প্রচলিত বিভিন্ন খতম : তাৎপর্য ও পর্যালোচনা (তৃতীয় পর্ব)


প্রচলিত বিভিন্ন খতম :তাৎপর্য ও পর্যালোচনা :(তৃতীয় পর্ব) ঈসালে ছওয়াবে সঠিক পদ্ধতি  ঈসালে ছওয়াবের সঠিক পদ্ধতি এই  যে, মৌখিক এবং শারীরিক  ইবাদতের মধ্যে প্রত্যেক  ব্যক্তি নিজ  ঘরে একাকীভাবে যে ইবাদত  করে, নফল নামায পড়ে, নফল  রোজা রাখে, তাসবীহ আদায়  করে, তেলাওয়াত করে, নফল  হজ্ব বা উমরা করে, তাওয়াফ  করে এগুলোতে শুধু এই নিয়্যাত  করে নিবে যে, এর ছওয়াবটুকু  আমাদের অমুক দোস্তের  কাছে পৌঁছুক।  তা পৌঁছে যাবে। এটাই  হচ্ছে ঈসালে সওয়াব।  যে ছওয়াবটুকু তোমার নিজের  পাবার কথা তা তোমার জন্য  অর্জিত  হয়ে যাবে এবং যে সমস্ত  লোকদের নিয়্যাত  করা হয়েছে তারাও এর  পুরো ছওয়াব পেয়ে যাবে।  আর্থিক সাদাকা খায়রাতের  সবচেয়ে উত্তম পদ্ধতি হলো  , নিজের সামর্থানুযায়ী নগদ  অর্থ কোনো কল্যাণমূলক  কাজে লাগিয়ে দিবে অথবা  কোনো মিসকিনকে দিয়ে  দিবে।  এই পদ্ধতি এ জন্য উত্তম যে  , এতে মিসকিন নিজের  প্রয়োজন পুরা করতে পারে।  যদি আজ তার কোনো প্রয়োজন  না হয় তবে কালকের জন্য  রাখতে পারে। তা ছাড়া এই  ব্যবস্থাটি লোকদেখানো হতে  মুক্ত। হাদীসে গোপনে  সাদাকাকারীর এই ফযিলত  বর্ণিত হয়েছে যে, এমন  ব্যক্তিকে আল্লাহ কিয়ামত  দিবসে নিজের রহমতের ছায়ায়  জায়গা দিবেন, যখন আর  কোনো ছায়া থাকবে না এবং  গরমের কারণে মানুষ  ঘামে ডুবে যাবে।  ফযিলতের দিক থেকে দ্বিতীয়  শ্রেণির সাদাকা হচ্ছে  , মিসকিনের প্রয়োজন  অনুসারে তাকে সাদাকা করবে।  অর্থাৎ প্রয়োজন  দেখে তা পুরা করবে।  ঘর ও দোকানের বরকতের জন্যও  মালিক নিজে উপরোক্ত  ব্যবস্থাগুলো অবলম্বন করবে।  ﻭﺍﻟﻠﻪ ﺳﺒﺤﺎﻧﻪ ﻭﺗﻌﺎﻟﻰ ﺃﻋﻠﻢ  ১৪ রবিউল আওয়াল ১৪১৭ হিজরী।  পাঠক, এই হলো উনার বক্তব্য।  আমরা লক্ষ্য করেছি যে, উনার লেখায়  অসংখ্য কিতাব ও ফকীহের বক্তব্য ও তথ্য  রয়েছে। এই লেখা পড়ার পর  আশা করি সত্যসন্ধানী আলেমের জন্য  বিষয়টি বুঝতে কোনো সমস্যা পেতে  হবে না। একমাত্র পেটপূজারী আলেম  ছাড়া কেউই হিলার বাহানা তালাশ  করে উনার লিখার বিরুদ্ধে কলম ধরবেন  না। শরীয়তে বৈধ বা হালাল থাকা এক  কথা, আর বৈধ বানানো আরেক কথা।  কুরআন হাদীসে কোনো জিনিসের  বৈধতা থাকা এক কথা, কুরআন হাদীস  দিয়ে বৈধ বানানো আরেক কথা।  তবে প্রথমটি আহলুস-সুন্নাহ ওয়াল  জামাতের আলেমদের গুণ। আর  দ্বিতীয়টি গুমরাহ  পেটপূজারী আলেমদের গুণ।  বিষয়টি সহজে  বোঝার জন্য  একটি উপমা পেশ করছি। যেমন ধরুন, রাসূল  আলিমুল গাইব নন বিষয়টি কুরআন ও  হাদীসে দ্ব্যর্থহীনভাবে উল্লেখ  করা হয়েছে। যিনি বলছেন রাসূল আলিমুল  গাইব নন, তার দলীল কুরআন ও হাদীসের  একাধিক জায়গায় রয়েছে।  পক্ষান্তরে যে আলেম দাবী করছেন  রাসূল আলিমুল গাইব, তিনি কুরআন হাদীস  থেকেই তার মতের স্বপক্ষে দলীল  দিচ্ছেন। তবে তার দাবীর  পক্ষে কোনো দলীল কুরআন  বা হাদীসে নেই। তিনি কিছু দ্ব্যর্থবোধক  আয়াত ও হাদীসকে তার মতের  পক্ষে দলীল বানাচ্ছেন। এই দ্বিতীয়  বৈশিষ্ট্যের আলেম ছাড়া কেউই প্রচলিত  খতমে কুরআনের  স্বপক্ষে ওকালতি করতে পারেন না  , কেননা এসবের অস্তিত্ব  কুরআন, হাদীস, সাহাবা জীবনে নেই,  এমনকি খাইরুল কুরুন তথা সোনালী প্রজন্ম  (রাসূল, সাহাবা ও তাবে‘ঈ) এর  কোনো যুগেও এর অস্তিত্ব  খোঁজে পাবেন না।  প্রচলিত খতমের অস্তিত্ব খাইরুল  কুরুনে না থাকায় বিষয়টি বিদ‘আত হওয়ার  সাথে সাথে লেখক আরো অনেক  খারাবী তুলে ধরেছেন, যা উনার  অভিজ্ঞতার আলোকে। দীর্ঘ  অভিজ্ঞতার আলোকে উল্লেখিত কারণ  ছাড়াও আরো যে সমস্ত  খারাবী রয়েছে তার  কয়েকটি নিম্নে তুলে ধরছি। এই  অভিজ্ঞতা সবার নাও থাকতে পারে।  আমি অধমের কাছে যে বাস্তব  অভিজ্ঞতা হয়েছে তার  কয়েকটি উল্লেখ করব।  1. পরস্পর হিংসা বিদ্বেষ সৃষ্টি।  মনের হিংসার জ্বালা প্রকাশ্যে রুপ  নিতে অনেকের বেলায় দেখা গেছে।  যেমন, একজন কোথাও দশজন নিয়ে যাওয়ার  কথা। বাস্তবতা হলো, দশজন হলে এক  প্রতিষ্ঠানের সবাইকে খতমের তালিকায়  রাখা সম্ভব নয়। এ থেকেই হিংসা ও  সমালোচনার সুত্রপাত। যা খতমের দু একদিন  পর্যন্ত বা আরো বেশি চলতে থাকে।  2. অন্যের মনে জ্বালা সৃষ্টির জন্য  অযথা ঠাট্টাস্বরূপ খতমের কথা বলা। অথচ  হাদীসের  দৃষ্টিতে মিথ্যা বলা কাজে হোক  বা ঠাট্টায় হোক সর্বাবস্থায় হারাম।  সাধারণ নিমণ শ্রেণির উস্তাদ নয়  বরং অনেক শ্রদ্ধাভাজন আলেম  যারা দাওরায়ে হাদীসে পড়ান তাদের  অনেকের কাছ থেকেও এ সব আচরণ  পাওয়া যায়, যা অত্যন্ত লজ্জাজনক।  3. মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া। যেমন  অনেক সময় খতম না করেই খতমের  আয়োজককে মিথ্যা বলা।  4. কুরআনের সাথে ব্যবসায়িক  পণ্যের মত লেনদেনের আচরণ  করা এবং কুরআন নিয়ে বেয়াদবীমূলক  কথা বলা। যেমন, অহরহ  একথা বলতে শুনা গেছে  , সিলেটি ভাষায় ‘যেলা পয়সা ওলা খতম’  অর্থাৎ টাকা হিসেবে খতমের মান নির্ণয়  করা হয়।  অনেককে আগেই ‘কয়টেকি খতম’ অর্থাৎ  কত টাকার খতম, একথা বলতে শুনা যায়।  এভাবে টাকার উপর কুরআন পড়ার মান  নির্ণয় করা কুরআনের সাথে কতটুকু  বেয়াদবী? তা পাঠক নিজেই বলুন।  অসতর্কতায় আমার মুখ থেকেও দু-একদিন  এমন কথা বের হয়েছে। আল্লাহর  কাছে তওবা করেছি। আবারো করছি  , তিনি যেন আমাকে মাফ করেন।  5. কুরআন সামনে নিয়ে হাসি  , তামাশা, গল্পগুজবের মধ্য  দিয়ে তেলাওয়াত করা। আয়োজক  সামনে থাকলে তার ভয়ে একটু মনোযোগ  দিয়ে পড়া। এ থেকে স্পষ্ট যে, টাকাই  প্রচলিত খতমের মূল টার্গেট।  6. টাকাই যে মূল টার্গেট তা সবার  মনে জানা রয়েছে। সবার  আচরণে একথা স্পষ্ট। মূল টার্গেট  টাকা থাকাবস্থায় আল্লাহর কাছে এসব  খতমের  কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই, আলেম  বলতেই একথা জানেন।  একথা জানা থাকা সত্বেও নিজের পেট  পালার তাগিদে দীন সম্পর্কে অজ্ঞ  ব্যক্তির  অজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তাকে  ধোঁকা দেয়া। তাকে রাসূলের শিক্ষার  আদেশ না দিয়ে খতমের কথা বলা  , অথবা নিজ থেকে না বললেও  তাকে তার অজ্ঞতার উপর রাখা। সঠিক  সুন্নাতের দিশা না দেওয়া। অথচ সঠিক  ইলম প্রকাশের সুযোগ  থাকা সত্বে তা গোপন রাখা অবৈধ।  হাদীসে এর উপর ধমকি এসেছে।  এছাড়া সমাজিকভাবে আরো অনেক  বিষয় রয়েছে যা আলেমদের জন্য  লজ্জাজনক ও তাদের মান  সম্মানে আঘাত, এই খতমকে কেন্দ্র  করে হয়ে থাকে।  আহসানুল ফাতওয়ার লিখাটি অনুবাদ  করার পর এ বিষয়ে নিজ থেকে কিছু  লিখার প্রয়োজন ছিল না। যা নিজেই  পূর্বে উল্লেখ করেছি, তথাপি দু-  একটি কথা না লিখে পারলাম না। আল্লাহ  প্রথমে আমাকে এবং আমাদের  সবাইকে হেদায়াতের উপর পরিচালিত  করুন। সহীহ সুন্নাহ মোতাবেক জীবন  পরিচালনার তওফীক দান করুন। আমীন ।  খতমে ইউনুস  ইউনুস আলাইহিস সালাম আল্লাহর  প্রেরিত একজন নবী। আল্লাহর  নির্দেশের পূর্বে তিনি তাঁর গোত্র  থেকে হিজরত করে চলে যান। আল্লাহর  কাছে তাঁর এ কাজ অপছন্দনীয় হলে ইউনুস  আলাইহিস সালামকে মাছের  পেটে যেতে হয়। যার বিবরণ কুরআন  পাকে আল্লাহ উল্লেখ করেছেন। কমবেশ  আমাদের সবারই ঘটনাটি জানা আছে।  বিপদে পড়ে যে কেউ নিজের  গোনাহের  স্বীকারোক্তি বা তওবা করে  আন্তরিকভাবে আল্লাহকে ডাকলে  আল্লাহ তাঁর ডাক শুনেন। ইউনুস আলাইহিস  সালামের মাছের পেটে পড়ার বিপদ  থেকে উদ্ধারের এই  কাহিনিটি থেকে আল্লাহ  আমাদেরকে এই খবরটি দেন। উদ্ধারের  কাহিনিটি আল্লাহ যেভাবে উল্লেখ  করেন তাতে বিষয়টি একেবারে স্পষ্ট।  যেমন রাসূল সাল্লাল্লাহ  আলাইহি সাল্লামকে লক্ষ্য করে আল্লাহ  তা‘আলা কয়েকজন নবীর কথা স্মরণ  করিয়ে দিতে গিয়ে বলেন,  ﴿ ﻭَﺫَﺍ ﺍﻟﻨُّﻮﻥِ ﺇِﺫ ﺫَّﻫَﺐَ ﻣُﻐَﺎﺿِﺒًﺎ ﻓَﻈَﻦَّ ﺃَﻥ ﻟَّﻦ  ﻧَّﻘْﺪِﺭَ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻓَﻨَﺎﺩَﻯ ﻓِﻲ ﺍﻟﻈُّﻠُﻤَﺎﺕِ ﺃَﻥ ﻻ ﺇِﻟَﻪَ ﺇِﻻ  ﺃَﻧﺖَ ﺳُﺒْﺤَﺎﻧَﻚَ ﺇِﻧِّﻲ ﻛُﻨﺖُ ﻣِﻦَ  ﺍﻟﻈَّﺎﻟِﻤِﻴﻦَ ﻓَﺎﺳْﺘَﺠَﺒْﻨَﺎ ﻟَﻪُ ﻭَﻧَﺠَّﻴْﻨَﺎﻩُ ﻣِﻦَ ﺍﻟْﻐَﻢِّ  ﻭَﻛَﺬَﻟِﻚَ ﻧُﻨﺠِﻲ ﺍﻟْﻤُﺆْﻣِﻨِﻴﻦَ ﴾ ‏( ﺳﻮﺭﺓ ﺍﻷﻧﺒﻴﺎﺀ :  88-87 ‏)  ‘‘আর আপনি মাছওয়ালার  কথা স্মরণ করুন, তিনি ক্রুদ্ধ  হয়ে চলে গিয়েছিলেন,  অতঃপর মনে করেছিলেন যে  , আমি তাকে আটকাবো না।  অতঃপর তিনি অন্ধকারের  মধ্যে আহ্বান  করে বললেন, তুমি ব্যতীত  কোনো উপাস্য নেই।  তুমি দোষমুক্ত, নিশ্চয়  আমি গোনাহগার। অতঃপর  আমি তার  আহ্বানে সাড়া দিলাম।  এবং তাকে দুশ্চিন্তা থেকে  মুক্তি দিলাম।  আমি এমনিভাবে মুমিনদের  মুক্তি দিয়ে থাকি’’ ।  এই  ঘটনা থেকে আমরা কী শিক্ষা পাই? একটু  চিন্তা করলেই যে কেউ  বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারবে। অর্থাৎ  যে কোনো বিপদে আল্লাহর  দিকে প্রত্যাবর্তনই একজন মুমিনের করণীয়।  সকাতরে আল্লাহকে ডাকলে তিনি তাঁর  ডাকে অবশ্যই সাড়া দিবেন।  এবার আমরা দেখি হাদীসে এ দো  ‘আর ব্যাপারে আমাদের জন্য  কী দিকনির্দেশনা রয়েছে। রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন:  ” ﺩﻋﻮﺓ ﺫﻱ ﺍﻟﻨﻮﻥ ﺇﺫﺍ ﺩﻋﺎ ﻭﻫﻮ ﻓﻲ ﺑﻄﻦ  ﺍﻟﺤﻮﺕ ﻻ ﺇﻟﻪ ﺇﻻ ﺃﻧﺖ ﺳﺒﺤﺎﻧﻚ ﺇﻧﻲ ﻛﻨﺖ  ﻣﻦ ﺍﻟﻈﺎﻟﻤﻴﻦ ﻓﺈﻧﻪ ﻟﻢ ﻳﺪﻉ ﺑﻬﺎ ﺭﺟﻞ ﻣﺴﻠﻢ  ﻓﻲ ﺷﻲﺀ ﻗﻂ ﺇﻻ ﺍﺳﺘﺠﺎﺏ ﺍﻟﻠﻪ ﻟﻪ .”  ‏( ﺳﻨﻦ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ،ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺪﻋﻮﺍﺕ ﻋﻦ ﺭﺳﻮﻝ  ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ، ﺑﺎﺏ 82 ، ﺭﻗﻢ :  3505 ، ﻣﺴﻨﺪ ﺍﺣﻤﺪ، ﻣﺴﻨﺪ ﺳﻌﺪ ﺑﻦ ﺃﺑﻲ  ﻭﻗﺎﺹ، ﺭﻗﻢ: 1462 ‏)  ‘‘মাছওয়ালা যখন মাছের  পেটে থাকাবস্থায় দো‘আ  করেছিলেন তখন তার দো‘আ  ছিল,  ﻻ ﺇِﻟَﻪَ ﺇِﻻ ﺃَﻧﺖَ ﺳُﺒْﺤَﺎﻧَﻚَ ﺇِﻧِّﻲ ﻛُﻨﺖُ ﻣِﻦَ  ﺍﻟﻈَّﺎﻟِﻤِﻴﻦَ  (তুমি ব্যতীত কোনো উপাস্য  নেই। তুমি দোষমুক্ত, নিশ্চয়  আমি গোনাহগার) অতএব যখনই  কোনো মুসলিম  ব্যক্তি কোনো বিষয়ে এর  মাধ্যমে দো‘আ  করেছে আল্লাহ তার  ডাকে সাড়া দিয়েছেন।’’  কুরআন হাদীসের  শিক্ষা থেকে যে বিষয়টি উপলব্ধি হয়  তা অত্যন্ত স্পষ্ট। সাধারণ ব্যক্তিও  চিন্তা করলে বিষয়টি বুঝতে পারবেন।  কুরআন হাদীসের  শিক্ষা থেকে আমরা বুঝলাম, যে কোনো  ব্যক্তি যে কোনো বিপদে পড়লে এই দো  ‘আটি করতে পারে। এই দো‘আ  করলে আল্লাহ তাকে বিপদ মুক্ত করবেন  বলে আমরা পূর্ণ আশাবাদী হতে পারি।  কিন্তু কে বা কারা প্রথমে কুরআন  হাদীসের এই শিক্ষার পরিবর্তন  ঘটিয়ে খতমে ইউনুস নামে খতম আবিষ্কার  করেছে তার ইতিহাস আমাদের  কাছে না থাকলেও অভিজ্ঞতার  নামে আমরা কুরআন হাদীসের শিক্ষার  বিপরীত চলছি। সাধারণ মানুষের  অজ্ঞতাকে পূঁজি করে আমাদের স্বার্থ  উদ্ধার করার জন্য  রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের শিক্ষার প্রচার  না করা কতটুকু  আমানতদারী তা প্রশ্নযোগ্য। বিবেকের  কাছে কি আমরা কখনো প্রশ্নের সম্মুখীন  হই না? না কি পেটের  তাগিদে আমাদের বিবেকই নষ্ট  হয়ে গেছে?  এই খতমের বিবরণ  যেভাবে দেওয়া হয়েছে:  ‘‘কঠিন বিপদ মামলা-  মোকাদ্দমা ও সঙ্কটের সময় এই  দো‘আ সোয়া লক্ষ বার  পড়িবে। প্রত্যেক একশতবার  পড়া হইলে শরীর  বা মুখে পানি দিবে। পাক  অবস্থায় পাক বিছানায়  বসিয়া কেবলামুখী হইয়া  পড়িবে। ৩,৭ কিংবা ৪০  দিনে শেষ করিবে। মাছের  পেটের ভিতর অন্ধকারের এই  দোয়া জন্মলাভ  করিয়াছে বলিয়া অন্ধকারে  বসিয়া পড়িলে আরও সত্বর ফল  লাভ হয়। খতম শেষ হইলে একবার  এই আয়াত পড়িবেঃ  } ﻓَﺎﺳْﺘَﺠَﺒْﻨَﺎ ﻟَﻪُ ﻭَﻧَﺠَّﻴْﻨَﺎﻩُ ﻣِﻦَ ﺍﻟْﻐَﻢِّ ﻭَﻛَﺬَﻟِﻚَ  ﻧُﻨْﺠِﻲ ﺍﻟْﻤُﺆْﻣِﻨِﻴﻦَ ‏(ﺍﻻﻧﺒﻴﺎﺀ : 88 ‏) {  উচ্চারণঃ ফাসতাজাবনা লাহু  ওয়া নাজ্জাইনাহু মিনাল  গাম্মি ওয়া কাযালিকা নুনজিল  মুমিনীন। (১৭ পারা  , সূরা আম্বিয়া, আয়াত:৮৮)  অর্থঃ ‘‘তৎপর আমি তাঁহার (হযরত  ইউনুস নবীর) দোয়া কবুল  করিয়াছিলাম  এবং তাঁহাকে কঠিন বিপদ  হইতে উদ্ধার করিয়াছিলাম  এবং এইরূপে আমি  বিশ্বাসীগণকে উদ্ধার  করিয়া থাকি।’’ এই  তাদবীরকে খতমে ইউনুস  বলা হয়। ইহা প্রত্যেক  ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকরী ও  অব্যর্থ ফলপদ বলিয়া প্রমাণিত  হইয়াছে।’’ [71]  এখানে আমরা কুরআন হাদীসের  শিক্ষার সাথে দুই ধরণের বৈপরীত্য  দেখতে পাই।  এক: নির্দিষ্ট সংখ্যার ব্যাপারটি।  যা কুরআন হাদীসের শিক্ষার বিপরীত।  দুই: বিপদে যিনি পড়েন  তিনি আল্লাহর কাছে প্রত্যাবর্তন  করে দো  ‘আটি না পড়ে অন্যকে দিয়ে পড়ানো।  যার কোনো শিক্ষা কুরআন বা রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  জীবন থেকে আমরা পাই না।  সবচেয়ে হাসির ব্যাপার হলো  , বিপদে পড়লাম আমি, আর  আরেকজনকে এনে তাকে দিয়ে দো‘আ  পড়াচ্ছি, সে তার দো‘আয় বলছে ‘নিশ্চয়  আমি গোনাহগার’ আমি বিপদে পড়ে  অন্যকে গোনাহগার বলানোর  মাধ্যমে আমার নিজের কী লাভ?  একটু ভেবে দেখলাম না। একদিন একজন  সাধারণ মানুষ  আমাকে কথাটি বলে হাসিয়ে  দিয়েছেন। আলেম না হয়েও তার এই  উপলব্ধি দেখে অত্যন্ত আনন্দিত হলাম  এবং নিজেকে ধিক্কার দিলাম এই  বলে যে, বুঝেও কেন এতে জড়িত  রয়েছি। আল্লাহ আমাকে মাফ করুন।  এভাবে এসব খতমের  মাধ্যমে সমাজে ‘পুরোহিততন্ত্র’ চালু  হয়েছে। ইসলামের  নির্দেশনা মোতাবেক বিপদগ্রস্ত  ব্যক্তি নিজে সুন্নাত সম্মত দো‘আ  পড়ে মনের আবেগ নিয়ে আল্লাহর  কাছে কাঁদবে এবং বিপদমুক্তি প্রার্থনা  করবে। নেককার মানুষের কাছে দো‘আ  চাওয়া যাবে। তিনি তার মত করে তার  জন্য দো‘আ করবেন।  অভিজ্ঞতার দোহাই দিয়ে বৈধ করা  এসব খতম বৈধ করার  স্বার্থে অভিজ্ঞতার  কথা বলে ফতোয়া চালিয়ে দিতে দেখা  যায়। রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের শিক্ষার  বিপরীত কার অভিজ্ঞতা বা কার কথার  এত মূল্যায়ন যা রাসূলের শিক্ষাকেও হার  মানায়? আর যিনি এ নির্দিষ্ট সংখ্যার  অভিজ্ঞতার  কথা বললেন, তিনি নিজে পড়ার  কথা বললেন, না কি অন্যকে দিয়ে  পড়ানোর? যাই হোক এর কোনটিই  যেহেতেু রাসূলের শিক্ষা নয় তাই  আমরা এ সবের পিছনে পড়ার প্রয়োজন  বোধ করি না। এ সব কথাবার্তা কখনোই  গ্রহণযোগ্য নয়। এতে করে শরীয়ত  পরিবর্তন হয় বলে আমরা স্পষ্ট  দেখতে পাচ্ছি। একটি সহজ উদাহরণ  দিলে বিষয়টি বুঝতে সহজ  হবে বলে আশা করছি। যেমন ধরুন, রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  হাদীসের আলোকে আমরা জানি  , সাদাকা বা দানের  মাধ্যমে বালা মুসিবত দূর হয়। এবার  মনে করুন কোনো ব্যক্তি কোনো এক  তারিখের নির্দিষ্ট সময়ে, যেমন  সে শাওয়াল মাসের ৬ তারিখ শনিবার  বিকাল ৫টার সময় ১০ টাকা দান করল।  আল্লাহর অনুগ্রহে তার একটি মুসিবত দূর  হলো। আমরা বলতে পারি এই সাদাকার  ওসীলায় হয়ত আল্লাহ তাঁর মুসিবত দূর  করেছেন। কেননা সাদাকায় মুসিবত দূর হয়  বলে রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদীস  থেকে আমরা পেয়েছি। এমন কয়েকবার  হলে সে বলতে পারে, অভিজ্ঞতার  আলোকে দেখা গেছে সাদাকায়  মুসিবত দূর হয়। কিন্তু এ  দানকারী লোকটি যদি বলে, অভিজ্ঞতার  আলোকে দেখা গেছে ১০ টাকা দান  করলে মুসিবত দূর হয় তাই সবাই দশ টাকা দান  করাকে আমল বানান। আরেকটু  এগিয়ে যদি বলে, শাওয়াল মাসে দশ  টাকা দান করলে মুসিবত দূর  হয়, আরো বাড়িয়ে যেমন, শাওয়াল  মাসের ৬ তারিখ দশ টাকা দান  করলে মুসিবত দূর হয়, আরেকটু  এগিয়ে যেমন, শাওয়াল মাসের ৬ তারিখ  শনিবার বিকাল ৫টার সময় ১০ টাকা দান  করলে মুসিবত দূর হয়। তাই সবাই  এভাবে আমল করুন। তাঁর এই  কথাগুলো একেবারে মুর্খ ছাড়া কেউ  গ্রহণ করবেন বলে জানি না। যদিও  সে তার আমলের ফলাফল  এভাবে পেয়েছে। কিন্তু তার এই  অনুভূতি রাসূলের শিক্ষা বিবর্জিত।  এতে শরীয়তের মূল শিক্ষা পরিবর্তন  হয়, তাই তার অনুভূতি কখনো গ্রহণ করা যায়  না বা অভিজ্ঞতার নাম দিয়ে এ ধরণের  আমল শুরু করা যায় না। এবার এর  আলোকে আমরা ‘খতমে ইউনুস’ নামের  খতমের কথাটি চিন্তা করি।  আশাকরি এসবের অসারতা বুঝতে আর  কারো কোনো দ্বিধা থাকবে না।  এতো হলো খতমের নামে রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  শিক্ষার পরিবর্তন। আর এই পরিবর্তন  থেকেই খতমকে কেন্দ্র করে অন্যান্য  খারাবী ও নাজায়েযের সুচনা।  যে কোনো সুন্নাতকেই তার স্বাভাবিক  অবস্থা তথা রাসূল সাল্লাল্লাহু  ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর আমলের  রূপরেখা থেকে সরিয়ে দিলে সুন্নাত  নিমজ্জিত হওয়ার  সাথে সাথে আরো অনেক নাজায়েয  যোগ হয়। যার  অনেকটা আমরা ইতোপূর্বে খতমে  কুরআনের শেষে উল্লেখ করেছি। অধিক  সংখ্যক পড়া নিয়ে মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া  , খতম পাঠকারী হুজুর ও খতমের  আয়োজকের মাঝে সন্দেহ, মন কষাকষির  সৃষ্টি হওয়া, টাকার পরিমাণ  হিসেবে খতমের সংখ্যায় কমবেশ করা  , আলেমদের সাথে জাহেলের  বেয়াদবীমূলক আচরণ ইত্যাদি। টাকার  স্বার্থে বুঝে না বোঝার ভান  করে অনেক শ্রদ্ধাভাজন আলেমকে তাঁর  সম্মান বা নিজ অবস্থানের অনেক  নিচে নামতে দেখা যায়। আল্লাহ  আমাদের সবাইকে এ সব থেকে পরিত্রাণ  দান করুন এবং হুবহু রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের তরীক্বার উপর  চলার তওফিক দান করুন।  খতমে বুখারী  মুমিন ব্যক্তির জীবনে হাদীসের  গুরুত্ব অপরিসীম। হাদীস ছাড়া মুমিন তাঁর  ইসলামী জীবন কল্পনা করতে পারে না।  কুরআন হাদীস উভয় মিলেই তাঁর জীবন  পরিচালিত। তাই কুরআনের মতই হাদীস  শিক্ষা করা, হাদীস চর্চা করা মুমিনের  জন্য অপরিহার্য। প্রতিটি মুমিনের জন্য  জ্ঞান শিক্ষা করা ফরয। আর কুরআন ও  হাদীসই হচ্ছে মুসলিমের মূল জ্ঞান  ভাণ্ডার। এই হাদীস শিক্ষা, চর্চা, মুখস্থ  রাখা, সংরক্ষণ করা ও প্রচার  প্রসারে সাহাবায়ে কেরাম থেকে শুরু  করে উম্মতের একদল আলেম তাদের  জীবনের পুরো অংশটিই ব্যয়  করে দিয়েছেন। যাদের মেহনত, শ্রমের  বদৌলতে রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদীস  সঠিকভাবে আমাদের পর্যন্ত পৌছেছে।  নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন,  ‏« ﻧﻀﺮ ﺍﻟﻠﻪ ﺍﻣﺮﺃ ﺳﻤﻊ ﻣﻨﺎ ﺣﺪﻳﺜﺎ ﻓﺤﻔﻈﻪ  ﺣﺘﻰ ﻳﺒﻠﻐﻪ ﻓﺮﺏ ﺣﺎﻣﻞ ﻓﻘﻪ ﺇﻟﻰ ﻣﻦ ﻫﻮ  ﺃﻓﻘﻪ ﻣﻨﻪ ﻭﺭﺏ ﺣﺎﻣﻞ ﻓﻘﻪ ﻟﻴﺲ ﺑﻔﻘﻴﻪ ‏».  ‏(ﺳﻨﻦ ﺃﺑﻲ ﺩﺍﻭﺩ، ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﻌﻠﻢ، ﺑﺎﺏ ﻓﻀﻞ  ﻧﺸﺮ ﺍﻟﻌﻠﻢ، ﺭﻗﻢ : 3662 ، ﺳﻨﻦ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ،  ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﻌﻠﻢ ﻋﻦ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ  ﻭﺳﻠﻢ، ﺑﺎﺏ ﺍﻟﺤﺚ ﻋﻠﻰ ﺗﺒﻠﻴﻎ ﺍﻟﺴﻤﺎﻉ، ﺭﻗﻢ :  3656 ‏)  ‘‘আল্লাহ তাঁর  চেহারাকে উজ্জল করুন  যে আমার কাছ  থেকে কোনো হাদীস  শুনল, অতঃপর সে তা সংরক্ষন  করল, এমনকি তা অন্যের  কাছে পৌছাল। অনেক ফিক্বহ  (হাদীস) এর ধারক এমন রয়েছে  , সে যার কাছে পৌছায় সেই  ব্যক্তি তাঁর চেয়ে অধিক  ফক্বীহ। আর অনেক ফিক্বহের  ধারক নিজে ফক্বীহ নয়।’’ [72]  হাদীসটির মর্ম হচ্ছে, অনেক সময়  এমনও হয় যে, যার কাছে পৌছানো হয়  সে হাদীসের মর্ম বা ভাব  যিনি পৌছিয়েছেন তার  চেয়ে বেশি বুঝেন। আবার এমনও অনেক  রয়েছেন যিনি শুধুমাত্র হাদীসটি মুখস্থ  রাখতে পেরেছেন কিন্তু তার তাৎপর্য  উপলব্ধি করতে পারেন নি  , হতে পারে যার কাছে পৌছাবেন  তিনি এর তাৎপর্য  উপলব্ধি করতে পারবেন, তাই রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  হাদীসকে বেশি বেশি পৌছানো ও  প্রচারের দিকে উৎসাহিত করেছেন।  উলামায়ে কেরামের এই দল উক্ত  হাদীসের পুরোপুরি হক্ব আদায় করার  চেষ্টা করেছেন।  এদিকে নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবদ্দশায় তাঁর  নামে মিথ্যা বানিয়ে বলার দু  একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা পাওয়া গেলেও  সাধারণত কেউই সে সময় তাঁর  নামে মিথ্যা কথা বলার সাহস পেত না।  কিন্তু তাঁর মৃত্যুর পর  মিথ্যা বানিয়ে বলা শুরু হয়।  মুনাফেক, ফাসেক্ব, স্বার্থান্বেষী  তাদের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য রাসূলের  নামে মিথ্যা বানিয়ে বলত। রাসূল  সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন বলে সরলমনা মুসলিমদের  ধোকা দেওয়া সহজ ছিল। কিন্তু হাদীস  গ্রহণে সাহাবিদের সতর্কতা ও যাচাইয়ের  কারণে তা তাদের মধ্যে খুব প্রসার লাভ  করতে পারে নি। প্রখ্যাত  তাবিয়ী মুজাহিদ (রহ.) [73] বলেন:  “ﺟﺎﺀ ﺑﺸﻴﺮ ﺍﻟﻌﺪﻭﻯ ﺇﻟﻰ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﻓﺠﻌﻞ  ﻳﺤﺪﺙ ﻭﻳﻘﻮﻝ ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ -ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ  ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ -ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ  ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ- ﻓﺠﻌﻞ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﻻ ﻳﺄﺫﻥ  ﻟﺤﺪﻳﺜﻪ ﻭﻻ ﻳﻨﻈﺮ ﺇﻟﻴﻪ ﻓﻘﺎﻝ ﻳﺎ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ  ﻣﺎ ﻟﻰ ﻻ ﺃﺭﺍﻙ ﺗﺴﻤﻊ ﻟﺤﺪﻳﺜﻰ ﺃﺣﺪﺛﻚ ﻋﻦ  ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻭﻻ  ﺗﺴﻤﻊ. ﻓﻘﺎﻝ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﺇﻧﺎ ﻛﻨﺎ ﻣﺮﺓ ﺇﺫﺍ  ﺳﻤﻌﻨﺎ ﺭﺟﻼ ﻳﻘﻮﻝ ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ – ﺻﻠﻰ  ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﺍﺑﺘﺪﺭﺗﻪ ﺃﺑﺼﺎﺭﻧﺎ ﻭﺃﺻﻐﻴﻨﺎ  ﺇﻟﻴﻪ ﺑﺂﺫﺍﻧﻨﺎ ﻓﻠﻤﺎ ﺭﻛﺐ ﺍﻟﻨﺎﺱ ﺍﻟﺼﻌﺐ  ﻭﺍﻟﺬﻟﻮﻝ ﻟﻢ ﻧﺄﺧﺬ ﻣﻦ ﺍﻟﻨﺎﺱ ﺇﻻ ﻣﺎ ﻧﻌﺮﻑ .”  ‏(ﺻﺤﻴﺢ ﻣﺴﻠﻢ، ﻣﻘﺪﻣﺔ , ﺑﺎﺏ ﺍﻟﻨﻬﻲ ﻋﻦ  ﺍﻟﺮﻭﺍﻳﺔ ﻋﻦ ﺍﻟﻀﻌﻔﺎﺀ، 10-1 ‏)  ‘‘(তাবিয়ী) বুশাইর আল-  আদাবী ইবনে আব্বাসের (রা)  কাছে আগমন করেন  এবং হাদীস বলতে শুরু করেন।  তিনি বলতে থাকেন:  রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন, রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন। কিন্তু ইবনে আব্বাস  (রা) তার দিকে কর্ণপাত  করলেন না। তখন বুশাইর বলেন:  হে ইবনু আব্বাস, আমার  কি হলো!  আমি আপনাকে আমার হাদীস  শুনতে দেখছি না  ? আমি আপনার  কাছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর  হাদীস বর্ণনা করছি, অথচ  আপনি কর্ণপাত করছেন  না!? তখন ইবনু আব্বাস (রা)  বলেন: একসময় ছিল যখন  আমরা যদি কাউকে বলতে  শুনতাম: ‘রাসুলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন’, তখনই আমাদের  দৃষ্টিগুলো তাদের দিকে আবদ্ধ  হয়ে যেত এবং আমরা পূর্ণ  মনোযোগ দিয়ে তাঁর  প্রতি কর্ণপাত করতাম। কিন্তু  যখন মানুষ খানাখন্দক ভালমন্দ সব  পথেই চলে গেল তখন  থেকে আমরা আর শুধুমাত্র  সুপরিচিত ও পরিজ্ঞাত বিষয়  ব্যতীত মানুষদের  থেকে কোনো কিছু গ্রহণ  করি না।’’ [74]  মুসলিম উম্মাহর  ভিতরে মিথ্যাবাদী হাদীস  বর্ণনাকারীর উদ্ভব  হবে বলে নবী আলাইহি  ওয়াসাল্লাম উম্মতকে এ  ব্যাপারে অত্যন্ত সতর্ক করেন। তার  থেকে কিছু শুনেই যাচাই  ছাড়া নির্বিচারে গ্রহণ করা  , বর্ণনা করা থেকে উম্মতকে  সর্বোচ্চ সতর্ক ও সাবধান করে দেন।  মিথ্যা বা সন্দেহযুক্ত হাদীস  বর্ণনা করতে নিষেধ আরোপ করেন।  আবু হুরাইরা (রা.)  থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেনে:  ‏« ﺳَﻴَﻜُﻮﻥُ ﻓِﻰ ﺁﺧِﺮِ ﺃُﻣَّﺘِﻰ ﺃُﻧَﺎﺱٌ ﻳُﺤَﺪِّﺛُﻮﻧَﻜُﻢْ  ﻣَﺎ ﻟَﻢْ ﺗَﺴْﻤَﻌُﻮﺍ ﺃَﻧْﺘُﻢْ ﻭَﻻَ ﺁﺑَﺎﺅُﻛُﻢْ ﻓَﺈِﻳَّﺎﻛُﻢْ  ﻭَﺇِﻳَّﺎﻫُﻢْ ‏» ‏(ﺻﺤﻴﺢ ﻣﺴﻠﻢ، ﺍﻟﻤﺮﺟﻊ ﺍﻟﺴﺎﺑﻖ ‏)  ‘‘শেষ যুগে আমার উম্মতের কিছু  মানুষ তোমাদেরকে এমন সব  হাদীস বলবে যা তোমরা বা  তোমাদের পিতামহগণ  কখনো শুনেন নি। খবরদার!  তোমরা তাদের  থেকে সাবধান থাকবে  , তাদের  থেকে দূরে থাকবে।’’ [75]  আবু হুরাইরা (রা.)  থেকে আরেকটি হাদীসে বর্ণিত,  রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন:  ‏« ﻛﻔﻰ ﺑﺎﻟﻤﺮﺀ ﻛﺬﺑﺎ ﺃﻥ ﻳﺤﺪﺙ ﺑﻜﻞ ﻣﺎ ﺳﻤﻊ  ‏»  ‘‘একজন মানুষের  মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য এতটুকু  যথেষ্ট যে, সে যা শুনবে তাই  বর্ণনা করবে।’’ [76]  এভাবে অগণিত  হাদীসে নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার থেকে হাদীস  গ্রহণের ক্ষেত্রে উম্মতকে সর্বোচ্চ সতর্ক  করেছেন।        একদিকে রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের সতর্কবাণী  , অপরদিকে জালিয়াতদের  জালিয়াতী উম্মতের এই শ্রেষ্ঠ  জাতি উলামাদল তথা মুহাদ্দিসীনের  শ্রমকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয়।  নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের নামে বর্ণিত  অগণিত হাদীসের মধ্য হতে প্রকৃত  হাদীসটি  খোঁজে বের  করতে তাদেরকে অনেক শ্রম  দিতে হয়েছে। হাদীস মূলত কুরআনের  ব্যাখ্যা বা প্রজ্ঞা হিসেবে কুরআনের  মতই তার হেফাযত করতে আল্লাহ তা  ‘আলা এ ধরণের আলেমের এক ঝাঁক  তৈরী করে দেন। যারা তাদের  জীবনের সিংহভাগই হাদীস চর্চার  পিছনে ব্যয় করে রাসূলের প্রকৃত  বাণীটি উম্মতের  হাতে তুলে দিতে সক্ষম হন। আর একেই  আমরা সহীহ হাদীস বা বিশুদ্ধ হাদীস  বলে জানি।  উলামায়ে উম্মতের এই শ্রেণির  অন্যতম ছিলেন ইমাম বুখারী রাহ.। আরব  রীতি অনুযায়ী বংশধারা সহ তার  পুরো নাম হলো, মুহাম্মদ ইবন ইসমাইল ইবন  ইবরাহীম ইবন মুগীরাহ ইবন বারদিযবাহ। তার  মূল নাম মুহাম্মদ। তিনি ১৯৪ হিজরীর  শাওয়াল মাসের ১৩ তারিখ রোজ শুক্রবার  (৮১০ খ্রিস্টাব্দ) খোরাসানের  বুখারা এলাকায়  (বর্তমানে উজবেকিস্তানের অংশ)  জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র ৯ বৎসর বয়সে কুরআন  মুখস্থ শেষ করেই ১০ বৎসর বয়স  থেকে হাদীস মুখস্থ, হাদীসের চর্চা  , হাদীস সংরক্ষণ করতে বিভিন্ন  মুহাদ্দিসের কাছে যাতায়াত শুরু করেন।  তার মেধা ছিল বর্ণনাতীত। তার মেধা  , হাদীস গ্রহণে সতর্কতার বিভিন্ন  ঘটনা কিতাবাদিতে উল্লেখ রয়েছে।  তার জীবনের শ্রেষ্ঠতম কর্ম ‘সহীহুল  বুখারী’ নামে প্রসিদ্ধ হাদীসের এই  গ্রন্থটির রচনা বলে উল্লেখ করেছেন  উলামায়ে কেরাম। হাদীসের উপর পূর্ণ  পাণ্ডিত্য অর্জনের পর ২১৭  হিজরী সনে তার বয়স যখন ২৩, তখন  তিনি এই গ্রন্থটির রচনা শুরু করেন।  গ্রন্থটিতে শুধুমাত্র সহীহ হাদীসকেই  স্থান দেওয়ার লক্ষ্যে তিনি দীর্ঘ ষোল  বছর সাধনার মধ্য দিয়ে ২৩৩  হিজরী সনে এর কাজ সমাপ্ত করেন।  রচনাকালে তিনি সর্বদা সওম পালন  করতেন এবং প্রতিটি হাদীস  লিখতে গোসল করে দু রাক‘আত সালাত  আদায় করতেন বলে জানা যায়। বিশুদ্ধতার  উপর নিশ্চিত হওয়ার আগে কোনো হাদীস  লিখতেন না। বর্ণনায় আরো জানা যায়  যে, তিনি বিশুদ্ধ থেকে বিশুদ্ধতম  হাদীসের সংকলনের ইচ্ছায় তার মুখস্থ  অনুমানিক ছয় লক্ষ হাদীস থেকে বাছাই  করে একেবারে সহীহ বা বিশুদ্ধ  হাদীসটিকেই এই গ্রন্থে স্থান দেন। এত  সংখ্যক হাদীস থেকে বিভিন্ন হাদীস  বারবার বর্ণনা সহকারে মাত্র ৭২৭৫  বা তার সামান্য কমবেশ [77] হাদীস তার  কিতাবে স্থান পেয়েছে। সহীহুল  বুখারী হিসেবে কিতাবটির নাম  সর্বজনের কাছে পরিচিত। তবে তার মূল  নাম হচ্ছে ‘আল-জামি‘উস্-সহীহ’ ।  ২৫৬ হিজরীর ১লা শাওয়াল, মোতাবেক  ৩১ আগষ্ট ৮৭০ খ্রিস্টাব্দ শুক্রবার দিবাগত  রাত্রে ৬২ বৎসর বয়সে এই মহান ব্যক্তিত্ব  মারা যান। [78]  উলামায়ে উম্মতের মূলধারার আলেম  তথা আহলুস্সুন্নাহ ওয়াল জামাতের  আলেমদেরকে সর্বদা সহীহ হাদীসকেই  গ্রহণ করতে এবং অন্যান্য ভেজালযুক্ত  হাদীসকে চিহ্নিত করে প্রত্যাখ্যান  করতে দেখা গেছে। জানা অবস্থায়  কেউই সহীহ হাদীস ছাড়া অন্য  কোনো হাদীস গ্রহণ করতেন না। সহীহ  হাদীস ছাড়া শরীয়তের বিষয়াদি প্রমাণ  করতেন না। ইমাম বুখারী তাঁর এই রচনায়  সহীহ গ্রহণের প্রচেষ্টায় পূর্ণ সফল  হয়েছেন বলে সমস্ত  উলামায়ে মুহাদ্দিসীন যাচাই ও  পরীক্ষা নিরীক্ষার পর  স্বীকৃতি দিয়েছেন। তিনি তার চেষ্টায়  সফল হওয়ায় সারা বিশ্বের  আনাচে কানাচে তাঁর কিতাবের  সুনাম, সুখ্যাতি ও মূল্যায়ন ছড়িয়ে পড়ে।  তাঁর কিতাব দল মত  নির্বিশেষে সর্বজনের কাছে ‘আসাহ্হুল  কুতুব বা‘দা কিতাবিল্লাহ’ বা কুরআনের পর  সর্বোচ্চ বিশুদ্ধ কিতাব হিসেবে ভূষিত  হয়। এর মত আরেকটি কিতাব ‘সহীহ  মুসলিম’ ছাড়া অন্য সব কিতাবের হাদীস  যাচাই  করে নেওয়াকে মুহাদ্দিসীনে কেরাম  জরুরী মনে করলেও তাঁর এ কিতাবের  হাদীসগুলো নির্বিচারে গ্রহণের  অনুমোদন দেন।  এই হলো ‘সহীহুল বুখারী’ বা আমাদের  মাঝে ‘বুখারী শরীফ’ হিসেবে পরিচিত  কিতাবের অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সারকথা।  অত্যন্ত সংক্ষেপে আমরা যে সার  কথাটি জানলাম তা হলো,  *‘সহীহুল বুখারী’ মুহাম্মদ ইবন ইসমাইল  বুখারীর লিখিত একটি হাদীসের কিতাব।  * এতে নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিপুল সংখ্যক  বিশুদ্ধ হাদীসের এক বিশাল ভাণ্ডার  রয়েছে।  * তাঁর কিতাবের সমস্ত হাদীস বিশুদ্ধ  বলে মুহাদ্দিসীনে কেরামের  কাছে স্বীকৃতি পেয়েছে।  * যাচাই বা নিরীক্ষা ছাড়াও আমরা তাঁর  কিতাবের হাদীস গ্রহণ করতে পারি।  তাঁর কিতাবের হাদীসগুলো সহীহ  জানার পর এখন আমাদের করণীয় কী? এই  প্রশ্নের উত্তর আহলুস্সুন্নাহ ওয়াল  জামাতের আলেমদের কাছে একটিই। আর  তা হচ্ছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের শিক্ষা।  রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের  শিক্ষা মোতাবেক আমাদের করণীয়:  * হাদীসগুলো থেকে আমাদের জ্ঞান  আহরণ করতে হবে।  * বেশি বেশি এই হাদীসগুলোর  চর্চা করতে হবে।  * হাদীসগুলো নিজে বুঝা এবং অপরকে  বুঝানোর চেষ্টা করতে হবে।  * হাদীসগুলো মুখস্থ করা, বর্ণনা করা, তার  প্রচার প্রসার করতে হবে। হাদীসের  ক্ষেত্রে এই হলো রাসূলের শিক্ষা।  সাহাবায়ে কেরামের জীবন থেকেও  আমরা এই শিক্ষাই দেখতে পাই।  রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের স্বীকৃত খাইরুল  কুরুনেও এই ছিল হাদীসের  ক্ষেত্রে তাদের আচরণ।  এর বিপরীত ঈসালে ছওয়াবের জন্য  হাদীস তেলাওয়াত করা, অসুস্থ  হলে বা যে কোনো বিপদে মুসিবতে  পড়লে হাদীস পাঠ করে দো‘আ করার  কোনো নজীর না রাসূলের শিক্ষায়  রয়েছে, না সাহাবিদের  জীবনে রয়েছে, না খাইরুল  কুরুনে রয়েছে। কিন্তু  কে বা কারা কুরআনের মত বিভিন্ন  বাহানায় এই কিতাবের  হাদীসকে তাদের অর্থ উপার্জনের  জন্য ‘খতমে বুখারী’ নামে এই  প্রসিদ্ধ ‘সহীহুল বুখারী’ কিতাবের খতম  বের করেছে তার কোনো হদীস  না থাকলেও আমাদের মাঝে তা অত্যন্ত  প্রসার লাভ করেছে। এই কিতাবের শুরু  থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে দো‘আ  করলে নাকি দো‘আ কবুল হয়। রাসূলের  বাণী ছাড়া এমন কথা বলার সাহস  আমরা কী-ভাবে পাই তাতে অবাক  লাগে। এর নাম আল্লাহ ও তার রাসূলের  উপর মিথ্যা অপবাদ নয় কি? আমাদের  বাস্তব জীবনে এই কিতাবের হাদীসের  তেমন একটা গুরুত্ব না দেখা গেলেও  রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম  এর শিক্ষার উল্টো বিষয়ে অত্যন্ত আগ্রহ  এবং এই বিপরীতমুখি শিক্ষার  দিকে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে দেখা যায়।  পেটপূজারী বা আলেম নামে অজ্ঞ  কোনো ব্যক্তি হয়তো এর সূচনা করেছিল।  কিন্তু পরবর্তীতে খাইরুল কুরুনের বিপরীত  কর্ম কী-ভাবে বর্তমান আহলুস্সুন্নাহ ওয়াল  জামাত দাবীদার আলেমদের  মাঝে প্রচলন লাভ  করে তা ভেবে পাওয়া মুশকিল। অর্থের  লোভ ছাড়া বাহ্যত আর কোনো কারণ  না দেখে গেলেও এতসব  আলেমকে এদিকে সম্পৃক্ত করাটাও দুস্কর।  আল্লাহই ভাল জানেন।  কথিত রয়েছে, ইমাম বুখারী রাহ.  না কি এই কিতাব শেষ করে দো‘আ  করেছিলেন। এই বাহানায় এই কিতাবের  খতমের দিকে উদ্বুদ্ধ করা হয়ে থাকে।  পাঠক, এই কথাকে আপনি নিজের  বিবেক খাটিয়ে একটু চিন্তা করে বুঝুন।  ইমাম বুখারী রাহ. এত বছরের সাধনায়  যে কর্ম করেছেন তা তাঁর একটি নেক  আমল। কুরআন ও হাদীসের ভাষায়  যা ‘আমলে সালেহ’ । তাঁর  কর্মটি যে ‘আমলে সালেহ’ এতে কোনো  সন্দেহ নেই। হাদীসের  মাধ্যমে আমরা তা প্রমাণ করেছি।  ‘আমলে সালেহ’ বা নেক কর্মের  মাধ্যমে বান্দা আল্লাহর নৈকট্য লাভ  করে। আমলে সালেহের পর দো‘আ কবুল  হয় বলে হাদীস  থেকে আমরা জানতে পারি। তাই  বুখারী রাহ. এর জন্য এটা করা স্বাভাবিক।  তবে একথা মনে রাখতে হবে যে,  ‘আমল’ কোনটি সালেহ আর  কোনটি সালেহ নয় তা সম্পূর্ণ  তাওক্বীফী বা নুসূস নির্ভর বিষয় ।  ওহির বাইরে যুক্তি দিয়ে এ বিষয়ে কিছু  বলার সুযোগ নেই। ইমাম বুখারী রাহ. এর  কর্মটি আমলে সালেহ হওয়ার বেলায়  রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম  এর বাণী রয়েছে। কিন্তু আমাদের এই কর্ম  কি তাই? তার কর্ম আর আমার কর্ম  কি এক? রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম  কখনো এমনটি করতে বলেছেন?  সাহাবিরা কখনো এমনটি করেছেন?  এসবের উত্তর যদি ‘না’ হয় তবে কোন  বাহানায় আমরা এ ধরণের কর্মের  বৈধতা দেই? না কি উপার্জনের  স্বার্থে হালালকে হারাম করার মত  পাণ্ডিত্য ও যোগ্যতা আমরা অর্জন করেছি  ?        এই খতমের প্রতি উৎসাহিত করার জন্য  আরো বলা হয়ে থাকে যে, ইমাম  বুখারী রাহ. নাকি এই কিতাবের কাজ  সমাপ্তির পরে আল্লাহর কাছে দো‘আ  করেছিলেন যে, যে ব্যক্তি তাঁর এই  কিতাবটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত  পড়ে দো‘আ করবে আল্লাহ যেন তাঁর দো  ‘আ কবুল করেন। এ থেকেই নাকি এই  খতমের সুত্রপাত। পাঠক, এই  কথাটি আপনি কী হিসেবে দেখেন?  বুখারী রাহ. এর কিতাব রচনার  প্রেক্ষাপটের নির্ভরযোগ্য  কোনো কিতাবে আপনি এমন  কোনো কথা পাবেন না। ‘সহীহুল বুখারী  ’ রচনার কয়েক শতাব্দী পর পর্যন্ত ইমাম  বুখারী রচিত এ গ্রন্থের চর্চা, তার খেদমত  অত্যন্ত ব্যাপক হারে হলেও খতমের নজীর  দেখবেন না। এ থেকেই এসব কিছু  যে বানানো গল্প  তা অতি সহজে অনুমেয়।  তা ছাড়া বুখারী রাহ. এর মত বিশুদ্ধ  আকীদার ধারক ব্যক্তির দিকে এমন কথার  অপবাদ দেওয়া কতটুকু গ্রহণযোগ্য  তা বিবেকের কাছে প্রশ্ন। ইমাম  বুখারী রাহ. তিনি কি শারি‘ তথা শরীয়ত  প্রবর্তক? তিনি এমন  কথা বললে তা অনুসরণযোগ্য হবে  ? নাকি তার আক্বীদা প্রশ্নবিদ্ধ হবে? যাই  হোক আমরা অযথা অনির্ভরযোগ্য  কোনো কথার উপর ভিত্তি করে ইমাম  বুখারী রাহ. এর ব্যক্তিত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ  করতে পারি না। আমরা এই কথাগুলোকেই  অসার বলে ধরে নেই। বুখারী পড়ে দো  ‘আ কবুল হলে রাসূলের অন্য সব হাদীসের  কি দোষ? নাকি আপনার অভিজ্ঞতায় অন্য  হাদীস পড়ে দো‘আ করলে তা কবুল হয় না  , শুধু এই কিতাবের হাদীস পড়লে দো‘আ  কবুল হয়? সাহাবিরা যে সব হাদীস  জানতেন তা তাদের কাছে হাদীস  বলে সন্দেহ ছিল নাকি? নাকি তারা এ  ব্যাপারে অজ্ঞ ছিলেন? নাকি তাদের  কারো জীবনে কোনদিন কোনো বিপদ  মুসিবত আসে নি? তারা একটি দিনও  একটি হাদীস পড়ে দো‘আ করলেন  না তার কারণ কি?  মোটকথা, অভিজ্ঞতার নামে রাসূলের  শিক্ষার বাইরে আমাদের কিছু বলার  অধিকার নেই।  পাঠক, আশা করি আমরা এই  বুখারী খতমের তাৎপর্য বুঝতে পেরেছি।  এতো হলো শুধুমাত্র মূল খতমের বিষয়।  অর্থাৎ এটি একটি রাসূলের  শিক্ষা বিরোধী কর্ম। যার কোনো নজীর  বা দৃষ্টান্ত সোনালী যুগে নেই।  অপরদিকে খতমে কুরআনের বেলায়  তা খেলাফে সুন্নাহ  হওয়া ছাড়া আরো যে সমস্ত অতিরিক্ত  খারাবী উল্লেখ করা হয়েছিল তার  অনেকটা এই খতমে বুখারীতেও রয়েছে।  কয়েকটি ক্ষেত্রে তা খতমে কুরআনের  তুলনায় অধিক। যেমন:  * কুরআন খতম করা বুখারী খতমের তুলনায়  অনেক সহজ। তাই কুরআন সাধারণত খতম  তথা পড়ে শেষ করা হয়। খতম  না করে মিথ্যা বলার ধোকা কুরআনের  বেলায় কম হয়।  পক্ষান্তরে বুখারী পুরো পড়া অনেক  কঠিন। তাই এখানে খতমের আয়োজকের  জিজ্ঞাসার উত্তরে খতম  হয়ে গেছে বলে মিথ্যার ধোকা প্রায়ই  অপরিহার্য বলে দেখা যায়।  * কুরআন সাধারণত আলেম বলতেই সবাই  পড়তে পারে। তাই তাজবীদ, সিফাত, হক্ব  আদায় করে তেলাওয়াত বা অতি দ্রুত  তেলাওয়াতের ত্রুটি ছাড়া সাধারণত শব্দ  ভুলের ত্রুটি হয় না। পক্ষান্তরে বিজ্ঞ  আলেম ছাড়া অনেকেই হাদীস  পড়তে পারে না। টাকার  স্বার্থে খতমে অংশ নিয়ে সে আল্লাহর  রাসূলের বাণীকে তার মনমত ভুল উচ্চারণ  করে। এমন ভুলকেও মুহাদ্দিসীনে কেরাম  রাসূলের উপর মিথ্যা বলার অপরাধ  বলে গণ্য করেছেন।  * ইতোপূর্বে বলেছি যে  , বুখারী অধিকাংশ সময়ই খতম হয় না।  একজনের অংশ শেষ হলেও আরেকজন তার  নির্ধারিত অংশ শেষ করতে পারে না।  এক্ষেত্রে মানুষের  সাথে মিথ্যা বলা ধোকা দেওয়ার  সাথে সাথে দো‘আর সময় আল্লাহর  সাথে মিথ্যা বলতে অনেক দিন লক্ষ্য  করা গেছে। যেমন. দো‘আয় বলা হয়,  ‘‘আল্লাহ, এই আমাদের বুখারী খতমকে…’’  ‘‘ যে খতম করা হয়েছে…’’ ইত্যাদি।  * হাদীসে রাসূল (সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম) পড়া অবস্থায়  অনর্থক গল্পগুজব, হাসিঠাট্টা  , ঢং তামাশা থেকে সাধারণত  কোনো মজলিসই খালি থাকে না।  একমাত্র খতমের আয়োজক  সামনে থাকলে তাঁর ভয়  বা সম্মানে নিশ্চুপ পড়া হয়। হাদীসের  সাথে বেয়াদবী ছাড়া এ সবের নাম  কি দেওয়া যায়?  * এই খতমে মাঝে মধ্যে সবচেয়ে বড়  আপত্তিকর যে বিষয়টি সংঘটিত হয়  তা হলো, আল্লাহ ছাড়া অন্যের নাম  জপের মাধ্যমে বরকত গ্রহণ  যা সম্পূর্ণরূপে শির্ক। কেননা বরকতের জন্য  কারো নাম জপ করা তাঁর ইবাদত  বা আর্চনার শামিল। বরকতের জন্য একমাত্র  আল্লাহর নামই নেওয়া যায়। তাই বরকতের  জন্য আল্লাহ ছাড়া কারো নাম  এমনকি রাসূল সাল্লাল্লাহু  ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিলেও শির্কের  গোনাহ্ কাঁধে বহন করতে হবে। কিন্তু  অনেক সময় খতমে বুখারীর অনুষ্ঠানের  শেষদিকে আসহাবে বদরিয়্যিন অর্থাৎ বদর  যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সাহাবাগণ সম্বলিত  হাদীসটি সবাইকে শুনিয়ে পূনরায় পড়া হয়।  তাদের নাম নেওয়ার কারণ  হিসেবে বরকতের কথা উল্লেখ করা হয়  এবং পরবর্তীতে তাদের নামের দোহাই  দিয়ে দো‘আ করা হয়। কারো দোহাই  দিয়ে দো‘আর  ব্যাপারটি খতমে তাসমিয়াতে আমরা  আরেকটু বিস্তারিত জানব ইনশাআল্লাহ।  এখানে শুধু এটুকু বলতে চাই যে, বরকতের  জন্য আল্লাহ ছাড়া কারো নাম  নেওয়া শির্ক।  সত্য সন্ধানী নিঃস্বার্থ ব্যক্তির জন্য  এই খতমের তাৎপর্য বুঝতে আর  কোনো বেগ  পেতে হবে না বলে আশা করি। আল্লাহ  সর্বপ্রথম আমাকে অসংখ্য এসব  মজলিসে শরীক হওয়ার কারণে যে সব  গুনাহ সংঘটিত  হয়েছে তা থেকে ক্ষমা করুন  এবং আমি সহ সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন।  স্বার্থের জন্য  দীনকে জলাঞ্জলি দেওয়া থেকে  আমাকে এবং সবাইকে বিরত রাখুন।  আমীন।  খতমে না-রী  ‘খতমে নারী’ বা ‘দুরুদে নারীয়াহ’ ।  মানুষের বানানো দুরুদের নামে নির্দিষ্ট  কিছু বাক্য। এই বাক্যগুলো ৪৪৪৪ বার  পড়লে এই খতম হয়। কথিত আছে এই খতম  পড়লে নাকি আগুন যেমন  কোনো বস্তুকে ভস্মীভূত করে দেয় ঠিক  তদ্রূপ এই খতমও বিপদ আপদকে ভস্মীভূত  করে দূরে সরিয়ে দেয়। তাই এই খতমের  নাম আরবী শব্দ ‘‘ ﻧﺎﺭ ’’ যার অর্থ আগুন, এই  অর্থের দিকে সম্পৃক্ত করে এর  নাম ‘খতমে নারী’ বা ‘দুরুদে নারী  ’ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই খতমের  উৎপত্তি কোথা থেকে? এর প্রথম  আবিষ্কারক কে? এতে যে দো‘আ পড়া হয়  তার মর্ম কী  ? অনেকে একে দুরুদে নারী নাম  দেন, একে দুরূদ নামে নামকরণ  করা অদৌ বৈধ কি না  ? তা জানা না থাকলেও  কারো কারো কথায় আমরা এমন কাজের  পিছে দৌড়াই। এতে যেমন কান্না পায়  আবার হাসিও পায়। অথচ দুনিয়ার সাধারণ  একটি বিষয় হলেও আমরা অনেক যাচাই  বাছাই করে অগ্রসর হই। ডাক্তারের  কথা শুনলেই দৌড়াই না, বরং পূর্বে তার  সম্পর্কে অবগত হওয়ার চেষ্টা করি। অথচ  ধর্মীয়  বিশ্বাসে বিশ্বাসী হয়ে একটি আমল  করছি বা করাচ্ছি আর একবারও  ভেবে দেখছি না। এসব হচ্ছে ঈমান  আক্বীদার বিষয়ে আমাদের শৈথিল্য  আচরণের বহিঃপ্রকাশ। প্রশ্ন হলো  , যিনি আমাকে এই খতম পড়ানোর জন্য  উৎসাহিত করলেন তিনি তার কতটি রোগ  বালাই এই দুরূদ দ্বারা সমাধান  করেছেন? নাকি হাসপাতাল আর  ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়েছেন? এই দুরুদের  এত অ্যাক্শন হলে তিনি নিজে বিভিন্ন  সময়ে বিপদে জর্জরিত হয়ে তা দূর করার  জন্য অন্য পথ খোঁজেন কেন? জানা দো  ‘আটি পড়ে ফেললেই তো হয়।  আফসোস, যার নিজের আস্থা এই দুরূদের  উপর নেই, থাকার কথাও  নয়, তিনি কীভাবে মানুষকে এটি  পড়ানোর উপদেশ  দেন? অপরদিকে আমাদের  পাগলামী দেখে আফসোস হয় যে  , আমরা কী-ভাবে এমন কথা গ্রহণ করি  ? ঔষধ মনে করলেও খাবে একজন আর ভাল  হবে আরেকজন? এইটুকু  বোঝার  কি বিবেক আমাদের নেই?  যাই হোক এবার আমরা মূল  বিষয়ে আসি এবং জানার  চেষ্টা করি খতমে না-রী কী  ? এবং তা পড়া বা পড়ানো কতটুকু  সমীচীন?  প্রথমেই মানুষের বানানো দো  ‘আটি ও তার অর্থ উল্লেখ করছি।  সত্যসন্ধানী ব্যক্তি অর্থের দিকে একটু  মনোনিবেশ করলেই দো‘আটির তাৎপর্য  এবং এমন দো‘আ পড়া কতটুকু সিদ্ধ  তা বুঝে নিতে পারবেন।  দুরুদের  নামে আরবী যে বাক্যগুলো পড়া হয়  তা নিম্নরূপ:  ” ﺍﻟﻠﻬﻢ ﺻَﻞِّ ﺻَﻼﺓً ﻛﺎﻣِﻠَﺔً ﻭﺳَﻠِّﻢْ ﺳَﻼﻣًﺎ ﺗﺎﻣًّﺎ  ﻋﻠﻰ ﺳَﻴِّﺪﻧﺎ ﻣﺤﻤﺪٍ ﺍﻟﺬﻱ ﺗَﻨْﺤَﻞُّ ﺑﻪ ﺍﻟﻌُﻘَﺪُ،  ﻭﺗَﻨْﻔَﺮِﺝُ ﺑﻪ ﺍﻟﻜُﺮَﺏُ ﻭﺗُﻘﻀﻰ ﺑﻪ ﺍﻟﺤﻮﺍﺋﺞُ  ﻭﺗُﻨﺎﻝُ ﺑﻪ ﺍﻟﺮﻏﺎﺋﺐُ ﻭﺣُﺴْﻦُ ﺍﻟﺨﻮﺍﺗِﻢِ  ﻭﻳُﺴْﺘﺴﻘﻰ ﺍﻟﻐﻤﺎﻡُ ﺑﻮﺟﻬﻪ ﺍﻟﻜﺮﻳﻢ، ﻭﻋﻠﻰ ﺁﻟﻪ  ﻭﺻﺤﺒﻪ ﻓﻲ ﻛﻞ ﻟﻤﺤﺔ ﻭﻧﻔﺲ ﺑﻌﺪﺩِ ﻛﻞ  ﻣﻌﻠﻮﻡ ﻟﻚ .”  ‘‘হে আল্লাহ পরিপূর্ণ রহমত ও  পূর্ণ শান্তি বর্ষিত কর  আমাদের সরদার মুহাম্মদের  উপর যার মাধ্যমে সমস্যাসমূহ  সমাধান হয়, দুঃখ  দুর্দশা তিরোহিত  হয়, প্রয়োজনাদি মিটিয়ে  দেওয়া হয়, পূণ্যাবলী ও সুন্দর  শেষ পরিণাম অর্জিত হয়, তার  পবিত্র চেহারা/সত্তার  মাধ্যমে বৃষ্টি কামনা করা হয়।  আর রহমত বর্ষণ কর তার পরিবার  ও তার সাহাবায়ে কেরামের  উপর তোমার  জানা সংখ্যানূযায়ী,  প্রতিটি মুহুর্তে ও  নিঃশ্বাসে ’’  সচেতন ও সত্যসন্ধানী আলেমকে এ  দুরুদের সমস্যা ব্যাখ্যা করে বুঝাবার  প্রয়োজন নেই। জ্ঞানী ব্যক্তি মাত্র  দুরূদটির শব্দ বা অর্থের প্রতি একটু খেয়াল  দিলেই এর সমস্যা বুঝতে পারবেন।  খতমটিতে যেহেতু অনেক আপত্তিকর শব্দ  বা বাক্য রয়েছে তাই এর  আপত্তিগুলো কোনো পর্যায়ের নিজ  বিবেক দিয়ে একটু  গভীরভাবে চিন্তা করলেই বুঝা যাবে।  সবাই সহজে  বোঝার জন্য  প্রথমে প্রাসাঙ্গিক কিছু কথা বলার  প্রয়োজন বোধ করছি, যাতে করে এর  তাৎপর্য বুঝা আমাদের জন্য সহজ হয়।  আল্লাহতে বিশ্বাসী মানুষ বলতেই  একথা বিশ্বাস করেন যে, সবকিছুর মূল  সমাধানকারী বা পরিচালনাকারী  একমাত্র আল্লাহ তা‘আলা ।  আল্লাহতে বিশ্বাসী মুসলিম অমুসলিম  সকলেই এ বিশ্বাস পোষণ করেন।  তবে মুসলিম ব্যক্তির বিশ্বাস আর আস্তিক  বিধর্মীর বিশ্বাসের মাঝে পার্থক্য এই  যে, মুসলিম মনে করেন আল্লাহ  কোনো কিছুর সমাধান  বা পরিচালনা করতে কারো মুখাপেক্ষী  নন। তার কাছে কিছু  চাইতে কোনো ব্যক্তিকে মিডিয়া  বানাবার দরকার পড়ে না।  পক্ষান্তরে অমুসলিমের বিশ্বাস হলো  , বাদশা যেমন রাষ্ট্র পরিচালনায় বিভিন্ন  ব্যক্তির মুখাপেক্ষী থাকেন আল্লাহও  এরকম মুখাপেক্ষী । বিশেষ  ব্যক্তি ছাড়া অন্য কেউ যেমন  সরাসরি বাদশাহর কাছে কোনো কিছু  চাইতে পারে না, মিডিয়ার প্রয়োজন  হয়, ঠিক তদ্রূপ আল্লাহও সবাইকে চিনেন  না, তাঁর কাছে সরাসরি পৌছা যায় না  , তাই তাঁর কাছে কিছু  চাইতে হলে বিশেষ  ব্যক্তিকে মিডিয়া বানানো প্রয়োজন।  কুরআনের অসংখ্য আয়াতে তাদের এসব  বিশ্বাস বর্ণনা করা হয়েছে,  যেগুলো থেকে তাদের এমন বিশ্বাসের  প্রমাণ পাওয়া যায়। মক্কার সমস্ত কাফের এ  ধরণের বিশ্বাস পোষণ করত। মূল  পরিচালনায় তারা আল্লাহকে বিশ্বাস  করত বলে কুরআনের একাধিক আয়াতে এর  প্রমাণ মিলে। মূর্তির পূজা করলেও  মূর্তিকে তারা মূল  পরিচালনাকারী বলে বিশ্বাস করত না।  তাদের নিজের মুখের কথা ছিল,  ﴿ ﻣَﺎ ﻧَﻌْﺒُﺪُﻫُﻢْ ﺇِﻟَّﺎ ﻟِﻴُﻘَﺮِّﺑُﻮﻧَﺎ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺯُﻟْﻔَﻰ ﴾ ‏( ﺍﻟﺰﻣﺮ 188: )  ‘‘আমরা তাদের ইবাদত কেবল এ  জন্য করি যে  , তারা আমাদেরকে আল্লাহর  নিকটবর্তী করে দেয়’’ [79]  সবকিছুর ক্ষমতা, রক্ষা, সৃষ্টি  , রিযিক, পরিচালনা ইত্যাদির মূল কর্তৃত্ব  আল্লাহর হাতে বলে তাদের বিশ্বাস  ছিল। কুরআনে অসংখ্য জায়গায় এর  আলোচনা করা হয়েছে। মূল কর্তৃত্ব  আল্লাহর হাতে স্বীকার করার পর অন্য  কিছুর ইবাদত বা অন্যকিছুকে আল্লাহর  অংশীদার করা অযৌক্তিক  বলে কুরআনে বারবার দেখানো হয়েছে।  মোটকথা তারা যে সমস্ত মাখলুক  বা নেক মানুষের ইবাদত করত  ওসিলা হিসেবেই করত। কিন্তু  যা ওসিলা হওয়ার  যোগ্যতা রাখে না তাকে ওসিলা  হিসেবে গ্রহণ বা বিশ্বাস  করাকে আল্লাহ তা  ‘আলা কুরআনে শির্কের মাধ্যম বা শির্ক  বলেই আখ্যায়িত করেছন।  অপরদিকে নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম শির্কের সমস্ত  পথকে বন্ধ করেছেন। রাসূলকেও  যাতে কেউ কোনো বাহানায় আল্লাহ  পর্যন্ত না পৌছায়, আল্লাহর  কোনো গুণাবলীতে শরীক না করে, এ  ব্যাপারে উম্মতকে সর্বোচ্চ সতর্ক  করেছেন। উম্মতকে এ ব্যাপারে সতর্ক  করার নির্দেশ স্বয়ং আল্লাহর পক্ষ  থেকে ছিল। আল্লাহ বলেন,  ﴿ﻗُﻞْ ﻻ ﺃَﻣْﻠِﻚُ ﻟِﻨَﻔْﺴِﻲ ﻧَﻔْﻌًﺎ ﻭَﻻ ﺿَﺮًّﺍ ﺇِﻻ ﻣَﺎ ﺷَﺎﺀَ ﺍﻟﻠَّﻪُ …  ﴾ ‏( ﺍﻻﻋﺮﺍﻑ 188: ‏)  ‘‘হে নবী আপনি বলে দিন,  আমি আমার নিজের কল্যাণ  সাধনের এবং অকল্যাণ  সাধনের মালিক নই…’’ [80]  অন্যত্র এরশাদ হয়েছে,  ﴿ ﻭَﺇِﻥْ ﻳَﻤْﺴَﺴْﻚَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﺑِﻀُﺮٍّ ﻓَﻠَﺎ ﻛَﺎﺷِﻒَ ﻟَﻪُ ﺇِﻟَّﺎ  ﻫُﻮَ ﻭَﺇِﻥْ ﻳُﺮِﺩْﻙَ ﺑِﺨَﻴْﺮٍ ﻓَﻠَﺎ ﺭَﺍﺩَّ ﻟِﻔَﻀْﻠِﻪِ …  ﴾ ‏( ﻳﻮﻧﺲ 107: ‏)  ‘‘আর আল্লাহ যদি আপনার উপর  কোনো কষ্ট আরোপ করেন  তবে তিনি ছাড়া কেউ  তা খণ্ডাবার  নেই, পক্ষান্তরে যদি তিনি  আপনাকে কিছু কল্যাণ দান  করেন তবে তার  মেহেরবানীকে রহিত করার  মতও কেউ নেই…’’ [81]  এ মর্মের আয়াত কুরআনে অসংখ্য  জায়গায় রয়েছে। আমাদের  নবী ছাড়া অন্যান্য নবী রাসূলেরও এই  শিক্ষাই ছিল বলে কুরআনের বিভিন্ন  জায়গা থেকে আমরা জানতে পারি।  নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  তার বিষয়ে বাড়াবাড়ি করতে সর্বোচ্চ  সতর্ক করেছেন। আল্লাহর সাথে শির্ক  দুরের কথা, তার প্রশংসায় পর্যন্ত  বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেছেন।  সহীহ হাদীসে বর্ণিত রয়েছে, এক  ব্যক্তি নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলল, যা আল্লাহ  চেয়েছেন  এবং আপনি চেয়েছেন, রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বললেন,  ” ﺃﺟﻌﻠﺘﻨﻲ ﻟﻠﻪ ﻋﺪﻻ ﺑﻞ ﻣﺎ ﺷﺎﺀ ﺍﻟﻠﻪ  ﻭﺣﺪﻩ.” ‏( ﻣﺴﻨﺪ ﺃﺣﻤﺪ، ﺣﺪﻳﺚ ﻋﺒﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﺑﻦ  ﻋﺒﺎﺱ، ﺭﻗﻢ 1839: ‏)  ‘‘তুমি কি আমাকে আল্লাহর সমতুল্য  করেছ, বরং যা একমাত্র আল্লাহ  চেয়েছেন’’ [82]  ” ﻭﻳﻠﻚ ﺍﺟﻌﻠﺘﻨﻲ ﻭﺍﻟﻠﻪ ﻋﺪﻻ ﻗﻞ ﻣﺎ ﺷﺎﺀ ﺍﻟﻠﻪ  ﻭﺣﺪﻩ.” ‏( ﺳﻨﻦ ﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻲ ، ﺑﺎﺏ ﺍﻟﻨﻬﻲ ﺃﻥ  ﻳﻘﺎﻝ ﻣﺎﺷﺎﺀ ﺍﻟﻠﻪ ﻭﺷﺎﺀ ﻓﻼﻥ ‏)  ‘‘তোমার ধ্বংস  হউক, তুমি কি আমাকে আল্লাহর  সাথে সমতুল্য  করেছ? তুমি বল, যা শুধুমাত্র  আল্লাহ চেয়েছেন’’ ।[83]  এক হাদীসে নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন,  ” ﻻ ﺗﻄﺮﻭﻧﻲ ﻛﻤﺎ ﺃﻃﺮﺕ ﺍﻟﻨﺼﺎﺭﻯ ﺍﺑﻦ ﻣﺮﻳﻢ  ﻓﺈﻧﻤﺎ ﺃﻧﺎ ﻋﺒﺪﻩ ﻓﻘﻮﻟﻮﺍ ﻋﺒﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﻭﺭﺳﻮﻟﻪ .”  ‏( ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ، ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺘﻔﺴﻴﺮ، ﺑﺎﺏ :  ﻭﺍﺫﻛﺮ ﻓﻲ ﺍﻟﻜﺘﺎﺏ ﻣﺮﻳﻢ … ﺭﻗﻢ 3261: ‏)  ‘‘তোমরা আমার প্রশংসায়  সীমালংঘন করো না  , যেমনটি খৃষ্টানরা মারয়ামের  পুত্র ঈসার ক্ষেত্রে করেছে  , কেননা আমিতো আল্লাহর  বান্দা, তাই তোমরা বল  আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসূল’’ ।  [84]  এভাবে শির্কের আপনোদন করেছেন  নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ।  এবার আমরা রাসূল সাল্লাল্লাহু  ওয়াসাল্লামের শিক্ষা ও ‘খতমে নারী  ’ নামক দো‘আটির বাক্যগুলো নিয়ে একটু  বিবেচনা করি। আশা করি যিনি প্রকৃত সত্য  জানার আগ্রহ রাখেন এবং সত্য প্রকাশিত  হওয়ার পর সাথে সাথে গ্রহণের  মানসিকতা রাখেন তার সামনে এই দো  ‘আর শির্কী শব্দগুলো অতি সহজেই  ধরা পড়বে। আর যার মূল লক্ষ্যই হচ্ছে  , যা করছি আজীবন করেই যাব, আমি টলব  তবে আমার বিশ্বাস টলবে না, তার  সামনে কুরআনের স্পষ্ট আয়াত পেশ  করলেও  একটি না একটি অজুহাতে তিনি তার  মতকে অটুট ও প্রতিষ্ঠিত রাখতে বর্ণিত  দো‘আটি বা কুরআনের আয়াতের বিভিন্ন  ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করবেন। অন্যদের  ভ্রান্তির ক্ষেত্রে তিনি আয়াতের  ব্যাখ্যা রাসূল সাল্লাল্লাহু  ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বাণী ও তাঁর  আমল অথবা সাহাবিদের আমল  দ্বারা করলেও এখানে এসে নিজের  ভ্রান্ত মতকে অটুট রাখতে আহলুস-সুন্নাহ  ওয়াল জামাতের আদর্শে আদর্শবান  আকাবীর আসলাফদের এই  উসূলটি ভুলে যাবেন। হানাফী হলেও আবু  হানিফা রাহ. এর মানহাজ ভুলে যাবেন।  কুরআনের আয়াত দলীল  হিসেবে উপস্থাপনের কারণে সাধারণ  মহিলার কথায় উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর মত  খলীফার নিজ সিদ্ধান্ত  থেকে সরে আসার আদর্শ ভুলে যাবেন।  এখানে এসে রাসূল সাল্লাল্লাহু  ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও তাঁর সাহাবিদের  আদর্শের চেয়ে নিজ পীর বা নিজের  মতের আলেমের কর্মই অগ্রাধিকার  পাবে। যেমনটি রাসূল গাইব জানেন  বা রাসূল হাজির-নাজির এজাতীয়  শির্কী বিশ্বাস পোষণকারীরা তাদের  ভ্রান্ত আক্বীদা প্রতিষ্ঠিত রাখার  বেলায় করে থাকে। যদিও এ সব বিষয়  কুরআনে দ্ব্যর্থহীনভাবে উল্লেখ  করা হয়েছে।  একেই আল্লাহ তা‘আলা প্রবৃত্তি ও  আলেমকে প্রভু বানিয়ে তাদের  পূজা বলে আখ্যা দিয়েছেন। কুরআনের  আয়াত ও হাদীসের আলোকে এজাতীয়  কর্মকে ‘শিরক ফিল ইবাদত’ বা উপাসনাগত  শির্ক বলে আখ্যায়িত করেছেন আহলুস্-  সুন্নাহ ওয়াল-জামাতের আলেমগণ।  আল্লাহ তা‘আলা এরশাদ করেন,  ﴿ ﺃَﻓَﺮَﺃَﻳْﺖَ ﻣَﻦِ ﺍﺗَّﺨَﺬَ ﺇِﻟَﻬَﻪُ ﻫَﻮَﺍﻩُ ﻭَﺃَﺿَﻠَّﻪُ ﺍﻟﻠَّﻪُ  ﻋَﻠَﻰ ﻋِﻠْﻢٍ ﻭَﺧَﺘَﻢَ ﻋَﻠَﻰ ﺳَﻤْﻌِﻪِ ﻭَﻗَﻠْﺒِﻪِ ﻭَﺟَﻌَﻞَ  ﻋَﻠَﻰ ﺑَﺼَﺮِﻩِ ﻏِﺸَﺎﻭَﺓً ﻓَﻤَﻦْ ﻳَﻬْﺪِﻳﻪِ ﻣِﻦْ ﺑَﻌْﺪِ ﺍﻟﻠَّﻪِ  ﺃَﻓَﻠَﺎ ﺗَﺬَﻛَّﺮُﻭﻥَ ﴾ ‏( ﺍﻟﺠﺎﺛﻴﺔ 23: ‏)  ‘‘আপনি কি তাঁর প্রতি লক্ষ্য  করেছেন, যে তার  প্রবৃত্তি তথা মনের খেয়াল  খুশিকে স্বীয় উপাস্য স্থির  করে নিয়েছে। আল্লাহ  জেনেশুনে তাকে পথভ্রষ্ট  করেছেন, তার কানে ও  অন্তরে মোহর এঁটে দিয়েছেন  এবং তার চোখের উপর  রেখেছেন পর্দা। আল্লাহ  ছাড়া কে তাকে হেদায়াত  করবে  ? তোমরা কি চিন্তা ভাবনা  করো না?’’ [85]  অন্যত্র এরশাদ করেন,  ﴿ ﺍﺗَّﺨَﺬُﻭﺍ ﺃَﺣْﺒَﺎﺭَﻫُﻢْ ﻭَﺭُﻫْﺒَﺎﻧَﻬُﻢْ ﺃَﺭْﺑَﺎﺑًﺎ ﻣِﻦْ ﺩُﻭﻥِ  ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻭَﺍﻟْﻤَﺴِﻴﺢَ ﺍﺑْﻦَ ﻣَﺮْﻳَﻢَ ﻭَﻣَﺎ ﺃُﻣِﺮُﻭﺍ ﺇِﻟَّﺎ  ﻟِﻴَﻌْﺒُﺪُﻭﺍ ﺇِﻟَﻬًﺎ ﻭَﺍﺣِﺪًﺍﻟَﺎ ﺇِﻟَﻪَ ﺇِﻟَّﺎ ﻫُﻮَ ﺳُﺒْﺤَﺎﻧَﻪُ ﻋَﻤَّﺎ  ﻳُﺸْﺮِﻛُﻮﻥَ ﴾ ‏( ﺍﻟﺘﻮﺑﺔ 31: ‏)  ‘‘তারা আল্লাহ ব্যতীত তাদের  পণ্ডিত ও সংসার-  বিরাগীদের  এবং মারয়াম তনয়  ঈসাকে তাদের পালনকর্তারূপে গ্রহণ  করেছে, অথচ তাদেরকে নির্দেশ  করা হয়েছিল শুধুমাত্র এক প্রভুর ইবাদত  করতে। একমাত্র তিনি ছাড়া কোনো মা  ‘বুদ নেই। তারা আল্লাহর যে সমস্ত শরীক  সাব্যস্ত  করে তা থেকে তিনি পবিত্র’’ [86] । এই  দুরুদে একমাত্র আল্লাহ করতে পারেন এমন  যাবতীয় সিফাত  বা গুণাবলীতে রাসূলকে শরীক  করা হয়েছে। মাধ্যম হলে রাসূল  সাল্লাল্লাহু  ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে মিডিয়া বা  মাধ্যম হিসেবে আল্লাহর শরীক  করা হয়েছে। তাই মাধ্যম হিসেবে রাসূল  সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর  নাম উল্লেখ করায় শির্কের  মাঝে কোনো তারতম্য সৃষ্টি হবে না।  কুরআনের অসংখ্য আয়াত এবং অগণিত  হাদীস এর প্রমাণ। আল্লাহ আমাদের  সবাইকে  বোঝার তওফিক দান করুন  এবং হেদায়াতের উপর অবিচল রাখুন।  অজুহাত ও তার পর্যালোচনা  একটি দো‘আ বা আরবী বাক্যকে দুরূদ  বলতে উচিত ছিল এটা জানা যে, এই  দুরূদটি নবী সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম পড়তেন কি না  , জীবনে কোনো সাহাবীকে শিক্ষা  দিয়েছিলেন কি না  , অথবা কোনো সাহাবা দুরূদ হিসেবে এই  বাক্যগুলো পড়তেন কি না তা দেখা।  বিপদে আপদে তারা কোনোদিন এই দো  ‘আকে আমলে এনেছেন কি না লক্ষ্য  করা। কোনো সাহাবা থেকে বিশুদ্ধ  সুত্রে এই দুরূদ  পেলে আমরা ধারণা করে নিতাম, নিশ্চয়  নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  তাকে এটি শিক্ষা দিয়েছেন।  কেননা আমরা বিশ্বাস করি যে  , সাহাবায়ে কেরাম ইবাদতের  ক্ষেত্রে নিজ থেকে কিছু বলেন না। এর  কোনোটি না পেলে এই দো‘আ বর্জনের  জন্য আমাদের অন্য কিছু দরকার পড়ে না।  রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  তার উপর পড়ার জন্য আমাদেরকে বিভিন্ন  দুরূদ ফযিলত সহ বর্ণনা করেছেন। রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  শিখানো দুরূদগুলো কি আমাদের জন্য  যথেষ্ট নয়? মূলত যিনি ধর্মীয় বিশ্বাসের  সকল ক্ষেত্রে রাসূলের  শিক্ষাকে যথেষ্ট মনে করেন তার জন্য  আর অন্য দুরূদের প্রয়োজন নেই। অন্য দুরূদ  জায়েয করতে তার মাথা ঘামাবার সময়  নেই। তার কথা হবে, আমার নবী করেন নি  , নবীর হাতেগড়া ছাত্ররা করেন নি  , আমি তা করব না। কিন্তু হুবহু সুন্নাতের  উপর থাকার আসলাফের সেই  জযবা আমাদের থেকে হারিয়ে যাওয়ার  কারণে ইবাদতগত বা বিশ্বাসগত নতুন কিছু  আসলেও আমাদেরকে জায়েয না-  জায়েযের বাহাসে লিপ্ত হতে হয়। আবু  হানিফা রাহ. এর অনুসারী দাবী করলেও  হানিফী মানসিকতা হারিয়ে যাওয়ার  কারণে নতুন আলোচনার প্রয়াস পায়।  বিভিন্ন ওজুহাতে আমরা নব উদ্ভাবিত  আমলকে জায়েয করার চেষ্টা করি।  খতমে না-রীও এর বিপরীত নয়।  বিভিন্ন সময় এই দো‘আটির আপত্তিকর  দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করলে যে  অজুহাতগুলো পেশ  করতে দেখা গেছে শুধু  সেগুলো নিয়ে একটু পর্যালোচনা করার  চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ। আল্লাহর তওফিক  কাম্য।  প্রথমেই যে অজুহাত পেশ করা হয়  তা হলো, আমরা রাসূলকে কেবল মাধ্যম  মনে করি মাত্র। এখানে শির্কের  কোনো প্রশ্নই আসে না।  মাধ্যমে মনে করলেই শির্ক  হতে পারে না একথা কতটুকু  শুদ্ধ, তা আমরা ইতোপূর্বে জানতে  পেরেছি। আমরা অবশ্যই  বুঝতে পেরেছি যে, মাধ্যম মূলতই শির্ক  অথবা শির্কের পথ।  কেননা কারো সমস্যা সমাধান করতে  , দুঃখ দুর্দশা দূর করতে, প্রয়োজন মিটাতে  , বৃষ্টি দিতে আল্লাহ কোনো মিডিয়ার  মুখাপেক্ষী নন। এবার আমাদের দো  ‘আটির বিষয়ে আসা যাক।  মোটকথা কর্মের যোগসূত্র যার সাথেই  রয়েছে সেটিই  মাধ্যম, যে কোনোভাবে এই যোগসূত্র  থাকুক না কেন। যার  সাথে কোনো যোগসূত্র নেই  তাকে মাধ্যম বলা যায় না। উদাহরণস্বরূপ  মনে করুন, আপনি একটি অ্যাক্সিডেন্টের  হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন।  কোনো ব্যক্তি আপনাকে তাঁর হাত  দ্বারা টান দিয়ে রক্ষা করেছে।  আপনি বলতে পারেন, আল্লাহ  আমাকে রক্ষা করেছেন। আবার এও  বলতে পারেন যে, অমুক ব্যক্তির  মাধ্যমে আল্লাহ আমাকে রক্ষা করেছে।  এ দ্বিতীয় বাক্যটির ক্ষেত্রে মুমিন  ব্যক্তির বিশ্বাস হলো, মূলত আল্লাহই  আমাকে রক্ষা করেছেন, অমুক  ব্যক্তি মাধ্যম মাত্র।  এখানে লোকটি বলতে পারে, আল্লাহর  দ্বারা রক্ষা পেয়েছি। আবার এও  বলতে পারে যে, অমুকের  মাধ্যমে আল্লাহ রক্ষা করেছেন ।  এখানে তার কোনো কথাই শির্ক  হবে না। কিন্তু লোকটি যদি বলে, রাসূল  আমাকে রক্ষা করেছেন, অথবা রাসূলের  মাধ্যমে আমি রক্ষা পেয়েছি, তবে তার  উভয় কথাই শির্ক হবে। আহলুস-সুন্নাহ ওয়াল  জামাতের কোনো আলেম এতে সংশয়  বা দ্বিমত পোষণ করবেন না। এই  একটি বিষয়ে রাসূলের মাধ্যম শির্ক  হলে আপনার জীবনের যাবতীয় বিষয়ের  মাধ্যম রাসূলকে বানিয়ে দিলে তা শির্ক  হয় না এ কেমন কথা? এবার আহলুস-সুন্নাহ  ওয়াল জামা‘আতের আলেমগণের  কাছে বিনীত আবেদন যে, আপনারা একটু  চিন্তা করলেই সমাজ  ধীরে ধীরে শির্কমুক্ত হতে থাকবে।  তাই চলে আসা প্রথাকে জায়েয  বানাবার  চেষ্টা না করে সমাজকে শির্কমুক্ত করার  দিকে একটু মনোনিবেশ করুন।  জনৈক বিজ্ঞ আলেমের  সাথে একবার এ  বিষয়ে আলোচনা করলে তিনি আমাকে  বালাগাতের কিতাবে উল্লেখিত  উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি শির্ক নয়  বলে বুঝাবার চেষ্টা করেন।  পরে আরো অনেককে এই উপমা পেশ  করতে দেখেছি।  উপমাটি হচ্ছে, ‘‘ ﺃﻧﺒﺖ ﺍﻟﺮﺑﻴﻊ ﺍﻟﺒﻘﻞ ’’  অর্থাৎ  বসন্ত শষ্য উৎপাদন করেছে।  তারা বলে থাকেন, মুমিন ব্যক্তি এই  বাক্যটি বললে শির্ক হয় না, কারণ  সে এখানে রূপক অর্থ গ্রহণ করে। মুমিনের  বিশ্বাস মূল শষ্য দাতা আল্লাহ।  বসন্তে তা উৎপাদিত হয়। তাই সে বলে  , বসন্ত শষ্য উৎপাদন করেছে।  বস্তুত তাদের এ কথাটি অগ্রহণযোগ্য আর এ  ধরনের উপমাও আল্লাহর  সাথে অসামঞ্জশীল।  কারণ কোনো কাজকে কার্যকারনের  দিকে সম্পর্কযুক্ত করে রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  জীবনে কিংবা সাহাবায়ে কিরাম  থেকে কোনো হাদীস বা আছার  পাওয়া যায় না। বরং এর বিপরীতটিই  পাওয়া যায়, দেখুন সাহাবায়ে কিরাম  বলেন,  ‏«ﻟﻮﻻ ﺍﻟﻜﻠﺐ ﻟﺠﺎﺀﻧﺎ ﺍﻟﻠﺺ ‏»  ‘যদি কুকুর না থাকত তবে চোর আসত’ এ  জাতীয় কথাকে শির্কে (আসগর) এর  অন্তর্ভুক্ত করেছেন। তাই ‘‘ ﺃﻧﺒﺖ ﺍﻟﺮﺑﻴﻊ  ﺍﻟﺒﻘﻞ ’’  অর্থাৎ ‘বসন্ত শষ্য উৎপাদন করেছে’  এটা কোনোভাবেই কোনো মুমিনের  কথা হতে পারে না। কারণ মুমিন  জেনে বুঝে শির্কে আসগরে লিপ্ত  হতে পারে না।  এখন বলতে পারেন তাহলে এ  কথাটি কোত্থেকে আসল? বস্তুত  তা জানার জন্য আমাদেরকে তথাকথিত  বালাগত বিদ্যার প্রবর্তকদের মন-  মানষিকতা, আকীদা মাযহাব  দেখতে হবে। তাদের অনেকেই  মু‘তাযিলা, আশ‘আরিয়্যা ও  মাতুরিদিয়া মাযহাবের লোক থাকার  কারণে তাদের গ্রন্থে সেটার অনুরনন  দেখতে পাওয়া যায়। তারা মাজায  বা রূপক বলে অনেক শির্ককে বালাগাত  বানালেও সত্যনিষ্ঠ আলেমগণ এ জাতীয়  কথাকে কখনও স্বীকৃতি দেন না। তাই এ  জাতীয় কথা কোনো মুমিন  বলতে পারে না।  এ তো গেল বাস্তব কার্যকারণের  দিকে সম্পর্কযুক্ত করে বলার মাসআলা।  বাস্তব কার্যকারণের দিকে সম্পর্কযুক্ত  করে কোনো কথা বলা যদি শির্কে  আসগার হয়, তবে যেখানে বাস্তব  কোনো কার্যকারণ নেই  সেখানে সেদিকে সম্পর্কযু্ক্ত  করা নিঃসন্দেহে শির্কে আকবারে  পরিণত হবে। যেমন, কেউ যদি বলে ‘‘রাসূল  শষ্য উৎপাদন করেছেন বা রাসূল ধান  দেন’’ অথবা ‘‘রাসূলের মাধ্যমে শষ্য  উৎপাদন হয় বা রাসূলের মাধ্যমে ধান  হয়’’ এর কোনটি বলার কোনো সুযোগ  নেই, কারণ তা শির্কে আকবার হবে।  আশা করি, আশেকে রাসূল  নামে রাসূলকে আল্লাহর সাথে বিভিন্ন  গুণাবলীতে সমতুল্যকারী ছাড়া সবাই এ  ধরণের কথাটির মারাত্মক  পরিণতি সম্পর্কে জানতে পারলেন। এবার  আপনি নিজেই খতমে না-রীর  ব্যাপারে ফায়সালা দিন।  এখন উপরোক্ত অজুহাতটির  অসারতা নিশ্চয় বুঝতে পেরেছি। তবে এই  অজুহাতটি যারা ব্যাকরণ বা ভাষার জ্ঞান  রাখেন তারা পেশ করেন। আর যাদের  ব্যাকরণের গভীরতা নেই তাদের  সামনে এই অভিযোগ  তুলে ধরলে তারা প্রথমে অন্য অজুহাত  পেশ করেন।  সেটি না টিকলে পরবর্তীতে আবার  ঘুরিয়ে পেচিয়ে কথা বলেন। প্রশ্ন হলো  , প্রথমে যখন নিজে শির্ক  মেনে নিয়ে অন্য অজুহাত দেখালেন  তবে সেই অজুহাত না টিকলে আবার পূর্ব  কথাকে ব্যখ্যার মাধ্যমে টিকানোর  চেষ্টার কী প্রয়োজন।  অন্য অজুহাতের মধ্যে যেমন, একদিন  জনৈক আলেমের  সাথে আলোচনা করলে তিনি বলেন  এখানে,  ‘‘ ﺑﻪ’’ শব্দের ‘‘ ﻩ ’’ সর্বনামটি ‘‘ ﺻﻼﺓ ’’ শব্দের  দিকে প্রত্যাবর্তিত। অতএব রাসূলের  ওসিলায় নয় বরং এই দুরুদের ওসিলায়। কিন্তু  তিনি এটি লক্ষ্য করেন নি যে,  ‘‘ ﺻﻼﺓ ’’ শব্দের দিকে সর্বনাম  প্রত্যাবর্তিত হলে এখানে পুংলিঙ্গের  সর্বনাম ‘‘ ﻩ ’’ ব্যবহার  না হয়ে স্ত্রীলিঙ্গের সর্বনাম ‘‘ ﻫﺎ ’’ হত।  আরেকদিন এ বিষয়ে এক  সেমিনারে আলোচনায় এখানে সর্বনাম  ‘সালাত’ শব্দের দিকে নেয়ার সুযোগ  নেই বললে একজন  বলে উঠলেন ‘‘ ﺻﻼﺓ’’ শব্দটি মাসদার। আর  আরবী ব্যকরণ অনুযায়ী মাসদারের  দিকে যে কোনো সর্বনাম ব্যবহার  করা যায়, কেননা মাসদার পুংলিঙ্গও নয়  আবার স্ত্রীলিঙ্গও নয়। একথা শুনে অত্যন্ত  অবাক লাগল। নিজের মতকে অটুট  রাখতে কোনদিকে খেয়াল  না করে যারা কথা বলেন,  তাদের কথায়  যেমন হাসি পায় তেমনি তারা এ ধরণের  কথা বলে নিজের আস্থা নষ্ট করেন।  আরবী ভাষায় উনার জ্ঞানের  পরিধি সম্পর্কে প্রশ্ন এসে যায়। কেননা  , প্রথমত: এখানে ‘‘ ﺻﻼﺓ ’’ স্ত্রীলিঙ্গ  ধরেই ‘‘ ﻛﺎﻣﻠﺔ’’ শব্দ স্ত্রীলিঙ্গ ব্যবহার  করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত: ‘‘ ﻣﺤﻤﺪ ’’ শব্দের  পরেই ‘‘ ﺍﻟﺬﻱ’’ ইসমে মাউসুল  নিয়ে আসা হয়েছে।  জানা কথা ইসমে মাউসুলের পরে বাক্য  থাকা এবং তার মধ্যে একটি সর্বনাম  থাকা জরুরী যা মাউসুলের  দিকে প্রত্যাবর্তিত হয়।  সুতরাং এখানে ‘‘ ﻩ’’ কে ‘‘ ﺍﻟﺬﻱ’’ এর  দিকে না নিয়ে অন্য দিকে নেয়ার  কথা বলা কতটুকু গাফলতির পরিচয় একটু  ভেবে দেখুন। তৃতীয়ত: দো‘আটির  শেষদিকে রয়েছে ‘‘ ﺑﻮﺟﻬﻪ ’’ তার  চেহারা বা তার স্বত্বার মাধ্যমে। অতএব  সর্বনামকে মুহাম্মদ  ছাড়া অন্যদিকে নেওয়ার কোনো সুযোগ  নেই। সুযোগ থাকাবস্থায় বক্তার  কথা থেকে তার উদ্দেশ্যের বিপরীত  অর্থ নেওয়াকে আরবী প্রবচনে বলা হয়,  ‘‘ ﺗﻮﺟﻴﻪ ﺍﻟﻘﻮﻝ ﺑﻤﺎ ﻻ ﻳﺮﺿﻰ ﺑﻪ ﺍﻟﻘﺎﺋﻞ ’’ অর্থাৎ  বক্তার কথার এমন  ব্যাখ্যা দেওয়া যা বক্তার নিজের  উদ্দেশ্য নয়। আর যেখানে কোনো সুযোগ  নেই সেখানে এমনটি নেওয়া কতটুকু  অবান্তর ও হঠকারিতা একটু  ভেবে দেখেছি কি?  এবার ধরে নিন কেউ উপরোক্ত  দুরূদটিকে সমান্য পরিবর্তন  করে সর্বনামগুলো দুরুদের  দিকে প্রত্যাবর্তন করে নতুন একটি দুরূদ  বানাল। যার মর্ম হল যেমন, ‘‘যে দুরুদের  মাধ্যমে সব সমস্যা সমাধান হয় …..’’ । রাসূল স  াল্লাল্লাহু আল্লাইহি ওয়াসাল্লামের  শিক্ষা বা বলে দেওয়া ছাড়া কারো  এধরণের কোনো কথা বলে বৈধ কি  ? বিভিন্ন দুরূদ  এবং তাতে কী লাভ, কী ফযিলত, কী  উপকার সবই আমাদের  নবী আমাদেরকে বলে গেছেন।  ওহি ছাড়া এর বাইরে কিছু বলা বৈধ কি  ? ওহির  বিষয়ে ওহি ছাড়া যুক্তি দিয়ে কিছু বলার  নামইতো ভ্রষ্টতা বা গোমরাহী। মানুষের  জ্ঞান যেখানে শেষ সেখান  থেকে ওহীর সুচনা। ওহীর  বিষয়ে যুক্তি দিয়ে বলার কারণেই  বিভিন্ন বাতিল দল উপদলের জন্ম। এসব  জানা থাকা সত্বেও ওহির  মুখাপেক্ষী বিষয়ে আমরা কী-  ভাবে দখল দিতে পারি। এটি কি আল্লাহ  ও তার রাসূলের উপর মিথ্যাচার নয়?  আরেকটি অজুহাত কেউ কেউ পেশ  করেন যে, আমাদের বিশ্বাস তো সবকিছু  আল্লাহ করেন। রাসূল করেন বা মাধ্যম হন  বলে আমাদের আক্বীদা নয়।  তবে এটি শির্ক কী-ভাবে হয়? আর  বেশিরভাগ লোক অর্থ না জেনেই  পড়েন। আলহামদুলিল্লাহ, এই বিশ্বাস  বলেইতো এই দুরূদ পড়লেই  আপনাকে কাফের বা মুশরিক  বলা হচ্ছে না। আপনার বিশ্বাস এই দুরুদের  মর্মানূযায়ী হলে তো আপনি মুশরিক  হয়ে যেতেন।  বলা হচ্ছে এখানে শির্কী কথাবার্তা  রয়েছে। শিরকী আক্বীদা পোষণ  ছাড়া শির্কী কথাবার্তা বলার হুকুম  কী প্রশ্নটি আপনাদের কাছে রেখেই  ইতি টানছি।  পরিশেষে আরেকটি কথা এই যে  , অনেককেই বলতে শুনা যায়, খতমের  বিপক্ষে এ সব কথা বলে আমাদের  পেটে লাথি মারবেন না। আফসোস!!  আপনি জাতির একজন কর্ণধার। আপনার মুখ  থেকে এমন কথা বের  হলে ঘুষখোর, সুদখোরের সামনে ঘুষ সুদের  বয়ান করলে সে যখন  বলে উঠে হুজুর, আমাদের  পেটে লাথি মারবেন না। তার কথায় আর  আপনার কথায় বেশ কম কী? সবার রিযকের  মালিক আল্লাহ। যে ব্যক্তি যে পথ  অবলম্বন করে আল্লাহ তার জন্য সেই  পথকেই সহজ করে দেন বলে আপনার আমার  পূর্ণ বিশ্বাস। হালালের উপর  থাকতে বদ্ধপরিকর হলে আল্লাহ আপনার  আমার রিযকের ব্যবস্থা হালালের  মধ্যে থেকেই করবেন বলে আমরা পূর্ণ  আস্থাশীল ইনশা আল্লাহ। এর বিপরীত  বিশ্বাসের পরিণাম কী তা আপনার আমার  সবারই নিশ্চয় জানা আছে। আল্লাহ  আমাদের সবাইকে বুঝা এবং হালালের  উপর থাকার তওফিক দান করুন। আমীন। [68] আহলুস-সুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের  আলেমগণ ঈসালে ছওয়াবের বেলায় দুই  ভাগে বিভক্ত। একদল কুরআনের আয়াত,‘‘ ﻭَﺃَﻥْ  ﻟَﻴْﺲَ ﻟِﻠْﺈِﻧْﺴَﺎﻥِ ﺇِﻟَّﺎ ﻣَﺎ ﺳَﻌَﻰ ’’ অর্থাৎ: আর মানুষের  জন্য তার চেষ্টা ব্যতীত কোনো কিছু  নেই, (সূরা নাজম:৩৯) এই মর্মের আয়াত  এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদীস,  ” ﺇﺫﺍ ﻣﺎﺕ ﺍﻹﻧﺴﺎﻥ ﺍﻧﻘﻄﻊ ﻋﻤﻠﻪ ﺇﻻ ﻣﻦ ﺛﻼﺙ ﺻﺪﻗﺔ ﺟﺎﺭﻳﺔ  ﻭﻋﻠﻢ ﻳﻨﺘﻔﻊ ﺑﻪ ﻭﻭﻟﺪ ﺻﺎﻟﺢ ﻳﺪﻋﻮ ﻟﻪ”  ‘‘মানুষ যখন মারা যায় তখন তাঁর তিনটি আমল  ব্যতীত সব আমল বন্ধ হয়ে যায়।  সাদাকায়ে জারিয়াহ, যে ইলম  দ্বারা মানুষ উপকৃত হয় এবং নেক সন্তান  যে তার জন্য দু‘আ করে।’’ (তিরমিযী  , হাদীস সহীহ, ওয়াক্বফ  অনুচ্ছেদ, নং:১৩৭৬) এই হাদীসের  আলোকে তারা বলেন:  হাদীসে উল্লেখিত তিন বস্তু ব্যতীত  অন্য কিছুর ঈসাল হয় না। কেননা  ; হাদীসে তিন বস্তু ছাড়া সব আ‘মাল বন্ধ  হয়ে যাওয়ার কথা এসেছে। আর এ  তিনটি মূলত তার নিজের চেষ্টার ফসল।  সুতরাং এই হাদীস আর  আয়াতে কোনো বিরোধ নেই।  তবে সাদাকা যেহেতু শারীরিক ইবাদত  নয়, জীবিত  ব্যক্তিকে তা দেওয়া যায়, তার পক্ষ  থেকে অন্যকে দেওয়া যায়, মৃত্যুর পরও  তার পক্ষ থেকে দেওয়া যাবে। কিন্তু  শারীরিক ইবাদত কাউকে দেওয়া যায়  না তাই তার ঈসাল ও নেই।  তবে শারীরিক কিছু ইবাদত যার ঈসাল  হাদীস দ্বারা প্রমাণিত সেগুলো মানসুস  হওয়ার কারণে তা এই  কায়দা থেকে মুসতাসনা বা ব্যতিক্রম  থাকবে। এই দল আলেমদের মতে কুরআন  তেলাওয়াত যেহেতু একটি শারীরিক  ইবাদত তাই তার ঈসালই হবে না  , কেননা এব্যাপারে কোনো নস নেই।  আর ইবাদতে বিষয় গাইরে মা‘কুল, তাই  আমরা তাকে অন্য ইবাদতের উপর ক্বিয়াস  করতে পারি না। আহলুস-সুন্নাহ ওয়াল  জামাতের অপরদল  মনে করেন, যে কোনো ইবাদতের ঈসাল  হতে পারে। আমাদের লেখক এমতের  প্রবক্তা হিসেবে কুরআন তেলাওয়াতের  ঈসালের সঠিক পদ্ধতির কথা উল্লেখ  করেছেন।  [69] সূরা আম্বিয়া, আয়াত: ৮৭-৮৮।  [70] তিরমিযী, সুনান, হাদীস সহীহ, রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  দু‘আ অধ্যায়, ৮২ নং অনুচ্ছেদ, হাদীস নং:  ৩৫০৫, আলবানী, তিরমিযির সহীহ ও  দয়ীফ, ৮/৫, মুসনাদে আহমদ, সা‘দ ইবন  আবী ওয়াক্বাসের হাদীস, নং:১৪৬২।  [71] নেয়ামুল কুরআন, মৌলবী শামছুল হুদা  , রহমানিয়া লাইব্রেরী, একাদশ  সংস্করণ, পৃষ্ঠা: ১২০।  [72] আবু দাঊদ, সুনান, ইলম অধ্যায়, ইলম  প্রচারের মর্যাদা পরিচ্ছেদ, নং:  ৩৬৬২, তিরমিযী, সুনান, অধ্যায়: রাসূল  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  থেকে বর্ণিত ইলম, পরিচ্ছেদ: শ্রবণকৃত  প্রচারের উৎসাহ, নং:৩৬৫৬, হাদীস সহীহ।  [73] বিশিষ্ট মুফাসসির তাবিয়ী মুজাহিদ  ইবন জাবর আবুল হাজ্জাজ মক্কী, ২১-১০৪  হিজরী। ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু  ‘আনহুমা থেকে তাফসীর শিক্ষা লাভ  করতেন। (আল-আ‘লাম: ৫/২৭৮)  [74] সহীহ মুসলিম, মুকাদ্দিমাহ, দুর্বলদের  থেকে বর্ণনা গ্রহণ করা নিষেধ  অনুচ্ছেদ, ১/১০।  [75] সহীহ মুসলিম, প্রাগুক্ত।  [76] সহীহ মুসলিম, মুকাদ্দিমাহ, যা কিছু  শুনবে তার সব  বর্ণনা থেকে নিষেধাজ্ঞা অনুচ্ছেদ, ১/  ৮।  [77] ইবনু হাজার, ফাতহুল বারী, ১০  নং অনুচ্ছেদ জামে‘ এর হাদীসের সংখ্যা  , ১/৪৬৫।  [78] বিস্তারিত দেখুন, শায়খ আব্দুল্লাহ  মুহসিন, আল ইমাম বুখারী ও কিতাবুহু আল-  জামি‘উস সহীহ।  [79] সূরা আয-যুমার:৩  [80] সূরা আ‘রাফ : ১৮৮।  [81] সূরা ইউনুস:১০৭।  [82] মুসনাদে আহমদ, আব্দুল্লাহ  ইবনে আব্বাস রা. এর হাদীস, নং: ১৮৩৯।  [83] নাসাঈ, সুনান, হাদীস সহীহ, আল্লাহ  এবং অমুক চেয়েছেন বলা নিষেধ  অনুচ্ছেদ, নং:১০৮২৪।  [84] সহীহুল বুখারী, তাফসীর  অধ্যায়, অনুচ্ছেদ: কিতাবে মারয়ামের  কথা স্মরণ কর…, নং: ৩২৬১।  [85] সূরা আল-জাসিয়াহ: ২৩।  [86] সূরা তাওবা:৩১।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s