Gallery

ক্বুরআন মাজিদের কিছু কথা -যা আমাদের সসবসময় মনে রাখা উচিত!


1. অতঃপর বলেছিঃ তোমরা তোমাদের
পালনকর্তার ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি
অত্যন্ত ক্ষমাশীল।[Nuh:10]
2. যে কষ্ট স্বীকার করে, সে তো নিজের
জন্যেই কষ্ট স্বীকার করে। আল্লাহ
বিশ্ববাসী থেকে বে-পরওয়া।[Ankabut:7]
3. “Verily! Allah will not change the condition of a
people until they change that which is in their
hearts.”[The Quran 13:11 (Surah ar-Ra’ad)]
4. যে কেউ সৎপথে চলে, তারা নিজের মঙ্গলের
জন্যেই সৎ পথে চলে। আর যে পথভ্রষ্ট হয়,
তারা নিজের অমঙ্গলের জন্যেই পথ ভ্রষ্ট হয়।
কেউ অপরের বোঝা বহন করবে না। কোন
রাসূল না পাঠানো পর্যন্ত আমি কাউকেই
শাস্তি দান করি না।[al Isra(bani Israel):15]
5. নিশ্চয় আল্লাহ ইনছাফকারীদেরকে পছন্দ
করেন।[The Quran 49:09 (Surah al-Hujurat)]
6. যখন মানুষকে দুঃখ-কষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে
একাগ্রচিত্তে তার পালনকর্তাকে ডাকে,
অতঃপর তিনি যখন তাকে নেয়ামত দান
করেন, তখন সে কষ্টের কথা বিস্মৃত হয়ে যায়,
যার জন্যে পূর্বে ডেকেছিল এবং আল্লাহর
সমকক্ষ স্থির করে; যাতে করে অপরকে
আল্লাহর পথ থেকে বিভ্রান্ত করে। বলুন, তুমি
তোমার কুফর সহকারে কিছুকাল
জীবনোপভোগ করে নাও। নিশ্চয় তুমি
জাহান্নামীদের অন্তর্ভূক্ত।[The Quran 39:08
(Surah az-Zumar)]
7. আমরা একমাত্র তোমারই ইবাদত করি এবং
শুধুমাত্র তোমারই সাহায্য প্রার্থনা করি।
[Sura fatiha:05]
8. হে আমাদের পালনকর্তা! সরল পথ প্রদর্শনের
পর তুমি আমাদের অন্তরকে সত্যলংঘনে
প্রবৃত্ত করোনা এবং তোমার নিকট থেকে
আমাদিগকে অনুগ্রহ দান কর। তুমিই সব কিছুর
দাতা।[The Quran 03:08 (Surah al-Imran) ]
9. আপনি আপনার প্রতি প্রত্যাদিষ্ট কিতাব
পাঠ করুন এবং নামায কায়েম করুন। নিশ্চয়
নামায অশ্লীল ও গর্হিত কার্য থেকে বিরত
রাখে। আল্লাহর স্মরণ সর্বশ্রেষ্ঠ। আল্লাহ
জানেন তোমরা যা কর।[The Quran 29:45
(Surah al-Ankabut)]
10. আমার কার্যসাধন তো আল্লাহরই সাহায্যে,
আমি তাঁরই উপর নির্ভর করি এবং তাঁরই
অভিমুখী [The Quran 11:88 (Surah Hud)]
11. কেউ জানে না তার জন্যে কৃতকর্মের কি কি
নয়ন-প্রীতিকর প্রতিদান লুক্কায়িত আছে।
[The Quran 32:17 (Surah as-Sajdah) ]
12. তোমরা জেনে রাখ, পার্থিব জীবন ক্রীড়া-
কৌতুক, সাজ-সজ্জা, পারস্পরিক অহমিকা
এবং ধন ও জনের প্রাচুর্য ব্যতীত আর কিছু নয়,
যেমন এক বৃষ্টির অবস্থা, যার সবুজ ফসল
কৃষকদেরকে চমৎকৃত করে, এরপর তা শুকিয়ে
যায়, ফলে তুমি তাকে পীতবর্ণ দেখতে পাও,
এরপর তা খড়কুটা হয়ে যায়। আর পরকালে
আছে কঠিন শাস্তি এবং আল্লাহর ক্ষমা ও
সন্তুষ্টি। পার্থিব জীবন প্রতারণার উপকরণ
বৈ কিছু নয়। [The Quran 57:20 (Surah al-
Hadid) ]
13. মন্দের জওয়াবে তাই বলুন, যা উত্তম। তারা
যা বলে, আমি সে বিষয়ে সবিশেষ অবগত।[The
Quran 23:96 (Surah al-Mu’minun)]
14. হে আমার পালনকর্তা! আপনাকে ডেকে আমি
কখনও বিফলমনোরথ হইনি।[The Quran 19:04
(Surah Maryam)]
15. আর আল্লাহ যাকে পথপ্রদর্শন করেন, তাকে
পথভ্রষ্টকারী কেউ নেই।[The Quran 39:37
(Surah az-Zumar)]
16. অতএব, তোমরা কোথায় যাচ্ছ? এটা তো
কেবল বিশ্বাবাসীদের জন্যে উপদেশ, তার
জন্যে, যে তোমাদের মধ্যে সোজা চলতে
চায়। তোমরা আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের
অভিপ্রায়ের বাইরে অন্য কিছুই ইচ্ছা করতে
পার না। [The Quran 81:26-29 (Surah at-Takwir)]
17. আমার বান্দাদেরকে বলে দিন, তারা যেন যা
উত্তম এমন কথাই বলে। [The Quran 17:53 (Surah
al-Isra) ]
18. এবং মানুষ তাই পায়, যা সে করে[The Quran
53:39 (Surah an-Najm)]
19. সৎকর্ম ও খোদাভীতিতে একে অন্যের
সাহায্য কর। পাপ ও সীমালঙ্ঘনের ব্যাপারে
একে অন্যের সহায়তা করো না। আল্লাহকে
ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলা কঠোর
শাস্তিদাতা।[The Quran 05:02 (Surah al-
Ma’idah)]
20. তারা ষড়যন্ত্র করে এবং আল্লাহও (তাদের
ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে) ষড়যন্ত্র করেন; আর
আল্লাহ সর্বশ্রেষ্ঠ কৌশলী। [The Quran 08:30
(Surah al-Anfal) ]
21. নিঃসন্দেহে আল্লাহ তাদের গোপন ও
প্রকাশ্য যাবতীয় বিষয়ে অবগত।[The Quran
16:23 (Surah an-Nahl)]
22. আর অভিভাবক হিসাবে আল্লাহই যথেষ্ট
এবং সাহায্যকারী হিসাবেও আল্লাহই
যথেষ্ট।[The Quran 04:45 (Surah an-Nisa)]
23. প্রত্যেক কর্মের পরিণাম আল্লাহর
এখতিয়ারভূক্ত।[The Quran 22:41 (Surah al-Haj)]
24. মানুষের হিসাব-কিতাবের সময় নিকটবর্তী;
অথচ তারা বেখবর হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।
[Al Quran 21:01 (Surah al-Anbiya)]
25. আর তোমরা নিরাশ হয়ো না এবং দুঃখ
করো না। যদি তোমরা মুমিন হও তবে,
তোমরাই জয়ী হবে।[The Quran 03:139 (Surah
al-Imran)]
26. মুমিনগণ! যদি কোন পাপাচারী ব্যক্তি
তোমাদের কাছে কোন সংবাদ আনয়ন করে,
তবে তোমরা পরীক্ষা করে দেখবে, যাতে
অজ্ঞতাবশতঃ তোমরা কোন সম্প্রদায়ের
ক্ষতিসাধনে প্রবৃত্ত না হও এবং পরে
নিজেদের কৃতকর্মের জন্যে অনুতপ্ত না হও।
(Sura Hujurat:6)
27. আল্লাহ বলেন,”আর যখন তোমাদের সালাম
করা হয়, তখন তোমরাও তা অপেক্ষা উত্তম
উত্তর দিবে অথবা কমপক্ষে তার সমপরিমান
দিবে, নিশ্চয় আল্লাহ সর্ব বিষয়ে হিসাব
গ্রহণ কারী।” (সূরা নিসাঃ আয়াত:86)
28. নিশ্চয় আল্লাহর কাছে সে-ই সর্বাধিক
সম্ভ্রান্ত যে সর্বাধিক পরহেযগার। নিশ্চয়
আল্লাহ সর্বজ্ঞ, সবকিছুর খবর রাখেন।[The
Quran 49:13 (Surah al-Hujurat) ]
29. আর আল্লাহর নির্দেশকে হাস্যকর বিষয়ে
পরিণত করো না। [Surah Baqarah:231]
30. আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের
দ্বীনকে পূর্নাঙ্গ করে দিলাম, তোমাদের
প্রতি আমার অবদান সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং
ইসলামকে তোমাদের জন্যে দ্বীন হিসেবে
পছন্দ করলাম।[(আল মায়েদা: ৩)]
31. কেউ ইসলাম ব্যতীত অন্য কোন দীন গ্রহণ
করতে চাইলে তা কখনও গ্রহণ করা হবে না
এবং সে হবে আখেরাতে ক্ষতিগ্রস্তদের
অন্তর্ভুক্ত।” – (সূরা আল ইমরান: ৮৫)
32. “নিঃসন্দেহে আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্য
দ্বীন একমাত্র ইসলাম” — (সূরা আল ইমরান: ১৯)
Inspiring Ayats :
1. তোমরা আমাকে ডাক, আমি সাড়া দেব।
[Sura Gafir 40:60]
“নিঃসন্দেহে আল্লাহ তা’আলার নিকট
নিকৃষ্টতম বিচরনশীল জীব হচ্ছে বধির, বোবা,
যারা উপলদ্ধি করে না।” [সুরা আনফাল ৮:২২]
হাদীস আল্লাহর ওহী
1. যেমন, আমি পাঠিয়েছি তোমাদেরই মধ্য
থেকে তোমাদের জন্যে একজন রসূল, যিনি
তোমাদের নিকট আমার বাণীসমুহ পাঠ
করবেন এবং তোমাদের পবিত্র করবেন; আর
তোমাদের শিক্ষা দেবেন কিতাব ও তাঁর
তত্ত্বজ্ঞান এবং শিক্ষা দেবেন এমন বিষয়
যা কখনো তোমরা জানতে না। [সুরা
বাকারাঃ ১৫১]
2. আল্লাহ আপনার প্রতি ঐশী গ্রন্থ ( কুরআন) ও
প্রজ্ঞা (সুন্নাহ) অবতীর্ণ করেছেন [An Nisa :
113]
3. তিনিই নিরক্ষরদের মধ্য থেকে একজন রসূল
প্রেরণ করেছেন, যিনি তাদের কাছে পাঠ
করেন তার আয়াতসমূহ, তাদেরকে পবিত্র
করেন এবং শিক্ষা দেন কিতাব ও হিকমত ।
[Sura-Jumu’ah:2]
4. এবং তিনি (মুহাম্মদ সাঃ) প্রবৃত্তির
তাড়নায় কথা বলেন না। ‘(আন নাজম: ৩)
5. “জিবরীল রাসুলুল্লাহ (সাঃ)-এর কাছে সুন্নাহ
নিয়ে আসতেন, যেভাবে তিনি রাসুলুল্লাহ
(সাঃ)-এর কাছে কুরআন নিয়ে
আসতেন।”[দারেমী ৫৮৮, তিনি এটাকে সহীহ
বলেছেন]
সুন্নাহর কতৃত্ব ও মর্যাদা
1. ‘বলুন, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালবাস,
তাহলে আমাকে অনুসরণ কর , যাতে আল্লাহ
ও তোমাদিগকে ভালবাসেন এবং
তোমাদিগকে তোমাদের পাপ মার্জনা
করে দেন। আর আল্লাহ হলেন ক্ষমাকারী
দয়ালু। বলুন, আল্লাহ ও রসূলের আনুগত্য
প্রকাশ কর । বস্তুতঃ যদি তারা বিমুখতা
অবলম্বন করে, তাহলে আল্লাহ
কাফেরদিগকে ভালবাসেন না।‘(আল ইমরান:
৩১-৩২).
2. ‘প্রেরণ করেছিলাম তাদেরকে নিদর্শনাবলী
ও অবতীর্ণ গ্রন্থসহ এবং আপনার কাছে আমি
স্মরণিকা অবতীর্ণ করেছি, যাতে আপনি
লোকদের সামনে ঐসব বিষয় বিবৃত করেন, যে
গুলো তাদের প্রতি নাযিল করা হয়েছে,
যাতে তারা চিন্তা-ভাবনা করে।’. [আন নাহল.
৪৪]
3. ‘মুমিনগণ! তোমরা নবীর কন্ঠস্বরের উপর
তোমাদের কন্ঠস্বর উঁচু করো না এবং
তোমরা একে অপরের সাথে যেরূপ উঁচুস্বরে
কথা বল, তাঁর সাথে সেরূপ উঁচুস্বরে কথা
বলো না। এতে তোমাদের কর্ম নিস্ফল
হয়ে যাবে এবং তোমরা টেরও পাবে না’।
(সুরা হুজুরাত:২)
4. এগুলো আল্লাহর নির্ধারিত সীমা। যে কেউ
আল্লাহ ও রসূলের আদেশমত চলে , তিনি
তাকে জান্নাত সমূহে প্রবেশ করাবেন,
যেগুলোর তলদেশ দিয়ে স্রোতস্বিনী
প্রবাহিত হবে। তারা সেখানে চিরকাল
থাকবে। এ হল বিরাট সাফল্য। [আন নিসা: ১৩]
5. হে ঈমানদারগণ! আল্লাহর নির্দেশ মান্য
কর, নির্দেশ মান্য কর রসূলের এবং
তোমাদের মধ্যে যারা বিচারক তাদের।
তারপর যদি তোমরা কোন বিষয়ে বিবাদে
প্রবৃত্ত হয়ে পড়, তাহলে তা আল্লাহ ও তাঁর
রসূলের প্রতি প্রত্যর্পণ কর- যদি তোমরা
আল্লাহ ও কেয়ামত দিবসের উপর বিশ্বাসী
হয়ে থাক । আর এটাই কল্যাণকর এবং
পরিণতির দিক দিয়ে উত্তম।. [আন নিসা:৫৯]
6. যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে
এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের
জন্যে রসূলুল্লাহর মধ্যে উত্তম নমুনা
রয়েছে।. [আল আহযাব:২১]
7. অতএব, তোমার পালনকর্তার কসম, সে লোক
ঈমানদার হবে না, যতক্ষণ না তাদের মধ্যে
সৃষ্ট বিবাদের ব্যাপারে তোমাকে
ন্যায়বিচারক বলে মনে না করে। অতঃপর
তোমার মীমাংসার ব্যাপারে নিজের মনে
কোন রকম সংকীর্ণতা পাবে না এবং তা
হূষ্টচিত্তে কবুল করে নেবে।. [আন নিসা:৬৫]
8. আর যে কেউ আল্লাহর হুকুম এবং তাঁর
রসূলের হুকুম মান্য করবে, তাহলে যাঁদের
প্রতি আল্লাহ নেয়ামত দান করেছেন, সে
তাঁদের সঙ্গী হবে। তাঁরা হলেন নবী,
ছিদ্দীক, শহীদ ও সৎকর্মশীল ব্যক্তিবর্গ। আর
তাদের সান্নিধ্যই হল উত্তম।! [আন নিসা :৬৯]
9. বলুনঃ আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রসূলের
আনুগত্য কর । অতঃপর যদি তোমরা মুখ
ফিরিয়ে নাও, তবে তার উপর ন্যস্ত
দায়িত্বের জন্যে সে দায়ী এবং তোমাদের
উপর ন্যস্ত দায়িত্বের জন্যে তোমরা দায়ী।
তোমরা যদি তাঁর আনুগত্য কর, তবে সৎ পথ
পাবে। রসূলের দায়িত্ব তো কেবল
সুস্পষ্টরূপে পৌছে দেয়া।. [আন নুর :৫৪]
10. হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর,
রসূলের (সাঃ) আনুগত্য কর এবং নিজেদের
কর্ম বিনষ্ট করো না। [সুরা মুহাম্মদ : ৩৩]
11. আল্লাহ জনপদবাসীদের কাছ থেকে তাঁর
রসূলকে যা দিয়েছেন, তা আল্লাহর, রসূলের,
তাঁর আত্নীয়-স্বজনের, ইয়াতীমদের,
অভাবগ্রস্তদের এবং মুসাফিরদের জন্যে,
যাতে ধনৈশ্বর্য্য কেবল তোমাদের
বিত্তশালীদের মধ্যেই পুঞ্জীভূত না হয়।
রাসূল তোমাদেরকে যা দেন, তা গ্রহণ কর
এবং যা নিষেধ করেন, তা থেকে বিরত
থাক এবং আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয়
আল্লাহ কঠোর শাস্তিদাতা । [সুরা আল
হাশর :৭]
12. রাসূলের আহবানকে তোমরা তোমাদের
একে অপরকে আহ্বানের মত গণ্য করো না।
আল্লাহ তাদেরকে জানেন, যারা তোমাদের
মধ্যে চুপিসারে সরে পড়ে। অতএব যারা তাঁর
আদেশের বিরুদ্ধাচরণ করে, তারা এ বিষয়ে
সতর্ক হোক যে, বিপর্যয় তাদেরকে স্পর্শ
করবে অথবা যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি তাদেরকে
গ্রাস করবে। [আন নুর :৬৩]
13. তোমরা আল্লাহর অনুগত হও, রসূলের অনুগত
হও এবং আত্মরক্ষা কর। কিন্তু যদি তোমরা
বিমুখ হও, তবে জেনে রাখ, আমার রসূলের
দায়িত্ব প্রকাশ্য প্রচার বৈ অন্য কিছু নয়।
[আল মায়েদা :৯২]
14. যে লোক রসূলের হুকুম মান্য করবে সে
আল্লাহরই হুকুম মান্য করল। আর যে লোক
বিমুখতা অবলম্বন করল, আমি আপনাকে (হে
মুহাম্মদ), তাদের জন্য রক্ষণাবেক্ষণকারী
নিযুক্ত করে পাঠাইনি।[4:80]
দোয়া সম্পর্কীত আয়াতঃ
1. আল্লাহই আমার জন্য যথেষ্ট, তিনি ব্যতীত
আর কারো বন্দেগী নেই। আমি তাঁরই
ভরসা করি এবং তিনিই মহান আরশের
অধিপতি।[The Quran 09:129 (Surah at-
Tawbah)]

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s