَ رسُولُ اللهِ مِثْلُ مَا حَرّمَ الله» أخرجه الحاكم والترمذي وابن ماجه بإِسناد صحيح.
“রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম খাইবারের দিন কিছু জিনিসকে হারাম করেন। তারপর তিনি বলেন, অচিরেই তোমাদের কেউ কেউ আমাকে অমান্য করার মাধ্যমে মিথ্যারোপ করবে, সে হেলান দেয়া অবস্থায় থাকবে, তার কাছে আমার হাদিস বর্ণনা করা হবে, তখন সে বলবে, আমাদের মধ্যে ও তোমাদের মধ্যে ফায়সালা কারী আল্লাহর কিতাব। তাতে যে সব জিনিস হালাল পাব তাকে আমরা হালাল মনে করব, আর তাতে যে সব জিনিস হারাম পাব, তাকে আমরা হারাম মনে করব। সাবধান, মনে রাখবে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে সব বস্তুকে হারাম বলবে, তা আল্লাহ যে সব বস্তুকে হারাম বলবে তারই মত।[26]
o     তদ্রূপ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হতে অসংখ্য সনদে বর্ণিত যে, তিনি তার সাহাবীদের থেকে যারা উপস্থিত ছিল, তাদের ওসিয়ত করেন, তারা যেন অনুপস্থিত ব্যক্তিদের নিকট দ্বীনের দাওয়াত পৌছিয়ে দেন এবং তিনি তাদের বলতেন, হতে পারে যার নিকট পৌঁছানো হল, সে শ্রোতার চেয়ে অধিক সংরক্ষণকারী বা সমঝদার হবে। যেমন,
·      বুখারী ও মুসলিমে বর্ণিত, আরাফার দিন বিদায় হজের ভাষণে ও কুরবানির দিনে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সমবেত সাহাবীদের সম্বোধন করে বলেন,
  «فليبلغ الشاهد الغائب فرب من يبلغه أوعى له ممن سمعه »
“উপস্থিত ব্যক্তি অনুপস্থিত ব্যক্তিকে পৌঁছিয়ে দেবে। হতে পারে যার কাছে পৌঁছানো হল, সে যার থেকে শুনেছে তার থেকে অধিক সংরক্ষণকারী হবে।”[27]
যদি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাত যে শুনবে এবং যার কাছে তা পৌঁছবে তার উপর প্রমাণ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত না হবে, অনুরূপভাবে যদি রাসূলের সুন্নাত কিয়ামত পর্যন্ত স্থায়ী না হবে, তাহলে তিনি সুন্নাতকে মানুষের নিকট পৌঁছানোর জন্য নির্দেশ দিতেন না। রাসূলের নির্দেশ দেওয়া দ্বারা জানা গেল যে, সুন্নাহ্‌ দ্বারা প্রমাণ গ্রহণ করা যারা রাসূলের মুখ থেকে সরাসরি শোনে তাদের ক্ষেত্রে যেমন জরুরী অনুরূপভাবে যাদের নিকট বিশুদ্ধ সনদে সুন্নতটি পৌঁছল তাদের জন্যও জরুরী।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাহাবীগণ রাসূলের মুখের থেকে উচ্চারিত কথা ও কর্মগুলিকে যথাযথ সংরক্ষণ করেন এবং তারা তাদের পরবর্তী লোক তাবে‘ঈগণের নিকট তা পৌঁছান, তারপর তাবে‘ঈগণ তাদের পরবর্তী লোকদের নিকট পৌঁছান। এভাবে নির্ভরযোগ্য আলেমগণ প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম এবং যুগের পর যুগ রাসূলের সুন্নাহকে মানুষের নিকট পৌঁছানোর ধারাবাহিকতা বজায় রাখেন। তারা লেখনির মাধ্যমে তাদের কিতাবসমূহের মধ্যে সূন্নাহকে সংরক্ষণ করেন। কোনোটি সহীহ বা বিশুদ্ধ আর কোনোটি সহীহ নয় তাও তারা স্পষ্ট করেন। বিশুদ্ধ হাদীস ও দুর্বল হাদীস চেনার জানার জন্য বিভিন্ন ধরনের কায়দা কানুন তারা নির্ধারণ করেন, যাতে কোনোটি সহীহ আর কোনোটি দুর্বল তা জানা যায়। আর আহলে ইলম তথা জ্ঞানীগণ হাদিসের কিতাব বুখারি মুসলিমসহ অন্যান্য কিতাবগুলোকে গ্রহণ করেছেন এবং পরিপূর্ণভাবে হেফয ও সংরক্ষণ করেছেন যেমনিভাবে আল্লাহ তা‘আলা স্বীয় কিতাবকে বিকৃতকারী নাস্তিক ও বাতিলপন্থীদের হাত থেকে পরিপূর্ণভাবে সংরক্ষণ করেছেন, যেমন আল্লাহ তা‘আলা বলেন,
﴿إِنَّا نَحۡنُ نَزَّلۡنَا ٱلذِّكۡرَ وَإِنَّا لَهُۥ لَحَٰفِظُونَ ٩ ﴾ [الحجر: ٩]
“নিশ্চয় আমরা কুরআন নাযিল করছি, আর আমরা অবশ্যই তার সংরক্ষণকারী”। [সূরা আল-হিজর: ৯]
o     এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নতও অবতীর্ণ ওহী। আল্লাহ তা‘আলা যেমনিভাবে স্বীয় কিতাব কুরআনকে হেফাজত ও সংরক্ষণ করেছেন, অনুরূপভাবে সুন্নতকেও হেফাজত ও সংরক্ষণ করেছেন। সুন্নতের হেফাজতের জন্য যুগে যুগে আল্লাহ তা‘আলা বিজ্ঞ আলেমগণের সুব্যবস্থা করেছেন; এ সব আলেম বাতিলপন্থীরা হাদিস ও সুন্নতের মধ্যে যে সব বিকৃতি ও পরিবর্তন করার প্রচেষ্টা চালিয়েছিল, তা প্রতিহত করেন, জাহেল অজ্ঞ লোকদের অপব্যাখ্যাকে রোধ করেন।  মিথ্যুক, অজ্ঞ, নাস্তিকরা হাদিস ও সুন্নাহ্‌ সম্পর্কে যে সব অপবাদ দেন, তা দূর করেন। কারণ, আল্লাহ তা‘আলা হাদিসকে কুরআনে করীমের ব্যাখ্যা হিসেবে নির্ধারণ করেছেন, কুরআনের যে সব বিধান সংক্ষেপে বর্ণিত তার ব্যাখ্যা ও বিস্তারিত আলোচনা হাদিসই তুলে ধরেছে এবং কুরআনে যে সব আহকাম বর্ণিত হয় নি সেগুলো হাদিসেই আলোচনা করা হয়। যেমন, কোনো মহিলার দুধ পান সংক্রান্ত বিধি-বিধান, মিরাসের অনেক বিধান, স্ত্রীর সাথে তার ফুফু অথবা খালাকে একত্রে বিবাহ করা নিষিদ্ধ হওয়া সহ বিভিন্ন বিধানগুলোর আলোচনা শুধু হাদিসেই এসেছে। কুরআনে এ সব বিধান নিয়ে কোনো আলোচনা করা হয়নি।
সুন্নতের যথাযথ সম্মান ও তার উপর আমল করা ওয়াজিব হওয়া বিষয়ে সাহাবায়ে কেরাম, তাবে‘ঈন ও তাদের পরবর্তীদের বর্ণনা:
o     রাসূলের সুন্নাত (তথা তাঁর কথা, কাজ, অনুমোদন, শারীরিক ও গুণগত বৈশিষ্ট্য) এর যথাযথ সম্মান ও তার উপর আমল করা ফরয হওয়ার বিষয়ে সাহাবায়ে কেরাম, তাবে‘ঈন ও তাদের পরবর্তীদের কিছু কথা এখানে তুলে ধরা হচ্ছে।
·      যেমন, বুখারি ও মুসলিমে আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মৃত্যুর পর আরবের কিছু লোক মুরতাদ হল।