37. সুরাহ আল সফফাত(01-182)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম
করুণাময়, অতি দয়ালু
[1] ﻭَﺍﻟﺼّٰﻔّٰﺖِ ﺻَﻔًّﺎ
[1] শপথ তাদের যারা সারিবদ্ধ হয়ে
দাঁড়ানো,
[1] By those (angels) ranged in ranks (or
rows).
[2] ﻓَﺎﻟﺰّٰﺟِﺮٰﺕِ ﺯَﺟﺮًﺍ
[2] অতঃপর ধমকিয়ে ভীতি
প্রদর্শনকারীদের,
[2] By those (angels) who drive the
clouds in a good way.
[3] ﻓَﺎﻟﺘّٰﻠِﻴٰﺖِ ﺫِﻛﺮًﺍ
[3] অতঃপর মুখস্থ আবৃত্তিকারীদের-
[3] By those (angels) who bring the Book
and the Qur’ân from Allâh to mankind
[Tafsir Ibn Kathîr].
[4] ﺇِﻥَّ ﺇِﻟٰﻬَﻜُﻢ ﻟَﻮٰﺣِﺪٌ
[4] নিশ্চয় তোমাদের মাবুদ এক।
[4] Verily your Ilâh (God) is indeed One
(i.e. Allâh);
[5] ﺭَﺏُّ ﺍﻟﺴَّﻤٰﻮٰﺕِ ﻭَﺍﻷَﺭﺽِ
ﻭَﻣﺎ ﺑَﻴﻨَﻬُﻤﺎ ﻭَﺭَﺏُّ ﺍﻟﻤَﺸٰﺮِﻕِ
[5] তিনি আসমান সমূহ, যমীনও এতদুভয়ের
মধ্যবর্তী সবকিছুর পালনকর্তা এবং
পালনকর্তা উদয়াচলসমূহের।
[5] Lord of the heavens and of the earth,
and all that is between them, and Lord
of every point of the sun’s risings.
[6] ﺇِﻧّﺎ ﺯَﻳَّﻨَّﺎ ﺍﻟﺴَّﻤﺎﺀَ ﺍﻟﺪُّﻧﻴﺎ
ﺑِﺰﻳﻨَﺔٍ ﺍﻟﻜَﻮﺍﻛِﺐِ
[6] নিশ্চয় আমি নিকটবর্তী আকাশকে
তারকারাজির দ্বারা সুশোভিত
করেছি।
[6] Verily! We have adorned the near
heaven with the stars (for beauty).
[7] ﻭَﺣِﻔﻈًﺎ ﻣِﻦ ﻛُﻞِّ ﺷَﻴﻄٰﻦٍ
ﻣﺎﺭِﺩٍ
[7] এবং তাকে সংরক্ষিত করেছি
প্রত্যেক অবাধ্য শয়তান থেকে।
[7] And to guard against every rebellious
devil.
[8] ﻻ ﻳَﺴَّﻤَّﻌﻮﻥَ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﻤَﻠَﺈِ
ﺍﻷَﻋﻠﻰٰ ﻭَﻳُﻘﺬَﻓﻮﻥَ ﻣِﻦ ﻛُﻞِّ
ﺟﺎﻧِﺐٍ
[8] ওরা উর্ধ্ব জগতের কোন কিছু শ্রবণ
করতে পারে না এবং চার দিক থেকে
তাদের প্রতি উল্কা নিক্ষেপ করা হয়।
[8] They cannot listen to the higher
group (angels) for they are pelted from
every side.
[9] ﺩُﺣﻮﺭًﺍ ۖ ﻭَﻟَﻬُﻢ ﻋَﺬﺍﺏٌ
ﻭﺍﺻِﺐٌ
[9] ওদেরকে বিতাড়নের উদ্দেশে।
ওদের জন্যে রয়েছে বিরামহীন
শাস্তি।
[9] Outcast, and theirs is a constant (or
painful) torment.
[10] ﺇِﻟّﺎ ﻣَﻦ ﺧَﻄِﻒَ ﺍﻟﺨَﻄﻔَﺔَ
ﻓَﺄَﺗﺒَﻌَﻪُ ﺷِﻬﺎﺏٌ ﺛﺎﻗِﺐٌ
[10] তবে কেউ ছোঁ মেরে কিছু শুনে
ফেললে জ্বলন্ত উল্কাপিন্ড তার
পশ্চাদ্ধাবন করে।
[10] Except such as snatch away
something by stealing and they are
pursued by a flaming fire of piercing
brightness.
[11] ﻓَﺎﺳﺘَﻔﺘِﻬِﻢ ﺃَﻫُﻢ ﺃَﺷَﺪُّ
ﺧَﻠﻘًﺎ ﺃَﻡ ﻣَﻦ ﺧَﻠَﻘﻨﺎ ۚ ﺇِﻧّﺎ
ﺧَﻠَﻘﻨٰﻬُﻢ ﻣِﻦ ﻃﻴﻦٍ ﻻﺯِﺏٍ
[11] আপনি তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন,
তাদেরকে সৃষ্টি করা কঠিনতর, না আমি
অন্য যা সৃষ্টি করেছি? আমিই
তাদেরকে সৃষ্টি করেছি এঁটেল মাটি
থেকে।
[11] Then ask them (i.e. these polytheists,
O Muhammad SAW): “Are they stronger
as creation, or those (others like the
heavens and the earth and the
mountains) whom We have created?”
Verily, We created them of a sticky clay.
[12] ﺑَﻞ ﻋَﺠِﺒﺖَ ﻭَﻳَﺴﺨَﺮﻭﻥَ
[12] বরং আপনি বিস্ময় বোধ করেন আর
তারা বিদ্রুপ করে।
[12] Nay, you (O Muhammad SAW)
wondered (at their insolence) while they
mock (at you and at the Qur’ân).
[13] ﻭَﺇِﺫﺍ ﺫُﻛِّﺮﻭﺍ ﻻ ﻳَﺬﻛُﺮﻭﻥَ
[13] যখন তাদেরকে বোঝানো হয়,
তখন তারা বোঝে না।
[13] And when they are reminded, they
pay no attention.
[14] ﻭَﺇِﺫﺍ ﺭَﺃَﻭﺍ ﺀﺍﻳَﺔً
ﻳَﺴﺘَﺴﺨِﺮﻭﻥَ
[14] তারা যখন কোন নিদর্শন দেখে
তখন বিদ্রূপ করে।
[14] And when they see an Ayâh (a sign,
a proof, or an evidence) from Allâh, they
mock at it.
[15] ﻭَﻗﺎﻟﻮﺍ ﺇِﻥ ﻫٰﺬﺍ ﺇِﻟّﺎ ﺳِﺤﺮٌ
ﻣُﺒﻴﻦٌ
[15] এবং বলে, কিছুই নয়, এযে স্পষ্ট
যাদু।
[15] And they say: “This is nothing but
evident magic!
[16] ﺃَﺀِﺫﺍ ﻣِﺘﻨﺎ ﻭَﻛُﻨّﺎ ﺗُﺮﺍﺑًﺎ
ﻭَﻋِﻈٰﻤًﺎ ﺃَﺀِﻧّﺎ ﻟَﻤَﺒﻌﻮﺛﻮﻥَ
[16] আমরা যখন মরে যাব, এবং মাটি ও
হাড়ে পরিণত হয়ে যাব, তখনও কি আমরা
পুনরুত্থিত হব?
[16] “When we are dead and have
become dust and bones, shall we (then)
verily be resurrected?
[17] ﺃَﻭَﺀﺍﺑﺎﺅُﻧَﺎ ﺍﻷَﻭَّﻟﻮﻥَ
[17] আমাদের পিতৃপুরুষগণও কি?
[17] “And also our fathers of old?”
[18] ﻗُﻞ ﻧَﻌَﻢ ﻭَﺃَﻧﺘُﻢ ﺩٰﺧِﺮﻭﻥَ
[18] বলুন, হ্যাঁ এবং তোমরা হবে
লাঞ্ছিত।
[18] Say (O Muhammad SAW): “Yes, and
you shall then be humiliated.”
[19] ﻓَﺈِﻧَّﻤﺎ ﻫِﻰَ ﺯَﺟﺮَﺓٌ ﻭٰﺣِﺪَﺓٌ
ﻓَﺈِﺫﺍ ﻫُﻢ ﻳَﻨﻈُﺮﻭﻥَ
[19] বস্তুতঃ সে উত্থান হবে একটি
বিকট শব্দ মাত্র-যখন তারা প্রত্যক্ষ
করতে থাকবে।
[19] It will be a single Zajrah [shout (i.e.
the second blowing of the Trumpet)], and
behold, they will be staring!
[20] ﻭَﻗﺎﻟﻮﺍ ﻳٰﻮَﻳﻠَﻨﺎ ﻫٰﺬﺍ ﻳَﻮﻡُ
ﺍﻟﺪّﻳﻦِ
[20] এবং বলবে, দুর্ভাগ্য আমাদের!
এটাই তো প্রতিফল দিবস।
[20] They will say: “Woe to us! This is the
Day of Recompense!”
[21] ﻫٰﺬﺍ ﻳَﻮﻡُ ﺍﻟﻔَﺼﻞِ ﺍﻟَّﺬﻯ
ﻛُﻨﺘُﻢ ﺑِﻪِ ﺗُﻜَﺬِّﺑﻮﻥَ
[21] বলা হবে, এটাই ফয়সালার দিন,
যাকে তোমরা মিথ্যা বলতে।
[21] (It will be said): “This is the Day of
Judgement which you used to deny.”
[22] ۞ ﺍﺣﺸُﺮُﻭﺍ ﺍﻟَّﺬﻳﻦَ ﻇَﻠَﻤﻮﺍ
ﻭَﺃَﺯﻭٰﺟَﻬُﻢ ﻭَﻣﺎ ﻛﺎﻧﻮﺍ ﻳَﻌﺒُﺪﻭﻥَ
[22] একত্রিত কর গোনাহগারদেরকে,
তাদের দোসরদেরকে এবং যাদের
এবাদত তারা করত।
[22] It will be said to the angels):
“Assemble those who did wrong, together
with their companions (from the devils)
and what they used to worship
[23] ﻣِﻦ ﺩﻭﻥِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓَﺎﻫﺪﻭﻫُﻢ
ﺇِﻟﻰٰ ﺻِﺮٰﻁِ ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[23] আল্লাহ ব্যতীত। অতঃপর তাদেরকে
পরিচালিত কর জাহান্নামের পথে,
[23] “Instead of Allâh, and lead them on
to the way of flaming Fire (Hell);
[24] ﻭَﻗِﻔﻮﻫُﻢ ۖ ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻣَﺴـٔﻮﻟﻮﻥَ
[24] এবং তাদেরকে থামাও, তারা
জিজ্ঞাসিত হবে;
[24] “But stop them, verily they are to be
questioned.
[25] ﻣﺎ ﻟَﻜُﻢ ﻻ ﺗَﻨﺎﺻَﺮﻭﻥَ
[25] তোমাদের কি হল যে, তোমরা
একে অপরের সাহায্য করছ না?
[25] “What is the matter with you? Why
do you not help one another (as you used
to do in the world)?”
[26] ﺑَﻞ ﻫُﻢُ ﺍﻟﻴَﻮﻡَ
ﻣُﺴﺘَﺴﻠِﻤﻮﻥَ
[26] বরং তারা আজকের দিনে
আত্নসমর্পণকারী।
[26] Nay, but that Day they shall
surrender,
[27] ﻭَﺃَﻗﺒَﻞَ ﺑَﻌﻀُﻬُﻢ ﻋَﻠﻰٰ
ﺑَﻌﺾٍ ﻳَﺘَﺴﺎﺀَﻟﻮﻥَ
[27] তারা একে অপরের দিকে মুখ করে
পরস্পরকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
[27] And they will turn to one another
and question one another.
[28] ﻗﺎﻟﻮﺍ ﺇِﻧَّﻜُﻢ ﻛُﻨﺘُﻢ ﺗَﺄﺗﻮﻧَﻨﺎ
ﻋَﻦِ ﺍﻟﻴَﻤﻴﻦِ
[28] বলবে, তোমরা তো আমাদের
কাছে ডান দিক থেকে আসতে।
[28] They will say: “It was you who used
to come to us from the right side [i.e.
from the right side of one of us and
beautify for us every evil, enjoin on us
polytheism, and stop us from the truth
i.e. Islâmic Monotheism and from every
good deed].”
[29] ﻗﺎﻟﻮﺍ ﺑَﻞ ﻟَﻢ ﺗَﻜﻮﻧﻮﺍ
ﻣُﺆﻣِﻨﻴﻦَ
[29] তারা বলবে, বরং তোমরা তো
বিশ্বাসীই ছিলে না।
[29] They will reply: “Nay, you
yourselves were not believers.
[30] ﻭَﻣﺎ ﻛﺎﻥَ ﻟَﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻜُﻢ ﻣِﻦ
ﺳُﻠﻄٰﻦٍ ۖ ﺑَﻞ ﻛُﻨﺘُﻢ ﻗَﻮﻣًﺎ
ﻃٰﻐﻴﻦَ
[30] এবং তোমাদের উপর আমাদের
কোন কতৃত্ব ছিল না, বরং তোমরাই
ছিলে সীমালংঘনকারী সম্প্রদায়।
[30] “And we had no authority over you.
Nay! But you were Taghun
(transgressing) people (polytheists, and
disbelievers).
[31] ﻓَﺤَﻖَّ ﻋَﻠَﻴﻨﺎ ﻗَﻮﻝُ ﺭَﺑِّﻨﺎ ۖ ﺇِﻧّﺎ
ﻟَﺬﺍﺋِﻘﻮﻥَ
[31] আমাদের বিপক্ষে আমাদের
পালনকর্তার উক্তিই সত্য হয়েছে।
আমাদেরকে অবশই স্বাদ আস্বাদন
করতে হবে।
[31] “So now the Word of our Lord has
been justified against us, that we shall
certainly (have to) taste (the torment).
[32] ﻓَﺄَﻏﻮَﻳﻨٰﻜُﻢ ﺇِﻧّﺎ ﻛُﻨّﺎ ﻏٰﻮﻳﻦَ
[32] আমরা তোমাদেরকে পথভ্রষ্ট
করেছিলাম। কারণ আমরা নিজেরাই
পথভ্রষ্ট ছিলাম।
[32] “So we led you astray because we
were ourselves astray.”
[33] ﻓَﺈِﻧَّﻬُﻢ ﻳَﻮﻣَﺌِﺬٍ ﻓِﻰ ﺍﻟﻌَﺬﺍﺏِ
ﻣُﺸﺘَﺮِﻛﻮﻥَ
[33] তারা সবাই সেদিন শান্তিতে
শরীক হবে।
[33] Then verily, that Day, they will (all)
share in the torment.
[34] ﺇِﻧّﺎ ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﻔﻌَﻞُ
ﺑِﺎﻟﻤُﺠﺮِﻣﻴﻦَ
[34] অপরাধীদের সাথে আমি এমনি
ব্যবহার করে থাকি।
[34] Certainly, that is how We deal with
Al¬Mujrimûn (polytheists, sinners,
disbelivers, criminals, the disobedient to
Allâh).
[35] ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻛﺎﻧﻮﺍ ﺇِﺫﺍ ﻗﻴﻞَ ﻟَﻬُﻢ
ﻻ ﺇِﻟٰﻪَ ﺇِﻟَّﺎ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻳَﺴﺘَﻜﺒِﺮﻭﻥَ
[35] তাদের যখন বলা হত, আল্লাহ
ব্যতীত কোন উপাস্য েনই, তখন তারা
ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত।
[35] Truly, when it was said to them: Lâ
ilâha illallâh “(none has the right to be
worshipped but Allâh),” they puffed
themselves up with pride (i.e. denied it).
[36] ﻭَﻳَﻘﻮﻟﻮﻥَ ﺃَﺋِﻨّﺎ ﻟَﺘﺎﺭِﻛﻮﺍ
ﺀﺍﻟِﻬَﺘِﻨﺎ ﻟِﺸﺎﻋِﺮٍ ﻣَﺠﻨﻮﻥٍ
[36] এবং বলত, আমরা কি এক উম্মাদ
কবির কথায় আমাদের উপাস্যদেরকে
পরিত্যাগ করব।
[36] And (they) said: “Are we going to
abandon our âlihah (gods) for the sake of
a mad poet?
[37] ﺑَﻞ ﺟﺎﺀَ ﺑِﺎﻟﺤَﻖِّ ﻭَﺻَﺪَّﻕَ
ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[37] না, তিনি সত্যসহ আগমন করেছেন
এবং রসূলগণের সত্যতা স্বীকার
করেছেন।
[37] Nay! he (Muhammad SAW) has come
with the truth (i.e. Allâh’s religion –
Islâmic Monotheism and this Qur’ân)
and he confirms the Messengers (before
him who brought Allâh’s religion –
Islâmic Monotheism).
[38] ﺇِﻧَّﻜُﻢ ﻟَﺬﺍﺋِﻘُﻮﺍ ﺍﻟﻌَﺬﺍﺏِ
ﺍﻷَﻟﻴﻢِ
[38] তোমরা অবশ্যই বেদনাদায়ক
শাস্তি আস্বাদন করবে।
[38] Verily, you (pagans of Makkah) are
going to taste the painful torment;
[39] ﻭَﻣﺎ ﺗُﺠﺰَﻭﻥَ ﺇِﻟّﺎ ﻣﺎ ﻛُﻨﺘُﻢ
ﺗَﻌﻤَﻠﻮﻥَ
[39] তোমরা যা করতে, তারই প্রতিফল
পাবে।
[39] And you will be requited nothing
except for what you used to do (evil
deeds, sins, and Allâh’s disobedience
which you used to do in this world);
[40] ﺇِﻟّﺎ ﻋِﺒﺎﺩَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﻤُﺨﻠَﺼﻴﻦَ
[40] তবে তারা নয়, যারা আল্লাহর
বাছাই করা বান্দা।
[40] Save the chosen slaves of Allâh (i.e.
the true believers of Islâmic
Monotheism).
[41] ﺃُﻭﻟٰﺌِﻚَ ﻟَﻬُﻢ ﺭِﺯﻕٌ ﻣَﻌﻠﻮﻡٌ
[41] তাদের জন্যে রয়েছে নির্ধারিত
রুযি।
[41] For them there will be a known
provision (in Paradise),
[42] ﻓَﻮٰﻛِﻪُ ۖ ﻭَﻫُﻢ ﻣُﻜﺮَﻣﻮﻥَ
[42] ফল-মূল এবং তারা সম্মানিত।
[42] Fruits; and they shall be honoured,
[43] ﻓﻰ ﺟَﻨّٰﺖِ ﺍﻟﻨَّﻌﻴﻢِ
[43] নেয়ামতের উদ্যানসমূহ।
[43] In the Gardens of delight (Paradise),
[44] ﻋَﻠﻰٰ ﺳُﺮُﺭٍ ﻣُﺘَﻘٰﺒِﻠﻴﻦَ
[44] মুখোমুখি হয়ে আসনে আসীন।
[44] Facing one another on thrones,
[45] ﻳُﻄﺎﻑُ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺑِﻜَﺄﺱٍ ﻣِﻦ
ﻣَﻌﻴﻦٍ
[45] তাদেরকে ঘুরে ফিরে পরিবেশন
করা হবে স্বচ্ছ পানপাত্র।
[45] Round them will be passed a cup of
pure wine,—
[46] ﺑَﻴﻀﺎﺀَ ﻟَﺬَّﺓٍ ﻟِﻠﺸّٰﺮِﺑﻴﻦَ
[46] সুশুভ্র, যা পানকারীদের জন্যে
সুস্বাদু।
[46] White, delicious to the drinkers,
[47] ﻻ ﻓﻴﻬﺎ ﻏَﻮﻝٌ ﻭَﻻ ﻫُﻢ
ﻋَﻨﻬﺎ ﻳُﻨﺰَﻓﻮﻥَ
[47] তাতে মাথা ব্যথার উপাদান নেই
এবং তারা তা পান করে মাতালও হবে
না।
[47] Neither will they have Ghoul (any
kind of hurt, abdominal pain, headache,
a sin) from that, nor will they suffer
intoxication therefrom.
[48] ﻭَﻋِﻨﺪَﻫُﻢ ﻗٰﺼِﺮٰﺕُ ﺍﻟﻄَّﺮﻑِ
ﻋﻴﻦٌ
[48] তাদের কাছে থাকবে নত,
আয়তলোচনা তরুণীগণ।
[48] And beside them will be Qâsirât-at-
Tarf [chaste females (wives), restraining
their glances (desiring none except their
husbands)], with wide and beautiful
eyes.
[49] ﻛَﺄَﻧَّﻬُﻦَّ ﺑَﻴﺾٌ ﻣَﻜﻨﻮﻥٌ
[49] যেন তারা সুরক্ষিত ডিম।
[49] (Delicate and pure) as if they were
(hidden) eggs (well) preserved.
[50] ﻓَﺄَﻗﺒَﻞَ ﺑَﻌﻀُﻬُﻢ ﻋَﻠﻰٰ
ﺑَﻌﺾٍ ﻳَﺘَﺴﺎﺀَﻟﻮﻥَ
[50] অতঃপর তারা একে অপরের দিকে
মুখ করে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
[50] Then they will turn to one another,
mutually questioning.
[51] ﻗﺎﻝَ ﻗﺎﺋِﻞٌ ﻣِﻨﻬُﻢ ﺇِﻧّﻰ ﻛﺎﻥَ
ﻟﻰ ﻗَﺮﻳﻦٌ
[51] তাদের একজন বলবে, আমার এক
সঙ্গী ছিল।
[51] A speaker of them will say: “Verily, I
had a companion (in the world),
[52] ﻳَﻘﻮﻝُ ﺃَﺀِﻧَّﻚَ ﻟَﻤِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺼَﺪِّﻗﻴﻦَ
[52] সে বলত, তুমি কি বিশ্বাস কর যে,
[52] Who used to say: “Are you among
those who believe (in resurrection after
death).
[53] ﺃَﺀِﺫﺍ ﻣِﺘﻨﺎ ﻭَﻛُﻨّﺎ ﺗُﺮﺍﺑًﺎ
ﻭَﻋِﻈٰﻤًﺎ ﺃَﺀِﻧّﺎ ﻟَﻤَﺪﻳﻨﻮﻥَ
[53] আমরা যখন মরে যাব এবং মাটি ও
হাড়ে পরিণত হব, তখনও কি আমরা
প্রতিফল প্রাপ্ত হব?
[53] “(That) when we die and become
dust and bones, shall we indeed (be
raised up) to receive reward or
punishment (according to our deeds)?”
[54] ﻗﺎﻝَ ﻫَﻞ ﺃَﻧﺘُﻢ ﻣُﻄَّﻠِﻌﻮﻥَ
[54] আল্লাহ বলবেন, তোমরা কি
তাকে উকি দিয়ে দেখতে চাও?
[54] (The speaker) said: “Will you look
down?”
[55] ﻓَﺎﻃَّﻠَﻊَ ﻓَﺮَﺀﺍﻩُ ﻓﻰ ﺳَﻮﺍﺀِ
ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[55] অপর সে উকি দিয়ে দেখবে এবং
তাকে জাহান্নামের মাঝখানে
দেখতে পাবে।
[55] So he looked down and saw him in
the midst of the Fire.
[56] ﻗﺎﻝَ ﺗَﺎﻟﻠَّﻪِ ﺇِﻥ ﻛِﺪﺕَ
ﻟَﺘُﺮﺩﻳﻦِ
[56] সে বলবে, আল্লাহর কসম, তুমি তো
আমাকে প্রায় ধ্বংসই করে
দিয়েছিলে।
[56] He said: “By Allâh! You have nearly
ruined me.
[57] ﻭَﻟَﻮﻻ ﻧِﻌﻤَﺔُ ﺭَﺑّﻰ ﻟَﻜُﻨﺖُ
ﻣِﻦَ ﺍﻟﻤُﺤﻀَﺮﻳﻦَ
[57] আমার পালনকর্তার অনুগ্রহ না হলে
আমিও যে গ্রেফতারকৃতদের সাথেই
উপস্থিত হতাম।
[57] “Had it not been for the Grace of my
Lord, I would certainly have been among
those brought forth (to Hell).”
[58] ﺃَﻓَﻤﺎ ﻧَﺤﻦُ ﺑِﻤَﻴِّﺘﻴﻦَ
[58] এখন আমাদের আর মৃত্যু হবে না।
[58] (The dwellers of Paradise will say):
“Are we then not to die (any more)?
[59] ﺇِﻟّﺎ ﻣَﻮﺗَﺘَﻨَﺎ ﺍﻷﻭﻟﻰٰ ﻭَﻣﺎ
ﻧَﺤﻦُ ﺑِﻤُﻌَﺬَّﺑﻴﻦَ
[59] আমাদের প্রথম মৃত্যু ছাড়া এবং
আমরা শাস্তি প্রাপ্তও হব না।
[59] “Except our first death, and we shall
not be punished? (after we have entered
Paradise).”
[60] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺬﺍ ﻟَﻬُﻮَ ﺍﻟﻔَﻮﺯُ
ﺍﻟﻌَﻈﻴﻢُ
[60] নিশ্চয় এই মহা সাফল্য।
[60] Truly, this is the supreme success!
[61] ﻟِﻤِﺜﻞِ ﻫٰﺬﺍ ﻓَﻠﻴَﻌﻤَﻞِ
ﺍﻟﻌٰﻤِﻠﻮﻥَ
[61] এমন সাফল্যের জন্যে
পরিশ্রমীদের পরিশ্রম করা উচিত।
[61] For the like of this let the workers
work.
[62] ﺃَﺫٰﻟِﻚَ ﺧَﻴﺮٌ ﻧُﺰُﻟًﺎ ﺃَﻡ ﺷَﺠَﺮَﺓُ
ﺍﻟﺰَّﻗّﻮﻡِ
[62] এই কি উত্তম আপ্যায়ন, না যাক্কুম
বৃক্ষ?
[62] Is that (Paradise) better
entertainment or the tree of Zaqqûm (a
horrible tree in Hell)?
[63] ﺇِﻧّﺎ ﺟَﻌَﻠﻨٰﻬﺎ ﻓِﺘﻨَﺔً ﻟِﻠﻈّٰﻠِﻤﻴﻦَ
[63] আমি যালেমদের জন্যে একে বিপদ
করেছি।
[63] Truly We have made it (as) a trail
for the Zâlimûn (polytheists,
disbelievers, wrong-doers).
[64] ﺇِﻧَّﻬﺎ ﺷَﺠَﺮَﺓٌ ﺗَﺨﺮُﺝُ ﻓﻰ
ﺃَﺻﻞِ ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[64] এটি একটি বৃক্ষ, যা উদগত হয়
জাহান্নামের মূলে।
[64] Verily, it is a tree that springs out of
the bottom of Hell-fire,
[65] ﻃَﻠﻌُﻬﺎ ﻛَﺄَﻧَّﻪُ ﺭُﺀﻭﺱُ
ﺍﻟﺸَّﻴٰﻄﻴﻦِ
[65] এর গুচ্ছ শয়তানের মস্তকের মত।
[65] The shoots of its fruit-stalks are like
the heads of Shayâtin (devils);
[66] ﻓَﺈِﻧَّﻬُﻢ ﻝَﺀﺍﻛِﻠﻮﻥَ ﻣِﻨﻬﺎ
ﻓَﻤﺎﻟِـٔﻮﻥَ ﻣِﻨﻬَﺎ ﺍﻟﺒُﻄﻮﻥَ
[66] কাফেররা একে ভক্ষণ করবে এবং
এর দ্বারা উদর পূর্ণ করবে।
[66] Truly, they will eat thereof and fill
their bellies therewith.
[67] ﺛُﻢَّ ﺇِﻥَّ ﻟَﻬُﻢ ﻋَﻠَﻴﻬﺎ ﻟَﺸَﻮﺑًﺎ
ﻣِﻦ ﺣَﻤﻴﻢٍ
[67] তদুপরি তাদেরকে দেয়া হবে। ফুটন্ত
পানির মিশ্রণ,
[67] Then on the top of that they will be
given boiling water to drink so that it
becomes a mixture (of boiling water and
Zaqqûm in their bellies).
[68] ﺛُﻢَّ ﺇِﻥَّ ﻣَﺮﺟِﻌَﻬُﻢ ﻟَﺈِﻟَﻰ
ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[68] অতঃপর তাদের প্রত্যাবর্তন হবে
জাহান্নামের দিকে।
[68] Then thereafter, verily, their return
is to the flaming fire of Hell.
[69] ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﺃَﻟﻔَﻮﺍ ﺀﺍﺑﺎﺀَﻫُﻢ
ﺿﺎﻟّﻴﻦَ
[69] তারা তাদের পূর্বপুরুষদেরকে
পেয়েছিল বিপথগামী।
[69] Verily, they found their fathers on
the wrong path;
[70] ﻓَﻬُﻢ ﻋَﻠﻰٰ ﺀﺍﺛٰﺮِﻫِﻢ
ﻳُﻬﺮَﻋﻮﻥَ
[70] অতঃপর তারা তদের পদাংক
অনুসরণে তৎপর ছিল।
[70] So they (too) hastend in their
footsteps!
[71] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺿَﻞَّ ﻗَﺒﻠَﻬُﻢ ﺃَﻛﺜَﺮُ
ﺍﻷَﻭَّﻟﻴﻦَ
[71] তাদের পূর্বেও অগ্রবর্তীদের
অধিকাংশ বিপথগামী হয়েছিল।
[71] And indeed most of the men of old
went astray before them;
[72] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺃَﺭﺳَﻠﻨﺎ ﻓﻴﻬِﻢ
ﻣُﻨﺬِﺭﻳﻦَ
[72] আমি তাদের মধ্যে ভীতি
প্রদর্শনকারী প্রেরণ করেছিলাম।
[72] And indeed We sent among them
warners (Messengers);
[73] ﻓَﺎﻧﻈُﺮ ﻛَﻴﻒَ ﻛﺎﻥَ ﻋٰﻘِﺒَﺔُ
ﺍﻟﻤُﻨﺬَﺭﻳﻦَ
[73] অতএব লক্ষ্য করুন, যাদেরকে
ভীতিপ্রদর্শণ করা হয়েছিল, তাদের
পরিণতি কি হয়েছে।
[73] Then see what was the end of those
who were warned (but heeded not).
[74] ﺇِﻟّﺎ ﻋِﺒﺎﺩَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﻤُﺨﻠَﺼﻴﻦَ
[74] তবে আল্লাহর বাছাই করা
বান্দাদের কথা ভিন্ন।
[74] Except the chosen slaves of Allâh
(faithful, obedient, and true believers of
Islâmic Monotheism).
[75] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻧﺎﺩﻯٰﻨﺎ ﻧﻮﺡٌ ﻓَﻠَﻨِﻌﻢَ
ﺍﻟﻤُﺠﻴﺒﻮﻥَ
[75] আর নূহ আমাকে ডেকেছিল। আর কি
চমৎকারভাবে আমি তার ডাকে সাড়া
দিয়েছিলাম।
[75] And indeed Nûh (Noah) invoked Us,
and We are the Best of those who answer
(the request).
[76] ﻭَﻧَﺠَّﻴﻨٰﻪُ ﻭَﺃَﻫﻠَﻪُ ﻣِﻦَ
ﺍﻟﻜَﺮﺏِ ﺍﻟﻌَﻈﻴﻢِ
[76] আমি তাকে ও তার পরিবারবর্গকে
এক মহাসংকট থেকে রক্ষা করেছিলাম।
[76] And We rescued him and his family
from the great distress (i.e. drowning),
[77] ﻭَﺟَﻌَﻠﻨﺎ ﺫُﺭِّﻳَّﺘَﻪُ ﻫُﻢُ
ﺍﻟﺒﺎﻗﻴﻦَ
[77] এবং তার বংশধরদেরকেই আমি
অবশিষ্ট রেখেছিলাম।
[77] And, his progeny, them We made
the survivors (i.e. Shem, Ham and
Japheth).
[78] ﻭَﺗَﺮَﻛﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﻓِﻰ
ﺍﻝﺀﺍﺧِﺮﻳﻦَ
[78] আমি তার জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে
এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে,
[78] And left for him (a goodly
remembrance) among the later
generations:
[79] ﺳَﻠٰﻢٌ ﻋَﻠﻰٰ ﻧﻮﺡٍ ﻓِﻰ
ﺍﻟﻌٰﻠَﻤﻴﻦَ
[79] বিশ্ববাসীর মধ্যে নূহের প্রতি
শান্তি বর্ষিত হোক।
[79] “Salâm (peace) be upon Nûh (Noah)
(from Us) among the ‘Âlamîn (mankind,
jinn and all that exists)!”
[80] ﺇِﻧّﺎ ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﺠﺰِﻯ
ﺍﻟﻤُﺤﺴِﻨﻴﻦَ
[80] আমি এভাবেই সৎকর্ম
পরায়নদেরকে পুরস্কৃত করে থাকি।
[80] Verily, thus We reward the
Muhsinûn (good-doers – see V.2:112).
[81] ﺇِﻧَّﻪُ ﻣِﻦ ﻋِﺒﺎﺩِﻧَﺎ ﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨﻴﻦَ
[81] সে ছিল আমার ঈমানদার
বান্দাদের অন্যতম।
[81] Verily, he [Nûh (Noah)] was one of
Our believing slaves.
[82] ﺛُﻢَّ ﺃَﻏﺮَﻗﻨَﺎ ﺍﻝﺀﺍﺧَﺮﻳﻦَ
[82] অতঃপর আমি অপরাপর সবাইকে
নিমজ্জত করেছিলাম।
[82] Then We drowned the others
(disbelievers and polytheists).
[83] ۞ ﻭَﺇِﻥَّ ﻣِﻦ ﺷﻴﻌَﺘِﻪِ
ﻟَﺈِﺑﺮٰﻫﻴﻢَ
[83] আর নূহ পন্থীদেরই একজন ছিল
ইব্রাহীম।
[83] And, verily, among those who
followed his [Nûh’s (Noah)] way (Islâmic
Monotheism) was Ibrâhim (Abraham).
[84] ﺇِﺫ ﺟﺎﺀَ ﺭَﺑَّﻪُ ﺑِﻘَﻠﺐٍ ﺳَﻠﻴﻢٍ
[84] যখন সে তার পালনকর্তার নিকট
সুষ্ঠু চিত্তে উপস্থিত হয়েছিল,
[84] When he came to his Lord with a
pure heart [attached to Allâh Alone – and
none else, worshipping none but Allâh
Alone true Islâmic Monotheism, pure
from the filth of polytheism].
[85] ﺇِﺫ ﻗﺎﻝَ ﻟِﺄَﺑﻴﻪِ ﻭَﻗَﻮﻣِﻪِ ﻣﺎﺫﺍ
ﺗَﻌﺒُﺪﻭﻥَ
[85] যখন সে তার পিতা ও সম্প্রদায়কে
বলেছিলঃ তোমরা কিসের উপাসনা
করছ?
[85] When he said to his father and to
his people: “What is it that which you
worship?
[86] ﺃَﺋِﻔﻜًﺎ ﺀﺍﻟِﻬَﺔً ﺩﻭﻥَ ﺍﻟﻠَّﻪِ
ﺗُﺮﻳﺪﻭﻥَ
[86] তোমরা কি আল্লাহ ব্যতীত
মিথ্যা উপাস্য কামনা করছ?
[86] “Is it a falsehood âlihah (gods) other
than Allâh that you desire?
[87] ﻓَﻤﺎ ﻇَﻨُّﻜُﻢ ﺑِﺮَﺏِّ ﺍﻟﻌٰﻠَﻤﻴﻦَ
[87] বিশ্বজগতের পালনকর্তা সম্পর্কে
তোমাদের ধারণা কি?
[87] “Then what think you about the
Lord of the ‘Alamîn (mankind, jinn, and
all that exists)?”
[88] ﻓَﻨَﻈَﺮَ ﻧَﻈﺮَﺓً ﻓِﻰ ﺍﻟﻨُّﺠﻮﻡِ
[88] অতঃপর সে একবার তারকাদের
প্রতি লক্ষ্য করল।
[88] Then he cast a glance at the stars,
[89] ﻓَﻘﺎﻝَ ﺇِﻧّﻰ ﺳَﻘﻴﻢٌ
[89] এবং বললঃ আমি পীড়িত।
[89] And he said: “Verily, I am sick (with
plague). [He did this trick to remain in
their temple of idols to destroy them and
not to accompany them to the pagan
feast].”
[90] ﻓَﺘَﻮَﻟَّﻮﺍ ﻋَﻨﻪُ ﻣُﺪﺑِﺮﻳﻦَ
[90] অতঃপর তারা তার প্রতি পিঠ
ফিরিয়ে চলে গেল।
[90] So they turned away from him, and
departed (for fear of the disease).
[91] ﻓَﺮﺍﻍَ ﺇِﻟﻰٰ ﺀﺍﻟِﻬَﺘِﻬِﻢ ﻓَﻘﺎﻝَ
ﺃَﻻ ﺗَﺄﻛُﻠﻮﻥَ
[91] অতঃপর সে তাদের দেবালয়ে,
গিয়ে ঢুকল এবং বললঃ তোমরা খাচ্ছ
না কেন?
[91] Then he turned to their âlihah
(gods) and said: “Will you not eat (of the
offering before you)?
[92] ﻣﺎ ﻟَﻜُﻢ ﻻ ﺗَﻨﻄِﻘﻮﻥَ
[92] তোমাদের কি হল যে, কথা বলছ
না?
[92] “What is the matter with you that
you speak not?”
[93] ﻓَﺮﺍﻍَ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺿَﺮﺑًﺎ
ﺑِﺎﻟﻴَﻤﻴﻦِ
[93] অতঃপর সে প্রবল আঘাতে তাদের
উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল।
[93] Then he turned upon them, striking
(them) with (his) right hand.
[94] ﻓَﺄَﻗﺒَﻠﻮﺍ ﺇِﻟَﻴﻪِ ﻳَﺰِﻓّﻮﻥَ
[94] তখন লোকজন তার দিকে ছুটে
এলো ভীত-সন্ত্রস্ত পদে।
[94] Then they (the worshippers of idols)
came, towards him, hastening.
[95] ﻗﺎﻝَ ﺃَﺗَﻌﺒُﺪﻭﻥَ ﻣﺎ ﺗَﻨﺤِﺘﻮﻥَ
[95] সে বললঃ তোমরা স্বহস্ত নির্মিত
পাথরের পূজা কর কেন?
[95] He said: “Worship you that which
you (yourselves) carve?
[96] ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺧَﻠَﻘَﻜُﻢ ﻭَﻣﺎ
ﺗَﻌﻤَﻠﻮﻥَ
[96] অথচ আল্লাহ তোমাদেরকে এবং
তোমরা যা নির্মাণ করছ সবাইকে
সৃষ্টি করেছেন।
[96] “While Allâh has created you and
what you make!”
[97] ﻗﺎﻟُﻮﺍ ﺍﺑﻨﻮﺍ ﻟَﻪُ ﺑُﻨﻴٰﻨًﺎ
ﻓَﺄَﻟﻘﻮﻩُ ﻓِﻰ ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[97] তারা বললঃ এর জন্যে একটি ভিত
নির্মাণ কর এবং অতঃপর তাকে
আগুনের স্তুপে নিক্ষেপ কর।
[97] They said: “Build for him a building
(it is said that the building was like a
furnace) and throw him into the blazing
fire!”
[98] ﻓَﺄَﺭﺍﺩﻭﺍ ﺑِﻪِ ﻛَﻴﺪًﺍ
ﻓَﺠَﻌَﻠﻨٰﻬُﻢُ ﺍﻷَﺳﻔَﻠﻴﻦَ
[98] তারপর তারা তার বিরুদ্ধে মহা
ষড়যন্ত্র আঁটতে চাইল, কিন্তু আমি
তাদেরকেই পরাভূত করে দিলাম।
[98] So they plotted a plot against him,
but We made them the lowest.
[99] ﻭَﻗﺎﻝَ ﺇِﻧّﻰ ﺫﺍﻫِﺐٌ ﺇِﻟﻰٰ
ﺭَﺑّﻰ ﺳَﻴَﻬﺪﻳﻦِ
[99] সে বললঃ আমি আমার
পালনকর্তার দিকে চললাম, তিনি
আমাকে পথপ্রদর্শন করবেন।
[99] And he said (after his rescue from
the fire): “Verily, I am going to my Lord.
He will guide me!”
[100] ﺭَﺏِّ ﻫَﺐ ﻟﻰ ﻣِﻦَ
ﺍﻟﺼّٰﻠِﺤﻴﻦَ
[100] হে আমার পরওয়ারদেগার!
আমাকে এক সৎপুত্র দান কর।
[100] “My Lord! Grant me (offspring)
from the righteous.”
[101] ﻓَﺒَﺸَّﺮﻧٰﻪُ ﺑِﻐُﻠٰﻢٍ ﺣَﻠﻴﻢٍ
[101] সুতরাং আমি তাকে এক সহনশীল
পুত্রের সুসংবাদ দান করলাম।
[101] So We gave him the glad tidings of
a forbearing boy.
[102] ﻓَﻠَﻤّﺎ ﺑَﻠَﻎَ ﻣَﻌَﻪُ ﺍﻟﺴَّﻌﻰَ
ﻗﺎﻝَ ﻳٰﺒُﻨَﻰَّ ﺇِﻧّﻰ ﺃَﺭﻯٰ ﻓِﻰ
ﺍﻟﻤَﻨﺎﻡِ ﺃَﻧّﻰ ﺃَﺫﺑَﺤُﻚَ ﻓَﺎﻧﻈُﺮ
ﻣﺎﺫﺍ ﺗَﺮﻯٰ ۚ ﻗﺎﻝَ ﻳٰﺄَﺑَﺖِ ﺍﻓﻌَﻞ
ﻣﺎ ﺗُﺆﻣَﺮُ ۖ ﺳَﺘَﺠِﺪُﻧﻰ ﺇِﻥ ﺷﺎﺀَ
ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻣِﻦَ ﺍﻟﺼّٰﺒِﺮﻳﻦَ
[102] অতঃপর সে যখন পিতার সাথে
চলাফেরা করার বয়সে উপনীত হল, তখন
ইব্রাহীম তাকে বললঃ বৎস! আমি
স্বপ্নে দেখিযে, তোমাকে যবেহ
করছি; এখন তোমার অভিমত কি দেখ।
সে বললঃ পিতাঃ! আপনাকে যা আদেশ
করা হয়েছে, তাই করুন। আল্লাহ চাহে
তো আপনি আমাকে সবরকারী পাবেন।
[102] And, when he (his son) was old
enough to walk with him, he said: “O my
son! I have seen in a dream that I am
slaughtering you (offer you in sacrifice
to Allâh), so look what you think!” He
said: “O my father! Do that which you
are commanded, Inshâ’ Allâh (if Allâh
will), you shall find me of As-Sâbirun
(the patient).”
[103] ﻓَﻠَﻤّﺎ ﺃَﺳﻠَﻤﺎ ﻭَﺗَﻠَّﻪُ ﻟِﻠﺠَﺒﻴﻦِ
[103] যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য
প্রকাশ করল এবং ইব্রাহীম তাকে যবেহ
করার জন্যে শায়িত করল।
[103] Then, when they had both
submitted themselves (to the Will of
Allâh), and he had laid him prostrate on
his forehead (or on the side of his
forehead for slaughtering);
[104] ﻭَﻧٰﺪَﻳﻨٰﻪُ ﺃَﻥ ﻳٰﺈِﺑﺮٰﻫﻴﻢُ
[104] তখন আমি তাকে ডেকে বললামঃ
হে ইব্রাহীম,
[104] And We called out to him: “O
Abraham!
[105] ﻗَﺪ ﺻَﺪَّﻗﺖَ ﺍﻟﺮُّﺀﻳﺎ ۚ ﺇِﻧّﺎ
ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﺠﺰِﻯ ﺍﻟﻤُﺤﺴِﻨﻴﻦَ
[105] তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত
করে দেখালে! আমি এভাবেই
সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।
[105] You have fulfilled the dream!”
Verily! thus do We reward the Muhsinûn
(good-doers – see V.2:112).
[106] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺬﺍ ﻟَﻬُﻮَ ﺍﻟﺒَﻠٰﺆُﺍ۟
ﺍﻟﻤُﺒﻴﻦُ
[106] নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা।
[106] Verily, that indeed was a manifest
trial.
[107] ﻭَﻓَﺪَﻳﻨٰﻪُ ﺑِﺬِﺑﺢٍ ﻋَﻈﻴﻢٍ
[107] আমি তার পরিবর্তে দিলাম যবেহ
করার জন্যে এক মহান জন্তু।
[107] And We ransomed him with a
great sacrifice (i.e. ﮐﺒﺶ – a ram);
[108] ﻭَﺗَﺮَﻛﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﻓِﻰ
ﺍﻝﺀﺍﺧِﺮﻳﻦَ
[108] আমি তার জন্যে এ বিষয়টি
পরবর্তীদের মধ্যে রেখে দিয়েছি যে,
[108] And We left for him (a goodly
remembrance) among the later
generations.
[109] ﺳَﻠٰﻢٌ ﻋَﻠﻰٰ ﺇِﺑﺮٰﻫﻴﻢَ
[109] ইব্রাহীমের প্রতি সালাম বর্ষিত
হোক।
[109] Salâmun (peace) be upon Ibrâhim
(Abraham)!”
[110] ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﺠﺰِﻯ ﺍﻟﻤُﺤﺴِﻨﻴﻦَ
[110] এমনিভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে
প্রতিদান দিয়ে থাকি।
[110] Thus indeed do We reward the
Muhsinûn (good-doers – see V.2:112).
[111] ﺇِﻧَّﻪُ ﻣِﻦ ﻋِﺒﺎﺩِﻧَﺎ ﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨﻴﻦَ
[111] সে ছিল আমার বিশ্বাসী
বান্দাদের একজন।
[111] Verily, he was one of Our believing
slaves.
[112] ﻭَﺑَﺸَّﺮﻧٰﻪُ ﺑِﺈِﺳﺤٰﻖَ ﻧَﺒِﻴًّﺎ
ﻣِﻦَ ﺍﻟﺼّٰﻠِﺤﻴﻦَ
[112] আমি তাকে সুসংবাদ দিয়েছি
ইসহাকের, সে সৎকর্মীদের মধ্য থেকে
একজন নবী।
[112] And We gave him the glad tidings
of Ishâq (Isaac) a Prophet from the
righteous.
[113] ﻭَﺑٰﺮَﻛﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﻭَﻋَﻠﻰٰ
ﺇِﺳﺤٰﻖَ ۚ ﻭَﻣِﻦ ﺫُﺭِّﻳَّﺘِﻬِﻤﺎ
ﻣُﺤﺴِﻦٌ ﻭَﻇﺎﻟِﻢٌ ﻟِﻨَﻔﺴِﻪِ ﻣُﺒﻴﻦٌ
[113] তাকে এবং ইসহাককে আমি বরকত
দান করেছি। তাদের বংশধরদের মধ্যে
কতক সৎকর্মী এবং কতক নিজেদের উপর
স্পষ্ট জুলুমকারী।
[113] We blessed him and Ishâq (Isaac),
and of their progeny are (some) that do
right, and some that plainly wrong
themselves.
[114] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻣَﻨَﻨّﺎ ﻋَﻠﻰٰ ﻣﻮﺳﻰٰ
ﻭَﻫٰﺮﻭﻥَ
[114] আমি অনুগ্রহ করেছিলাম মূসা ও
হারুনের প্রতি।
[114] And, indeed We gave Our Grace to
Mûsa (Moses) and Hârûn (Aaron).
[115] ﻭَﻧَﺠَّﻴﻨٰﻬُﻤﺎ ﻭَﻗَﻮﻣَﻬُﻤﺎ ﻣِﻦَ
ﺍﻟﻜَﺮﺏِ ﺍﻟﻌَﻈﻴﻢِ
[115] তাদেরকে ও তাদের সম্প্রদায়কে
উদ্ধার করেছি মহা সংকট থেকে।
[115] And We saved them and their
people from the great distress;
[116] ﻭَﻧَﺼَﺮﻧٰﻬُﻢ ﻓَﻜﺎﻧﻮﺍ ﻫُﻢُ
ﺍﻟﻐٰﻠِﺒﻴﻦَ
[116] আমি তাদেরকে সাহায্য
করেছিলাম, ফলে তারাই ছিল বিজয়ী।
[116] And helped them, so that they
became the victors;
[117] ﻭَﺀﺍﺗَﻴﻨٰﻬُﻤَﺎ ﺍﻟﻜِﺘٰﺐَ
ﺍﻟﻤُﺴﺘَﺒﻴﻦَ
[117] আমি উভয়কে দিয়েছিলাম সুস্পষ্ট
কিতাব।
[117] And We gave them the clear
Scripture;
[118] ﻭَﻫَﺪَﻳﻨٰﻬُﻤَﺎ ﺍﻟﺼِّﺮٰﻁَ
ﺍﻟﻤُﺴﺘَﻘﻴﻢَ
[118] এবং তাদেরকে সরল পথ প্রদর্শন
করেছিলাম।
[118] And guided them to the Right Path;
[119] ﻭَﺗَﺮَﻛﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻬِﻤﺎ ﻓِﻰ
ﺍﻝﺀﺍﺧِﺮﻳﻦَ
[119] আমি তাদের জন্যে পরবর্তীদের
মধ্যে এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে,
[119] And We left for them (a goodly
remembrance) among the generations;
[120] ﺳَﻠٰﻢٌ ﻋَﻠﻰٰ ﻣﻮﺳﻰٰ
ﻭَﻫٰﺮﻭﻥَ
[120] মূসা ও হারুনের প্রতি সালাম
বর্ষিত হোক।
[120] Salâm (peace) be upon Mûsa
(Moses) and Hârûn (Aaron)!”
[121] ﺇِﻧّﺎ ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﺠﺰِﻯ
ﺍﻟﻤُﺤﺴِﻨﻴﻦَ
[121] এভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে
প্রতিদান দিয়ে থাকি।
[121] Verily, thus do We reward the
Muhsinûn (good-doers – see V.2:112).
[122] ﺇِﻧَّﻬُﻤﺎ ﻣِﻦ ﻋِﺒﺎﺩِﻧَﺎ
ﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨﻴﻦَ
[122] তারা উভয়েই ছিল আমার
বিশ্বাসী বান্দাদের অন্যতম।
[122] Verily! they were two of Our
believing slaves.
[123] ﻭَﺇِﻥَّ ﺇِﻟﻴﺎﺱَ ﻟَﻤِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[123] নিশ্চয়ই ইলিয়াস ছিল রসূল।
[123] And verily, Iliyâs (Elias) was one of
the Messengers
[124] ﺇِﺫ ﻗﺎﻝَ ﻟِﻘَﻮﻣِﻪِ ﺃَﻻ ﺗَﺘَّﻘﻮﻥَ
[124] যখন সে তার সম্প্রদায়কে বললঃ
তোমরা কি ভয় কর না ?
[124] When he said to his people: “Will
you not fear Allâh?
[125] ﺃَﺗَﺪﻋﻮﻥَ ﺑَﻌﻠًﺎ ﻭَﺗَﺬَﺭﻭﻥَ
ﺃَﺣﺴَﻦَ ﺍﻟﺨٰﻠِﻘﻴﻦَ
[125] তোমরা কি বা’আল দেবতার
এবাদত করবে এবং সর্বোত্তম
স্রষ্টাকে পরিত্যাগ করবে।
[125] “Will you call upon Ba’l (a well-
known idol of his nation whom they used
to worship) and forsake the Best of
creators,
[126] ﺍﻟﻠَّﻪَ ﺭَﺑَّﻜُﻢ ﻭَﺭَﺏَّ ﺀﺍﺑﺎﺋِﻜُﻢُ
ﺍﻷَﻭَّﻟﻴﻦَ
[126] যিনি আল্লাহ তোমাদের
পালনকর্তা এবং তোমাদের
পূর্বপুরুষদের পালনকর্তা?
[126] “Allâh, your Lord and the Lord of
your forefathers?”
[127] ﻓَﻜَﺬَّﺑﻮﻩُ ﻓَﺈِﻧَّﻬُﻢ
ﻟَﻤُﺤﻀَﺮﻭﻥَ
[127] অতঃপর তারা তাকে মিথ্যা
প্রতিপন্ন করল। অতএব তারা অবশ্যই
গ্রেফতার হয়ে আসবে।
[127] But they denied him [Iliyâs (Elias)],
so they will certainly be brought forth
(to the punishment),
[128] ﺇِﻟّﺎ ﻋِﺒﺎﺩَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﻤُﺨﻠَﺼﻴﻦَ
[128] কিন্তু আল্লাহ তা’আলার খাঁটি
বান্দাগণ নয়।
[128] Except the chosen slaves of Allâh.
[129] ﻭَﺗَﺮَﻛﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﻓِﻰ
ﺍﻝﺀﺍﺧِﺮﻳﻦَ
[129] আমি তার জন্যে পরবর্তীদের
মধ্যে এ বিষয়ে রেখে দিয়েছি যে,
[129] And We left for him (a goodly
remembrance) among the later
generations (to come) in later times;
[130] ﺳَﻠٰﻢٌ ﻋَﻠﻰٰ ﺇِﻝ ﻳﺎﺳﻴﻦَ
[130] ইলিয়াসের প্রতি সালাম বর্ষিত
হোক!
[130] Salâm (peace) be upon Ilyâsîn
(Elias)!”
[131] ﺇِﻧّﺎ ﻛَﺬٰﻟِﻚَ ﻧَﺠﺰِﻯ
ﺍﻟﻤُﺤﺴِﻨﻴﻦَ
[131] এভাবেই আমি সৎকর্মীদেরকে
প্রতিদান দিয়ে থাকি।
[131] Verily, thus do We reward the
Muhsinûn (good-doers, who perform
good deeds totally for Allâh’s sake only –
see V.2:112)
[132] ﺇِﻧَّﻪُ ﻣِﻦ ﻋِﺒﺎﺩِﻧَﺎ ﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨﻴﻦَ
[132] সে ছিল আমার বিশ্বাসী
বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত।
[132] Verily, he was one of Our believing
slaves.
[133] ﻭَﺇِﻥَّ ﻟﻮﻃًﺎ ﻟَﻤِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[133] নিশ্চয় লূত ছিলেন রসূলগণের
একজন।
[133] And verily, Lut (Lot) was one of the
Messengers
[134] ﺇِﺫ ﻧَﺠَّﻴﻨٰﻪُ ﻭَﺃَﻫﻠَﻪُ
ﺃَﺟﻤَﻌﻴﻦَ
[134] যখন আমি তাকেও তার পরিবারের
সবাইকে উদ্ধার করেছিলাম;
[134] When We saved him and his
family, all,
[135] ﺇِﻟّﺎ ﻋَﺠﻮﺯًﺍ ﻓِﻰ ﺍﻟﻐٰﺒِﺮﻳﻦَ
[135] কিন্তু এক বৃদ্ধাকে ছাড়া; সে
অন্যান্যদের সঙ্গে থেকে গিয়েছিল।
[135] Except an old woman (his wife)
who was among those who remained
behind.
[136] ﺛُﻢَّ ﺩَﻣَّﺮﻧَﺎ ﺍﻝﺀﺍﺧَﺮﻳﻦَ
[136] অতঃপর অবশিষ্টদেরকে আমি
সমূলে উৎপাটিত করেছিলাম।
[136] Then We destroyed the rest [i.e. the
town of Sodom at the place of the Dead
Sea now in Palestine].
[137] ﻭَﺇِﻧَّﻜُﻢ ﻟَﺘَﻤُﺮّﻭﻥَ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ
ﻣُﺼﺒِﺤﻴﻦَ
[137] তোমরা তোমাদের ধ্বংস
স্তুপের উপর দিয়ে গমন কর ভোর
বেলায়
[137] Verily, you pass by them in the
morning.
[138] ﻭَﺑِﺎﻟَّﻴﻞِ ۗ ﺃَﻓَﻼ ﺗَﻌﻘِﻠﻮﻥَ
[138] এবং সন্ধ্যায়, তার পরেও কি
তোমরা বোঝ না?
[138] And at night; will you not then
reflect?
[139] ﻭَﺇِﻥَّ ﻳﻮﻧُﺲَ ﻟَﻤِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[139] আর ইউনুসও ছিলেন পয়গম্বরগণের
একজন।
[139] And, verily, Yûnus (Jonah) was one
of the Messengers
[140] ﺇِﺫ ﺃَﺑَﻖَ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﻔُﻠﻚِ
ﺍﻟﻤَﺸﺤﻮﻥِ
[140] যখন পালিয়ে তিনি বোঝাই
নৌকায় গিয়ে পৌঁছেছিলেন।
[140] When he ran to the laden ship,
[141] ﻓَﺴﺎﻫَﻢَ ﻓَﻜﺎﻥَ ﻣِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺪﺣَﻀﻴﻦَ
[141] অতঃপর লটারী (সুরতি) করালে
তিনি দোষী সাব্যস্ত হলেন।
[141] Then he (agreed to) cast lots, and
he was among the losers,
[142] ﻓَﺎﻟﺘَﻘَﻤَﻪُ ﺍﻟﺤﻮﺕُ ﻭَﻫُﻮَ
ﻣُﻠﻴﻢٌ
[142] অতঃপর একটি মাছ তাঁকে গিলে
ফেলল, তখন তিনি অপরাধী গণ্য
হয়েছিলেন।
[142] Then a (big) fish swallowed as and
he had done an act worthy of blame.
[143] ﻓَﻠَﻮﻻ ﺃَﻧَّﻪُ ﻛﺎﻥَ ﻣِﻦَ
ﺍﻟﻤُﺴَﺒِّﺤﻴﻦَ
[143] যদি তিনি আল্লাহর তসবীহ পাঠ
না করতেন,
[143] Had he not been of them who
glorify Allâh,
[144] ﻟَﻠَﺒِﺚَ ﻓﻰ ﺑَﻄﻨِﻪِ ﺇِﻟﻰٰ ﻳَﻮﻡِ
ﻳُﺒﻌَﺜﻮﻥَ
[144] তবে তাঁকে কেয়ামত দিবস পর্যন্ত
মাছের পেটেই থাকতে হত।
[144] He would have indeed remained
inside its belly (the fish) till the Day of
Resurrection.
[145] ۞ ﻓَﻨَﺒَﺬﻧٰﻪُ ﺑِﺎﻟﻌَﺮﺍﺀِ ﻭَﻫُﻮَ
ﺳَﻘﻴﻢٌ
[145] অতঃপর আমি তাঁকে এক
বিস্তীর্ণ-বিজন প্রান্তরে নিক্ষেপ
করলাম, তখন তিনি ছিলেন রুগ্ন।
[145] But We cast him forth on the naked
shore while he was sick,
[146] ﻭَﺃَﻧﺒَﺘﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﺷَﺠَﺮَﺓً ﻣِﻦ
ﻳَﻘﻄﻴﻦٍ
[146] আমি তাঁর উপর এক লতাবিশিষ্ট
বৃক্ষ উদগত করলাম।
[146] And We caused a plant of gourd to
grow over him.
[147] ﻭَﺃَﺭﺳَﻠﻨٰﻪُ ﺇِﻟﻰٰ ﻣِﺎ۟ﺋَﺔِ ﺃَﻟﻒٍ
ﺃَﻭ ﻳَﺰﻳﺪﻭﻥَ
[147] এবং তাঁকে, লক্ষ বা ততোধিক
লোকের প্রতি প্রেরণ করলাম।
[147] And We sent him to a hundred
thousand (people) or even more.
[148] ﻓَـٔﺎﻣَﻨﻮﺍ ﻓَﻤَﺘَّﻌﻨٰﻬُﻢ ﺇِﻟﻰٰ
ﺣﻴﻦٍ
[148] তারা বিশ্বাস স্থাপন করল
অতঃপর আমি তাদেরকে নির্ধারিত
সময় পর্যন্ত জীবনোপভোগ করতে
দিলাম।
[148] And they believed; so We gave
them enjoyment for a while.
[149] ﻓَﺎﺳﺘَﻔﺘِﻬِﻢ ﺃَﻟِﺮَﺑِّﻚَ ﺍﻟﺒَﻨﺎﺕُ
ﻭَﻟَﻬُﻢُ ﺍﻟﺒَﻨﻮﻥَ
[149] এবার তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন,
তোমার পালনকর্তার জন্যে কি কন্যা
সন্তান রয়েছে এবং তাদের জন্যে কি
পুত্র-সন্তান।
[149] Now ask them (O Muhammad
SAW): “Are there (only) daughters for
your Lord and sons for them?”
[150] ﺃَﻡ ﺧَﻠَﻘﻨَﺎ ﺍﻟﻤَﻠٰﺌِﻜَﺔَ ﺇِﻧٰﺜًﺎ
ﻭَﻫُﻢ ﺷٰﻬِﺪﻭﻥَ
[150] না কি আমি তাদের উপস্থিতিতে
ফেরেশতাগণকে নারীরূপে সৃষ্টি
করেছি?
[150] Or did We create the angels female
while they were witnesses?
[151] ﺃَﻻ ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻣِﻦ ﺇِﻓﻜِﻬِﻢ
ﻟَﻴَﻘﻮﻟﻮﻥَ
[151] জেনো, তারা মনগড়া উক্তি করে
যে,
[151] Verily, it is of their falsehood that
they (Quraish pagans) say:
[152] ﻭَﻟَﺪَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻭَﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻟَﻜٰﺬِﺑﻮﻥَ
[152] আল্লাহ সন্তান জন্ম দিয়েছেন।
নিশ্চয় তারা মিথ্যাবাদী।
[152] “Allâh has begotten (off spring the
angels being the daughters of Allâh)?”
And, verily, they are liars!
[153] ﺃَﺻﻄَﻔَﻰ ﺍﻟﺒَﻨﺎﺕِ ﻋَﻠَﻰ
ﺍﻟﺒَﻨﻴﻦَ
[153] তিনি কি পুত্র-সন্তানের স্থলে
কন্যা-সন্তান পছন্দ করেছেন?
[153] Has He (then) chosen daughters
rather than sons?
[154] ﻣﺎ ﻟَﻜُﻢ ﻛَﻴﻒَ ﺗَﺤﻜُﻤﻮﻥَ
[154] তোমাদের কি হল? তোমাদের এ
কেমন সিন্ধান্ত?
[154] What is the matter with you? How
do you decide?
[155] ﺃَﻓَﻼ ﺗَﺬَﻛَّﺮﻭﻥَ
[155] তোমরা কি অনুধাবন কর না?
[155] Will you not then remember?
[156] ﺃَﻡ ﻟَﻜُﻢ ﺳُﻠﻄٰﻦٌ ﻣُﺒﻴﻦٌ
[156] না কি তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট
কোন দলীল রয়েছে?
[156] Or is there for you a plain
authority?
[157] ﻓَﺄﺗﻮﺍ ﺑِﻜِﺘٰﺒِﻜُﻢ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢ
ﺻٰﺪِﻗﻴﻦَ
[157] তোমরা সত্যবাদী হলে
তোমাদের কিতাব আন।
[157] Then bring your Book if you are
truthful!
[158] ﻭَﺟَﻌَﻠﻮﺍ ﺑَﻴﻨَﻪُ ﻭَﺑَﻴﻦَ
ﺍﻟﺠِﻨَّﺔِ ﻧَﺴَﺒًﺎ ۚ ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻋَﻠِﻤَﺖِ
ﺍﻟﺠِﻨَّﺔُ ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻟَﻤُﺤﻀَﺮﻭﻥَ
[158] তারা আল্লাহ ও জ্বিনদের মধ্যে
সম্পর্ক সাব্যস্ত করেছে, অথচ
জ্বিনেরা জানে যে, তারা গ্রেফতার
হয়ে আসবে।
[158] And they have invented a kinship
between Him and the jinn, but the jinn
know well that they have indeed to
appear (before Him) (i.e. they will be
brought for account).
[159] ﺳُﺒﺤٰﻦَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻋَﻤّﺎ ﻳَﺼِﻔﻮﻥَ
[159] তারা যা বলে তা থেকে আল্লাহ
পবিত্র।
[159] Glorified is Allâh! (He is Free) from
what they attribute unto Him!
[160] ﺇِﻟّﺎ ﻋِﺒﺎﺩَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﻤُﺨﻠَﺼﻴﻦَ
[160] তবে যারা আল্লাহর নিষ্ঠাবান
বান্দা, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে
না।
[160] Except the slaves of Allâh, whom
He choses (for His Mercy i.e. true
believers of Islâmic Monotheism who do
not attribute false things unto Allâh).
[161] ﻓَﺈِﻧَّﻜُﻢ ﻭَﻣﺎ ﺗَﻌﺒُﺪﻭﻥَ
[161] অতএব তোমরা এবং তোমরা
যাদের উপাসনা কর,
[161] So, verily you (pagans) and those
whom you worship (idols)
[162] ﻣﺎ ﺃَﻧﺘُﻢ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﺑِﻔٰﺘِﻨﻴﻦَ
[162] তাদের কাউকেই তোমরা আল্লাহ
সম্পর্কে বিভ্রান্ত করতে পারবে না।
[162] Cannot lead astray [turn away
from Him (Allâh) anyone of the
believers],
[163] ﺇِﻟّﺎ ﻣَﻦ ﻫُﻮَ ﺻﺎﻝِ
ﺍﻟﺠَﺤﻴﻢِ
[163] শুধুমাত্র তাদের ছাড়া যারা
জাহান্নামে পৌছাবে।
[163] Except those who are predestined
to burn in Hell!
[164] ﻭَﻣﺎ ﻣِﻨّﺎ ﺇِﻟّﺎ ﻟَﻪُ ﻣَﻘﺎﻡٌ
ﻣَﻌﻠﻮﻡٌ
[164] আমাদের প্রত্যেকের জন্য রয়েছে
নির্দিষ্ট স্থান।
[164] And there is not one of us (angels)
but has his known place (or position);
[165] ﻭَﺇِﻧّﺎ ﻟَﻨَﺤﻦُ ﺍﻟﺼّﺎﻓّﻮﻥَ
[165] এবং আমরাই সারিবদ্ধভাবে
দন্ডায়মান থাকি।
[165] Verily, we (angels), we stand in
rows (for the prayers as you Muslims
stand in rows for your prayers);
[166] ﻭَﺇِﻧّﺎ ﻟَﻨَﺤﻦُ ﺍﻟﻤُﺴَﺒِّﺤﻮﻥَ
[166] এবং আমরাই আল্লাহর পবিত্রতা
ঘোষণা করি।
[166] And verily, we (angels), indeed are
those who glorify (Allâh’s Praises i.e.
perform prayers).
[167] ﻭَﺇِﻥ ﻛﺎﻧﻮﺍ ﻟَﻴَﻘﻮﻟﻮﻥَ
[167] তারা তো বলতঃ
[167] And indeed they (Arab pagans)
used to say;
[168] ﻟَﻮ ﺃَﻥَّ ﻋِﻨﺪَﻧﺎ ﺫِﻛﺮًﺍ ﻣِﻦَ
ﺍﻷَﻭَّﻟﻴﻦَ
[168] যদি আমাদের কাছে
পূর্ববর্তীদের কোন উপদেশ থাকত,
[168] “If we had a reminder as had the
men of old (before the coming of Prophet
Muhammad SAW as a Messenger of
Allâh).
[169] ﻟَﻜُﻨّﺎ ﻋِﺒﺎﺩَ ﺍﻟﻠَّﻪِ
ﺍﻟﻤُﺨﻠَﺼﻴﻦَ
[169] তবে আমরা অবশ্যই আল্লাহর
মনোনীত বান্দা হতাম।
[169] “We would have indeed been the
chosen slaves of Allâh (true believers of
Islâmic Monotheism)!”
[170] ﻓَﻜَﻔَﺮﻭﺍ ﺑِﻪِ ۖ ﻓَﺴَﻮﻑَ
ﻳَﻌﻠَﻤﻮﻥَ
[170] বস্তুতঃ তারা এই কোরআনকে
অস্বীকার করেছে। এখন শীঘ্রই তারা
জেনে নিতে পারবে,
[170] But (now that the Qur’ân has come)
they disbelieve therein (i.e. in the Qur’ân
and in Prophet Muhammad SAW , and
all that he brought, the Divine
Revelation), so they will come to know!
[171] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺳَﺒَﻘَﺖ ﻛَﻠِﻤَﺘُﻨﺎ
ﻟِﻌِﺒﺎﺩِﻧَﺎ ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[171] আমার রাসূল ও বান্দাগণের
ব্যাপারে আমার এই বাক্য সত্য হয়েছে
যে,
[171] And, verily, Our Word has gone
forth of old for Our slaves, the
Messengers,
[172] ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻟَﻬُﻢُ ﺍﻟﻤَﻨﺼﻮﺭﻭﻥَ
[172] অবশ্যই তারা সাহায্য প্রাপ্ত হয়।
[172] That they verily would be made
triumphant.
[173] ﻭَﺇِﻥَّ ﺟُﻨﺪَﻧﺎ ﻟَﻬُﻢُ ﺍﻟﻐٰﻠِﺒﻮﻥَ
[173] আর আমার বাহিনীই হয় বিজয়ী।
[173] And that Our hosts, they verily
would be the victors.
[174] ﻓَﺘَﻮَﻝَّ ﻋَﻨﻬُﻢ ﺣَﺘّﻰٰ ﺣﻴﻦٍ
[174] অতএব আপনি কিছুকালের জন্যে
তাদেরকে উপেক্ষা করুন।
[174] So turn away (O Muhammad SAW)
from them for a while,
[175] ﻭَﺃَﺑﺼِﺮﻫُﻢ ﻓَﺴَﻮﻑَ
ﻳُﺒﺼِﺮﻭﻥَ
[175] এবং তাদেরকে দেখতে থাকুন।
শীঘ্রই তারাও এর পরিণাম দেখে
নেবে।
[175] And watch them and they shall see
(the punishment)!
[176] ﺃَﻓَﺒِﻌَﺬﺍﺑِﻨﺎ ﻳَﺴﺘَﻌﺠِﻠﻮﻥَ
[176] আমার আযাব কি তারা দ্রুত
কামনা করে?
[176] Do they seek to hasten on Our
Torment?
[177] ﻓَﺈِﺫﺍ ﻧَﺰَﻝَ ﺑِﺴﺎﺣَﺘِﻬِﻢ
ﻓَﺴﺎﺀَ ﺻَﺒﺎﺡُ ﺍﻟﻤُﻨﺬَﺭﻳﻦَ
[177] অতঃপর যখন তাদের আঙ্গিনায়
আযাব নাযিল হবে, তখন যাদেরকে
সতর্ক করা হয়েছিল, তাদের সকাল
বেলাটি হবে খুবই মন্দ।
[177] Then, when it descends into their
courtyard (i.e. near to them), evil will be
the morning for those who had been
warned!
[178] ﻭَﺗَﻮَﻝَّ ﻋَﻨﻬُﻢ ﺣَﺘّﻰٰ ﺣﻴﻦٍ
[178] আপনি কিছুকালের জন্যে
তাদেরকে উপেক্ষা করুন।
[178] So turn (O Muhammad SAW) away
from them for a while,
[179] ﻭَﺃَﺑﺼِﺮ ﻓَﺴَﻮﻑَ
ﻳُﺒﺼِﺮﻭﻥَ
[179] এবং দেখতে থাকুন, শীঘ্রই তারাও
এর পরিণাম দেখে নেবে।
[179] And watch and they shall see (the
torment)!
[180] ﺳُﺒﺤٰﻦَ ﺭَﺑِّﻚَ ﺭَﺏِّ ﺍﻟﻌِﺰَّﺓِ
ﻋَﻤّﺎ ﻳَﺼِﻔﻮﻥَ
[180] পবিত্র আপনার পরওয়ারদেগারের
সত্তা, তিনি সম্মানিত ও পবিত্র যা
তারা বর্ণনা করে তা থেকে।
[180] Glorified is your Lord, the Lord of
Honour and Power! (He is free) from
what they attribute unto Him!
[181] ﻭَﺳَﻠٰﻢٌ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻟﻤُﺮﺳَﻠﻴﻦَ
[181] পয়গম্বরগণের প্রতি সালাম বর্ষিত
হোক।
[181] And peace be on the Messengers!
[182] ﻭَﺍﻟﺤَﻤﺪُ ﻟِﻠَّﻪِ ﺭَﺏِّ ﺍﻟﻌٰﻠَﻤﻴﻦَ
[182] সমস্ত প্রশংসা বিশ্বপালক
আল্লাহর নিমিত্ত।
[182] And all the praises and thanks are
to Allâh, Lord of the ‘Alamîn (mankind,
jinn and all that exists).
*Surah Al Saffat Recitation: Sa’ad Al Ghamdi 1. শপথ তাদের যারা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ানো, 2. অতঃপর ধমকিয়ে ভীতি প্রদর্শনকারীদের, 3. অতঃপর মুখস্থ আবৃত্তিকারীদের- 4. নিশ্চয় তোমাদের মাবুদ এক। 5. তিনি আসমান সমূহ, যমীনও এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর পালনকর্তা এবং পালনকর্তা 6. নিশ্চয় আমি নিকটবর্তী আকাশকে তারকারাজির দ্বারা সুশোভিত করেছি। 7. এবং তাকে সংরক্ষিত করেছি প্রত্যেক অবাধ্য শয়তান থেকে। 8. ওরা উর্ধ্ব জগতের কোন কিছু শ্রবণ করতে পারে না এবং চার দিক থেকে তাদের প্রতি উল্কা নিক্ষেপ করা হয়। 9. ওদেরকে বিতাড়নের উদ্দেশে। ওদের জন্যে রয়েছে বিরামহীন শাস্তি। 10. তবে কেউ ছোঁ মেরে কিছু শুনে ফেললে জ্বলন্ত উল্কাপিন্ড তার পশ্চাদ্ধাবন করে। 11. আপনি তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন, তাদেরকে সৃষ্টি করা কঠিনতর, না আমি অন্য যা সৃষ্টি করেছি? আমিই তাদেরকে সৃষ্টি করেছি এঁটেল মাটি থেকে। 12. বরং আপনি বিস্ময় বোধ করেন আর তারা বিদ্রুপ করে। 13. যখন তাদেরকে বোঝানো হয়, তখন তারা বোঝে না। 14. তারা যখন কোন নিদর্শন দেখে তখন বিদ্রূপ করে। 15. এবং বলে, কিছুই নয়, এযে স্পষ্ট যাদু। 16. আমরা যখন মরে যাব, এবং মাটি ও হাড়ে পরিণত হয়ে যাব, তখনও কি আমরা পুনরুত্থিত হব? 17. আমাদের পিতৃপুরুষগণও কি? 18. বলুন, হ্যাঁ এবং তোমরা হবে লাঞ্ছিত। 19. বস্তুতঃ সে উত্থান হবে একটি বিকট শব্দ মাত্র- যখন তারা প্রত্যক্ষ করতে থাকবে। 20. এবং বলবে, দুর্ভাগ্য আমাদের! এটাই তো প্রতিফল দিবস। 21. বলা হবে, এটাই ফয়সালার দিন, যাকে তোমরা মিথ্যা বলতে। 22. একত্রিত কর গোনাহগারদেরকে, তাদের দোসরদেরকে এবং যাদের এবাদত তারা করত। 23. আল্লাহ ব্যতীত। অতঃপর তাদেরকে পরিচালিত কর জাহান্নামের পথে, 24. এবং তাদেরকে থামাও, তারা জিজ্ঞাসিত হবে; 25. তোমাদের কি হল যে, তোমরা একে অপরের সাহায্য করছ না? 26. বরং তারা আজকের দিনে আত্নসমর্পণকারী। 27. তারা একে অপরের দিকে মুখ করে পরস্পরকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে। 28. বলবে, তোমরা তো আমাদের কাছে ডান দিক থেকে আসতে। 29. তারা বলবে, বরং তোমরা তো বিশ্বাসীই ছিলে না। 30. এবং তোমাদের উপর আমাদের কোন কতৃত্ব ছিল না, বরং তোমরাই ছিলে সীমালংঘনকারী সম্প্রদায়। 31. আমাদের বিপক্ষে আমাদের পালনকর্তার উক্তিই সত্য হয়েছে। আমাদেরকে অবশই স্বাদ আস্বাদন করতে হবে। 32. আমরা তোমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিলাম। কারণ আমরা নিজেরাই পথভ্রষ্ট ছিলাম। 33. তারা সবাই সেদিন শান্তিতে শরীক হবে। 34. অপরাধীদের সাথে আমি এমনি ব্যবহার করে থাকি। 35. তাদের যখন বলা হত, আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য নই, তখন তারা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত। 36. এবং বলত, আমরা কি এক উম্মাদ কবির কথায় আমাদের উপাস্যদেরকে পরিত্যাগ করব। 37. না, তিনি সত্যসহ আগমন করেছেন এবং রসূলগণের সত্যতা স্বীকার করেছেন। 38. তোমরা অবশ্যই বেদনাদায়ক শাস্তি আস্বাদন করবে। 39. তোমরা যা করতে, তারই প্রতিফল পাবে। 40. তবে তারা নয়, যারা আল্লাহর বাছাই করা বান্দা। 41. তাদের জন্যে রয়েছে নির্ধারিত রুযি। 42. ফল-মূল এবং তারা সম্মানিত। 43. নেয়ামতের উদ্যানসমূহ। 44. মুখোমুখি হয়ে আসনে আসীন। 45. তাদেরকে ঘুরে ফিরে পরিবেশন করা হবে স্বচ্ছ পানপাত্র। 46. সুশুভ্র, যা পানকারীদের জন্যে সুস্বাদু। 47. তাতে মাথা ব্যথার উপাদান নেই এবং তারা তা পান করে মাতালও হবে না। 48. তাদের কাছে থাকবে নত, আয়তলোচনা তরুণীগণ। 49. যেন তারা সুরক্ষিত ডিম। 50. অতঃপর তারা একে অপরের দিকে মুখ করে জিজ্ঞাসাবাদ করবে। 51. তাদের একজন বলবে, আমার এক সঙ্গী ছিল। 52. সে বলত, তুমি কি বিশ্বাস কর যে, 53. আমরা যখন মরে যাব এবং মাটি ও হাড়ে পরিণত হব, তখনও কি আমরা প্রতিফল প্রাপ্ত হব? 54. আল্লাহ বলবেন, তোমরা কি তাকে উকি দিয়ে দেখতে চাও? 55. অপর সে উকি দিয়ে দেখবে এবং তাকে জাহান্নামের মাঝখানে দেখতে পাবে। 56. সে বলবে, আল্লাহর কসম, তুমি তো আমাকে প্রায় ধ্বংসই করে দিয়েছিলে। 57. আমার পালনকর্তার অনুগ্রহ না হলে আমিও যে গ্রেফতারকৃতদের সাথেই উপস্থিত হতাম। 58. এখন আমাদের আর মৃত্যু হবে না। 59. আমাদের প্রথম মৃত্যু ছাড়া এবং আমরা শাস্তি প্রাপ্তও হব না। 60. নিশ্চয় এই মহা সাফল্য। 61. এমন সাফল্যের জন্যে পরিশ্রমীদের পরিশ্রম করা উচিত। 62. এই কি উত্তম আপ্যায়ন, না যাক্কুম বৃক্ষ? 63. আমি যালেমদের জন্যে একে বিপদ করেছি। 64. এটি একটি বৃক্ষ, যা উদগত হয় জাহান্নামের মূলে। 65. এর গুচ্ছ শয়তানের মস্তকের মত। 66. কাফেররা একে ভক্ষণ করবে এবং এর দ্বারা উদর পূর্ণ করবে। 67. তদুপরি তাদেরকে দেয়া হবে। ফুটন্ত পানির মিশ্রণ, 68. অতঃপর তাদের প্রত্যাবর্তন হবে জাহান্নামের দিকে। 69. তারা তাদের পূর্বপুরুষদেরকে পেয়েছিল বিপথগামী। 70. অতঃপর তারা তদের পদাংক অনুসরণে তৎপর ছিল। 71. তাদের পূর্বেও অগ্রবর্তীদের অধিকাংশ বিপথগামী হয়েছিল। 72. আমি তাদের মধ্যে ভীতি প্রদর্শনকারী প্রেরণ করেছিলাম। 73. অতএব লক্ষ্য করুন, যাদেরকে ভীতিপ্রদর্শণ করা হয়েছিল, তাদের পরিণতি কি হয়েছে। 74. তবে আল্লাহর বাছাই করা বান্দাদের কথা ভিন্ন। 75. আর নূহ আমাকে ডেকেছিল। আর কি চমৎকারভাবে আমি তার ডাকে সাড়া দিয়েছিলাম। 76. আমি তাকে ও তার পরিবারবর্গকে এক মহাসংকট থেকে রক্ষা করেছিলাম। 77. এবং তার বংশধরদেরকেই আমি অবশিষ্ট রেখেছিলাম। 78. আমি তার জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে, 79. বিশ্ববাসীর মধ্যে নূহের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক। 80. আমি এভাবেই সৎকর্ম পরায়নদেরকে পুরস্কৃত করে থাকি। 81. সে ছিল আমার ঈমানদার বান্দাদের অন্যতম। 82. অতঃপর আমি অপরাপর সবাইকে নিমজ্জত করেছিলাম। 83. আর নূহ পন্থীদেরই একজন ছিল ইব্রাহীম। 84. যখন সে তার পালনকর্তার নিকট সুষ্ঠু চিত্তে উপস্থিত হয়েছিল, 85. যখন সে তার পিতা ও সম্প্রদায়কে বলেছিলঃ তোমরা কিসের উপাসনা করছ? 86. তোমরা কি আল্লাহ ব্যতীত মিথ্যা উপাস্য কামনা করছ? 87. বিশ্বজগতের পালনকর্তা সম্পর্কে তোমাদের ধারণা কি? 88. অতঃপর সে একবার তারকাদের প্রতি লক্ষ্য করল। 89. এবং বললঃ আমি পীড়িত। 90. অতঃপর তারা তার প্রতি পিঠ ফিরিয়ে চলে গেল। 91. অতঃপর সে তাদের দেবালয়ে, গিয়ে ঢুকল এবং বললঃ তোমরা খাচ্ছ না কেন? 92. তোমাদের কি হল যে, কথা বলছ না? 93. অতঃপর সে প্রবল আঘাতে তাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল। 94. তখন লোকজন তার দিকে ছুটে এলো ভীত-সন্ত্রস্ত পদে। 95. সে বললঃ তোমরা স্বহস্ত নির্মিত পাথরের পূজা কর কেন? 96. অথচ আল্লাহ তোমাদেরকে এবং তোমরা যা নির্মাণ করছ সবাইকে সৃষ্টি করেছেন। 97. তারা বললঃ এর জন্যে একটি ভিত নির্মাণ কর এবং অতঃপর তাকে আগুনের স্তুপে নিক্ষেপ কর। 98. তারপর তারা তার বিরুদ্ধে মহা ষড়যন্ত্র আঁটতে চাইল, কিন্তু আমি তাদেরকেই পরাভূত করে দিলাম। 99. সে বললঃ আমি আমার পালনকর্তার দিকে চললাম, তিনি আমাকে পথপ্রদর্শন করবেন। 100. হে আমার পরওয়ারদেগার! আমাকে এক সৎপুত্র দান কর। 101. সুতরাং আমি তাকে এক সহনশীল পুত্রের সুসংবাদ দান করলাম। 102. অতঃপর সে যখন পিতার সাথে চলাফেরা করার বয়সে উপনীত হল, তখন ইব্রাহীম তাকে বললঃ বৎস! আমি স্বপ্নে দেখিযে, তোমাকে যবেহ করছি; এখন তোমার অভিমত কি দেখ। সে বললঃ পিতাঃ! আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, তাই করুন। আল্লাহ চাহে তো আপনি আমাকে সবরকারী পাবেন। 103. যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইব্রাহীম তাকে যবেহ করার জন্যে শায়িত করল। 104. তখন আমি তাকে ডেকে বললামঃ হে ইব্রাহীম, 105. তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে! আমি এভাবেই সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। 106. নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা। 107. আমি তার পরিবর্তে দিলাম যবেহ করার জন্যে এক মহান জন্তু। 108. আমি তার জন্যে এ বিষয়টি পরবর্তীদের মধ্যে রেখে দিয়েছি যে, 109. ইব্রাহীমের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক। 110. এমনিভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। 111. সে ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের একজন। 112. আমি তাকে সুসংবাদ দিয়েছি ইসহাকের, সে সৎকর্মীদের মধ্য থেকে একজন নবী। 113. তাকে এবং ইসহাককে আমি বরকত দান করেছি। তাদের বংশধরদের মধ্যে কতক সৎকর্মী এবং কতক নিজেদের উপর স্পষ্ট জুলুমকারী। 114. আমি অনুগ্রহ করেছিলাম মূসা ও হারুনের প্রতি। 115. তাদেরকে ও তাদের সম্প্রদায়কে উদ্ধার করেছি মহা সংকট থেকে। 116. আমি তাদেরকে সাহায্য করেছিলাম, ফলে তারাই ছিল বিজয়ী। 117. আমি উভয়কে দিয়েছিলাম সুস্পষ্ট কিতাব। 118. এবং তাদেরকে সরল পথ প্রদর্শন করেছিলাম। 119. আমি তাদের জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে, 120. মূসা ও হারুনের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক। 121. এভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। 122. তারা উভয়েই ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের অন্যতম। 123. নিশ্চয়ই ইলিয়াস ছিল রসূল। 124. যখন সে তার সম্প্রদায়কে বললঃ তোমরা কি ভয় কর না ? 125. তোমরা কি বা’আল দেবতার এবাদত করবে এবং সর্বোত্তম স্রষ্টাকে পরিত্যাগ করবে। 126. যিনি আল্লাহ তোমাদের পালনকর্তা এবং তোমাদের পূর্বপুরুষদের পালনকর্তা? 127. অতঃপর তারা তাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করল। অতএব তারা অবশ্যই গ্রেফতার হয়ে আসবে। 128. কিন্তু আল্লাহ তা’আলার খাঁটি বান্দাগণ নয়। 129. আমি তার জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয়ে রেখে দিয়েছি যে, 130. ইলিয়াসের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক! 131. এভাবেই আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। 132. সে ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত। 133. নিশ্চয় লূত ছিলেন রসূলগণের একজন। 134. যখন আমি তাকেও তার পরিবারের সবাইকে উদ্ধার করেছিলাম; 135. কিন্তু এক বৃদ্ধাকে ছাড়া; সে অন্যান্যদের সঙ্গে থেকে গিয়েছিল। 136. অতঃপর অবশিষ্টদেরকে আমি সমূলে উৎপাটিত করেছিলাম। 137. তোমরা তোমাদের ধ্বংস স্তুপের উপর দিয়ে গমন কর ভোর বেলায় 138. এবং সন্ধ্যায়, তার পরেও কি তোমরা বোঝ না? 139. আর ইউনুসও ছিলেন পয়গম্বরগণের একজন। 140. যখন পালিয়ে তিনি বোঝাই নৌকায় গিয়ে পৌঁছেছিলেন। 141. অতঃপর লটারী (সুরতি) করালে তিনি দোষী সাব্যস্ত হলেন। 142. অতঃপর একটি মাছ তাঁকে গিলে ফেলল, তখন তিনি অপরাধী গণ্য হয়েছিলেন। 143. যদি তিনি আল্লাহর তসবীহ পাঠ না করতেন, 144. তবে তাঁকে কেয়ামত দিবস পর্যন্ত মাছের পেটেই থাকতে হত। 145. অতঃপর আমি তাঁকে এক বিস্তীর্ণ-বিজন প্রান্তরে নিক্ষেপ করলাম, তখন তিনি ছিলেন রুগ্ন। 146. আমি তাঁর উপর এক লতাবিশিষ্ট বৃক্ষ উদগত করলাম। 147. এবং তাঁকে, লক্ষ বা ততোধিক লোকের প্রতি প্রেরণ করলাম। 148. তারা বিশ্বাস স্থাপন করল অতঃপর আমি তাদেরকে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত জীবনোপভোগ করতে দিলাম। 149. এবার তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন, তোমার পালনকর্তার জন্যে কি কন্যা সন্তান রয়েছে এবং তাদের জন্যে কি পুত্র- সন্তান। 150. না কি আমি তাদের উপস্থিতিতে ফেরেশতাগণকে নারীরূপে সৃষ্টি করেছি? 151. জেনো, তারা মনগড়া উক্তি করে যে, 152. আল্লাহ সন্তান জন্ম দিয়েছেন। নিশ্চয় তারা মিথ্যাবাদী। 153. তিনি কি পুত্র-সন্তানের স্থলে কন্যা-সন্তান পছন্দ করেছেন? 154. তোমাদের কি হল? তোমাদের এ কেমন সিন্ধান্ত? 155. তোমরা কি অনুধাবন কর না? 156. না কি তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট কোন দলীল রয়েছে? 157. তোমরা সত্যবাদী হলে তোমাদের কিতাব আন। 158. তারা আল্লাহ ও জ্বিনদের মধ্যে সম্পর্ক সাব্যস্ত করেছে, অথচ জ্বিনেরা জানে যে, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে। 159. তারা যা বলে তা থেকে আল্লাহ পবিত্র। 160. তবে যারা আল্লাহর নিষ্ঠাবান বান্দা, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে না। 161. অতএব তোমরা এবং তোমরা যাদের উপাসনা কর, 162. তাদের কাউকেই তোমরা আল্লাহ সম্পর্কে বিভ্রান্ত করতে পারবে না। 163. শুধুমাত্র তাদের ছাড়া যারা জাহান্নামে পৌছাবে। 164. আমাদের প্রত্যেকের জন্য রয়েছে নির্দিষ্ট স্থান। 165. এবং আমরাই সারিবদ্ধভাবে দন্ডায়মান থাকি। 166. এবং আমরাই আল্লাহর পবিত্রতা ঘোষণা করি। 167. তারা তো বলতঃ 168. যদি আমাদের কাছে পূর্ববর্তীদের কোন উপদেশ থাকত, 169. তবে আমরা অবশ্যই আল্লাহর মনোনীত বান্দা হতাম। 170. বস্তুতঃ তারা এই কোরআনকে অস্বীকার করেছে। এখন শীঘ্রই তারা জেনে নিতে পারবে, 171. আমার রাসূল ও বান্দাগণের ব্যাপারে আমার এই বাক্য সত্য হয়েছে যে, 172. অবশ্যই তারা সাহায্য প্রাপ্ত হয়। 173. আর আমার বাহিনীই হয় বিজয়ী। 174. অতএব আপনি কিছুকালের জন্যে তাদেরকে উপেক্ষা করুন। 175. এবং তাদেরকে দেখতে থাকুন। শীঘ্রই তারাও এর পরিণাম দেখে নেবে। 176. আমার আযাব কি তারা দ্রুত কামনা করে? 177. অতঃপর যখন তাদের আঙ্গিনায় আযাব নাযিল হবে, তখন যাদেরকে সতর্ক করা হয়েছিল, তাদের সকাল বেলাটি হবে খুবই মন্দ। 178. আপনি কিছুকালের জন্যে তাদেরকে উপেক্ষা করুন। 179. এবং দেখতে থাকুন, শীঘ্রই তারাও এর পরিণাম দেখে নেবে। 180. পবিত্র আপনার পরওয়ারদেগারের সত্তা, তিনি সম্মানিত ও পবিত্র যা তারা বর্ণনা করে তা থেকে। 181. পয়গম্বরগণের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক। 182. সমস্ত প্রশংসা বিশ্বপালক আল্লাহর নিমিত্ত। *********

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s