54. সুরাহ আল কমার (01-55)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম
করুণাময়, অতি দয়ালু
[1] ﺍﻗﺘَﺮَﺑَﺖِ ﺍﻟﺴّﺎﻋَﺔُ ﻭَﺍﻧﺸَﻖَّ
ﺍﻟﻘَﻤَﺮُ
[1] কেয়ামত আসন্ন, চন্দ্র বিদীর্ণ
হয়েছে।
[1] The Hour has drawn near, and the
moon has been cleft asunder (the people
of Makkah requested Prophet
Muhammad SAW to show them a
miracle, so he showed them the splitting
of the moon).
[2] ﻭَﺇِﻥ ﻳَﺮَﻭﺍ ﺀﺍﻳَﺔً ﻳُﻌﺮِﺿﻮﺍ
ﻭَﻳَﻘﻮﻟﻮﺍ ﺳِﺤﺮٌ ﻣُﺴﺘَﻤِﺮٌّ
[2] তারা যদি কোন নিদর্শন দেখে
তবে মুখ ফিরিয়ে নেয় এবং বলে, এটা
তো চিরাগত জাদু।
[2] And if they see a sign, they turn
away, and say: “This is continuous
magic.”
[3] ﻭَﻛَﺬَّﺑﻮﺍ ﻭَﺍﺗَّﺒَﻌﻮﺍ ﺃَﻫﻮﺍﺀَﻫُﻢ ۚ
ﻭَﻛُﻞُّ ﺃَﻣﺮٍ ﻣُﺴﺘَﻘِﺮٌّ
[3] তারা মিথ্যারোপ করছে এবং
নিজেদের খেয়াল-খুশীর অনুসরণ করছে।
প্রত্যেক কাজ যথাসময়ে স্থিরীকৃত হয়।
[3] They belied (the Verses of Allâh, this
Qur’ân), and followed their own lusts.
And every matter will be settled
[according to the kind of deeds (good
deeds will take their doers to Paradise,
and similarly evil deeds will take their
doers to Hell)].
[4] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺟﺎﺀَﻫُﻢ ﻣِﻦَ ﺍﻷَﻧﺒﺎﺀِ
ﻣﺎ ﻓﻴﻪِ ﻣُﺰﺩَﺟَﺮٌ
[4] তাদের কাছে এমন সংবাদ এসে
গেছে, যাতে সাবধানবাণী রয়েছে।
[4] And indeed there has come to them
news (in this Qur’ân) wherein there is
(enough warning) to check (them from
evil),
[5] ﺣِﻜﻤَﺔٌ ﺑٰﻠِﻐَﺔٌ ۖ ﻓَﻤﺎ ﺗُﻐﻦِ
ﺍﻟﻨُّﺬُﺭُ
[5] এটা পরিপূর্ণ জ্ঞান, তবে
সতর্ককারীগণ তাদের কোন উপকারে
আসে না।
[5] Perfect wisdom (this Qur’ân), but (the
preaching of) warners benefit them not,
[6] ﻓَﺘَﻮَﻝَّ ﻋَﻨﻬُﻢ ۘ ﻳَﻮﻡَ ﻳَﺪﻉُ
ﺍﻟﺪّﺍﻉِ ﺇِﻟﻰٰ ﺷَﻲﺀٍ ﻧُﻜُﺮٍ
[6] অতএব, আপনি তাদের থেকে মুখ
ফিরিয়ে নিন। যেদিন আহবানকারী
আহবান করবে এক অপ্রিয় পরিণামের
দিকে,
[6] So (O Muhammad SAW) withdraw
from them. The Day that the caller will
call (them) to a terrible thing.
[7] ﺧُﺸَّﻌًﺎ ﺃَﺑﺼٰﺮُﻫُﻢ ﻳَﺨﺮُﺟﻮﻥَ
ﻣِﻦَ ﺍﻷَﺟﺪﺍﺙِ ﻛَﺄَﻧَّﻬُﻢ ﺟَﺮﺍﺩٌ
ﻣُﻨﺘَﺸِﺮٌ
[7] তারা তখন অবনমিত নেত্রে কবর
থেকে বের হবে বিক্ষিপ্ত পংগপাল
সদৃশ।
[7] They will come forth, with humbled
eyes from (their) graves as if they were
locusts spread abroad,
[8] ﻣُﻬﻄِﻌﻴﻦَ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﺪّﺍﻉِ ۖ
ﻳَﻘﻮﻝُ ﺍﻟﻜٰﻔِﺮﻭﻥَ ﻫٰﺬﺍ ﻳَﻮﻡٌ
ﻋَﺴِﺮٌ
[8] তারা আহবানকারীর দিকে
দৌড়াতে থাকবে। কাফেরা বলবেঃ
এটা কঠিন দিন।
[8] Hastening towards The caller, the
disbelievers will say: “This is a hard
Day.”
[9] ۞ ﻛَﺬَّﺑَﺖ ﻗَﺒﻠَﻬُﻢ ﻗَﻮﻡُ
ﻧﻮﺡٍ ﻓَﻜَﺬَّﺑﻮﺍ ﻋَﺒﺪَﻧﺎ ﻭَﻗﺎﻟﻮﺍ
ﻣَﺠﻨﻮﻥٌ ﻭَﺍﺯﺩُﺟِﺮَ
[9] তাদের পূর্বে নূহের সম্প্রদায়ও
মিথ্যারোপ করেছিল। তারা
মিথ্যারোপ করেছিল আমার বান্দা
নূহের প্রতি এবং বলেছিলঃ এ তো
উম্মাদ। তাঁরা তাকে হুমকি প্রদর্শন
করেছিল।
[9] The people of Nûh (Noah) denied
(their Messenger) before them, They
rejected Our slave, and said: “A
madman!” and he was insolently
rebuked and threatened.
[10] ﻓَﺪَﻋﺎ ﺭَﺑَّﻪُ ﺃَﻧّﻰ ﻣَﻐﻠﻮﺏٌ
ﻓَﺎﻧﺘَﺼِﺮ
[10] অতঃপর সে তার পালনকর্তাকে
ডেকে বললঃ আমি অক্ষম, অতএব, তুমি
প্রতিবিধান কর।
[10] Then he invoked his Lord (saying):
“I have been overcome, so help (me)!”
[11] ﻓَﻔَﺘَﺤﻨﺎ ﺃَﺑﻮٰﺏَ ﺍﻟﺴَّﻤﺎﺀِ
ﺑِﻤﺎﺀٍ ﻣُﻨﻬَﻤِﺮٍ
[11] তখন আমি খুলে দিলাম আকাশের
দ্বার প্রবল বারিবর্ষণের মাধ্যমে।
[11] So We opened the gates of heaven
with water pouring forth.
[12] ﻭَﻓَﺠَّﺮﻧَﺎ ﺍﻷَﺭﺽَ ﻋُﻴﻮﻧًﺎ
ﻓَﺎﻟﺘَﻘَﻰ ﺍﻟﻤﺎﺀُ ﻋَﻠﻰٰ ﺃَﻣﺮٍ ﻗَﺪ
ﻗُﺪِﺭَ
[12] এবং ভুমি থেকে প্রবাহিত করলাম
প্রস্রবণ। অতঃপর সব পানি মিলিত হল
এক পরিকম্পিত কাজে।
[12] And We caused the spring to gush
forth from the earth. So the waters (of
the heaven and the earth) met for a
matter predestined
[13] ﻭَﺣَﻤَﻠﻨٰﻪُ ﻋَﻠﻰٰ ﺫﺍﺕِ ﺃَﻟﻮٰﺡٍ
ﻭَﺩُﺳُﺮٍ
[13] আমি নূহকে আরোহণ করালাম এক
কাষ্ঠ ও পেরেক নির্মিত জলযানে।
[13] And We carried him on a (ship)
made of planks and nails,
[14] ﺗَﺠﺮﻯ ﺑِﺄَﻋﻴُﻨِﻨﺎ ﺟَﺰﺍﺀً ﻟِﻤَﻦ
ﻛﺎﻥَ ﻛُﻔِﺮَ
[14] যা চলত আমার দৃষ্টি সামনে। এটা
তার পক্ষ থেকে প্রতিশোধ ছিল,
যাকে প্রত্যখ্যান করা হয়েছিল।
[14] Floating under Our Eyes, a reward
for him who had been rejected!
[15] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺗَﺮَﻛﻨٰﻬﺎ ﺀﺍﻳَﺔً ﻓَﻬَﻞ
ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[15] আমি একে এক নিদর্শনরূপে রেখে
দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল
আছে কি?
[15] And indeed, We have left this as a
sign, Then is there any that will
remember (or receive admonition)?
[16] ﻓَﻜَﻴﻒَ ﻛﺎﻥَ ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[16] কেমন কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও
সতর্কবাণী।
[16] Then how (terrible) was My Torment
and My Warnings?
[17] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻳَﺴَّﺮﻧَﺎ ﺍﻟﻘُﺮﺀﺍﻥَ
ﻟِﻠﺬِّﻛﺮِ ﻓَﻬَﻞ ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[17] আমি কোরআনকে সহজ করে
দিয়েছি বোঝার জন্যে। অতএব, কোন
চিন্তাশীল আছে কি?
[17] And We have indeed made the
Qur’ân easy to understand and
remember, then is there any one who
will remember (or receive admonition)?
[18] ﻛَﺬَّﺑَﺖ ﻋﺎﺩٌ ﻓَﻜَﻴﻒَ ﻛﺎﻥَ
ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[18] আদ সম্প্রদায় মিথ্যারোপ
করেছিল, অতঃপর কেমন কঠোর
হয়েছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী।
[18] ‘Ad (people) belied (their Prophet,
Hûd), then how (terrible) was My
Torment and My Warnings?
[19] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﺭﺳَﻠﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺭﻳﺤًﺎ
ﺻَﺮﺻَﺮًﺍ ﻓﻰ ﻳَﻮﻡِ ﻧَﺤﺲٍ
ﻣُﺴﺘَﻤِﺮٍّ
[19] আমি তাদের উপর প্রেরণ
করেছিলাম ঝঞ্জাবায়ু এক চিরাচরিত
অশুভ দিনে।
[19] Verily, We sent against them a
furious wind of harsh voice on a day of
evil omen and continuous calamity.
[20] ﺗَﻨﺰِﻉُ ﺍﻟﻨّﺎﺱَ ﻛَﺄَﻧَّﻬُﻢ
ﺃَﻋﺠﺎﺯُ ﻧَﺨﻞٍ ﻣُﻨﻘَﻌِﺮٍ
[20] তা মানুষকে উৎখাত করছিল, যেন
তারা উৎপাটিত খর্জুর বৃক্ষের কান্ড।
[20] Plucking out men as if they were
uprooted stems of date-palms.
[21] ﻓَﻜَﻴﻒَ ﻛﺎﻥَ ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[21] অতঃপর কেমন কঠোর ছিল আমার
শাস্তি ও সতর্কবাণী।
[21] Then, how (terrible) was My
Torment and My Warnings?
[22] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻳَﺴَّﺮﻧَﺎ ﺍﻟﻘُﺮﺀﺍﻥَ
ﻟِﻠﺬِّﻛﺮِ ﻓَﻬَﻞ ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[22] আমি কোরআনকে বোঝার জন্যে
সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন
চিন্তাশীল আছে কি?
[22] And We have indeed made the
Qur’ân easy to understand and
remember, then is there any that will
remember (or receive admonition)?
[23] ﻛَﺬَّﺑَﺖ ﺛَﻤﻮﺩُ ﺑِﺎﻟﻨُّﺬُﺭِ
[23] সামুদ সম্প্রদায় সতর্ককারীদের
প্রতি মিথ্যারোপ করেছিল।
[23] Thamûd (people also) belied the
warnings.
[24] ﻓَﻘﺎﻟﻮﺍ ﺃَﺑَﺸَﺮًﺍ ﻣِﻨّﺎ ﻭٰﺣِﺪًﺍ
ﻧَﺘَّﺒِﻌُﻪُ ﺇِﻧّﺎ ﺇِﺫًﺍ ﻟَﻔﻰ ﺿَﻠٰﻞٍ
ﻭَﺳُﻌُﺮٍ
[24] তারা বলেছিলঃ আমরা কি
আমাদেরই একজনের অনুসরণ করব? তবে
তো আমরা বিপথগামী ও বিকার
গ্রস্থরূপে গণ্য হব।
[24] And they said: “A man, alone among
us — shall we follow him? Truly, then we
should be in error and distress or
madness!”
[25] ﺃَﺀُﻟﻘِﻰَ ﺍﻟﺬِّﻛﺮُ ﻋَﻠَﻴﻪِ ﻣِﻦ
ﺑَﻴﻨِﻨﺎ ﺑَﻞ ﻫُﻮَ ﻛَﺬّﺍﺏٌ ﺃَﺷِﺮٌ
[25] আমাদের মধ্যে কি তারই প্রতি
উপদেশ নাযিল করা হয়েছে? বরং সে
একজন মিথ্যাবাদী, দাম্ভিক।
[25] “Is it that the Reminder is sent to
him [Prophet Sâlih A.S.] alone from
among us? Nay, he is an insolent liar!”
[26] ﺳَﻴَﻌﻠَﻤﻮﻥَ ﻏَﺪًﺍ ﻣَﻦِ
ﺍﻟﻜَﺬّﺍﺏُ ﺍﻷَﺷِﺮُ
[26] এখন আগামীকল্যই তারা জানতে
পারবে কে মিথ্যাবাদী, দাম্ভিক।
[26] Tomorrow they will come to know,
who is the liar, the insolent one!
[27] ﺇِﻧّﺎ ﻣُﺮﺳِﻠُﻮﺍ ﺍﻟﻨّﺎﻗَﺔِ ﻓِﺘﻨَﺔً
ﻟَﻬُﻢ ﻓَﺎﺭﺗَﻘِﺒﻬُﻢ ﻭَﺍﺻﻄَﺒِﺮ
[27] আমি তাদের পরীক্ষার জন্য এক
উষ্ট্রী প্রেরণ করব, অতএব, তাদের
প্রতি লক্ষ্য রাখ এবং সবর কর।
[27] Verily, We are sending the she-
camel as a test for them. So watch them
[O Sâlih (Saleh) A.S.], and be patient!
[28] ﻭَﻧَﺒِّﺌﻬُﻢ ﺃَﻥَّ ﺍﻟﻤﺎﺀَ ﻗِﺴﻤَﺔٌ
ﺑَﻴﻨَﻬُﻢ ۖ ﻛُﻞُّ ﺷِﺮﺏٍ ﻣُﺤﺘَﻀَﺮٌ
[28] এবং তাদেরকে জানিয়ে দাও যে,
তাদের মধ্যে পানির পালা নির্ধারিত
হয়েছে এবং পালাক্রমে উপস্থিত হতে
হবে।
[28] And inform them that the water is
to be shared between (her and) them.
each one’s right to drink being
established (by turns).
[29] ﻓَﻨﺎﺩَﻭﺍ ﺻﺎﺣِﺒَﻬُﻢ
ﻓَﺘَﻌﺎﻃﻰٰ ﻓَﻌَﻘَﺮَ
[29] অতঃপর তারা তাদের সঙ্গীকে
ডাকল। সে তাকে ধরল এবং বধ করল।
[29] But they called their comrade and
he took (a sword) and killed (her).
[30] ﻓَﻜَﻴﻒَ ﻛﺎﻥَ ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[30] অতঃপর কেমন কঠোর ছিল আমার
শাস্তি ও সতর্কবাণী।
[30] Then, how (terrible) was My
Torment and My Warnings?
[31] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﺭﺳَﻠﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺻَﻴﺤَﺔً
ﻭٰﺣِﺪَﺓً ﻓَﻜﺎﻧﻮﺍ ﻛَﻬَﺸﻴﻢِ
ﺍﻟﻤُﺤﺘَﻈِﺮِ
[31] আমি তাদের প্রতি একটিমাত্র
নিনাদ প্রেরণ করেছিলাম। এতেই
তারা হয়ে গেল শুষ্ক শাখাপল্লব
নির্মিত দলিত খোয়াড়ের ন্যায়।
[31] Verily, We sent against them a
single Saîhah (torment – awful cry), and
they became like the stubble of a fold-
builder.
[32] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻳَﺴَّﺮﻧَﺎ ﺍﻟﻘُﺮﺀﺍﻥَ
ﻟِﻠﺬِّﻛﺮِ ﻓَﻬَﻞ ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[32] আমি কোরআনকে বোঝার জন্যে
সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন
চিন্তাশীল আছে কি?
[32] And indeed, We have made the
Qur’ân easy to understand and
remember, then is there any that will
remember (or receive admonition)?
[33] ﻛَﺬَّﺑَﺖ ﻗَﻮﻡُ ﻟﻮﻁٍ ﺑِﺎﻟﻨُّﺬُﺭِ
[33] লূত-সম্প্রদায় সতর্ককারীদের প্রতি
মিথ্যারোপ করেছিল।
[33] The people of Lut (Lot) belied the
warnings.
[34] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﺭﺳَﻠﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺣﺎﺻِﺒًﺎ
ﺇِﻟّﺎ ﺀﺍﻝَ ﻟﻮﻁٍ ۖ ﻧَﺠَّﻴﻨٰﻬُﻢ
ﺑِﺴَﺤَﺮٍ
[34] আমি তাদের প্রতি প্রেরণ
করেছিলাম প্রস্তর বর্ষণকারী প্রচন্ড
ঘূর্ণিবায়ু; কিন্তু লূত পরিবারের উপর
নয়। আমি তাদেরকে রাতের শেষপ্রহরে
উদ্ধার করেছিলাম।
[34] Verily, We sent against them a
violent storm of stones (which destroyed
them all), except the family of Lut (Lot),
them We saved in last hour of the night,
[35] ﻧِﻌﻤَﺔً ﻣِﻦ ﻋِﻨﺪِﻧﺎ ۚ ﻛَﺬٰﻟِﻚَ
ﻧَﺠﺰﻯ ﻣَﻦ ﺷَﻜَﺮَ
[35] আমার পক্ষ থেকে অনুগ্রহ স্বরূপ।
যারা কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে, আমি
তাদেরকে এভাবে পুরস্কৃত করে থকি।
[35] As a Favour from Us, Thus do We
reward him who gives thanks (by
obeying Us)
[36] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺃَﻧﺬَﺭَﻫُﻢ ﺑَﻄﺸَﺘَﻨﺎ
ﻓَﺘَﻤﺎﺭَﻭﺍ ﺑِﺎﻟﻨُّﺬُﺭِ
[36] লূত (আঃ) তাদেরকে আমার প্রচন্ড
পাকড়াও সম্পর্কে সতর্ক করেছিল।
অতঃপর তারা সতর্কবাণী সম্পর্কে
বাকবিতন্ডা করেছিল।
[36] And he [Lut (Lot)] indeed had
warned them of Our Seizure
(punishment), but they did doubt the
warnings!
[37] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺭٰﻭَﺩﻭﻩُ ﻋَﻦ ﺿَﻴﻔِﻪِ
ﻓَﻄَﻤَﺴﻨﺎ ﺃَﻋﻴُﻨَﻬُﻢ ﻓَﺬﻭﻗﻮﺍ
ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[37] তারা লূতের (আঃ) কাছে তার
মেহমানদেরকে দাবী করেছিল। তখন
আমি তাদের চক্ষু লোপ করে দিলাম।
অতএব, আস্বাদন কর আমার শাস্তি ও
সতর্কবাণী।
[37] And they indeed sought to shame his
guest (by asking to commit sodomy with
them). So We blinded their eyes, (saying)
“Then taste you My Torment and My
Warnings.”
[38] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺻَﺒَّﺤَﻬُﻢ ﺑُﻜﺮَﺓً
ﻋَﺬﺍﺏٌ ﻣُﺴﺘَﻘِﺮٌّ
[38] তাদেরকে প্রত্যুষে নির্ধারিত
শাস্তি আঘাত হেনেছিল।
[38] And verily, an abiding torment
seized them early in the morning.
[39] ﻓَﺬﻭﻗﻮﺍ ﻋَﺬﺍﺑﻰ ﻭَﻧُﺬُﺭِ
[39] অতএব, আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী
আস্বাদন কর।
[39] “Then taste you My Torment and My
Warnings.”
[40] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﻳَﺴَّﺮﻧَﺎ ﺍﻟﻘُﺮﺀﺍﻥَ
ﻟِﻠﺬِّﻛﺮِ ﻓَﻬَﻞ ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[40] আমি কোরআনকে বোঝবার
জন্যে সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন
চিন্তাশীল আছে কি?
[40] And indeed, We have made the
Qur’ân easy to understand and
remember, then is there any that will
remember (or receive admonition)?
[41] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺟﺎﺀَ ﺀﺍﻝَ ﻓِﺮﻋَﻮﻥَ
ﺍﻟﻨُّﺬُﺭُ
[41] ফেরাউন সম্প্রদায়ের কাছেও
সতর্ককারীগণ আগমন করেছিল।
[41] And indeed, warnings came to the
people of Fir’aun (Pharaoh) [through
Mûsa (Moses) and Hârûn (Aaron)].
[42] ﻛَﺬَّﺑﻮﺍ ﺑِـٔﺎﻳٰﺘِﻨﺎ ﻛُﻠِّﻬﺎ
ﻓَﺄَﺧَﺬﻧٰﻬُﻢ ﺃَﺧﺬَ ﻋَﺰﻳﺰٍ ﻣُﻘﺘَﺪِﺭٍ
[42] তারা আমার সকল নিদর্শনের প্রতি
মিথ্যারোপ করেছিল। অতঃপর আমি
পরাভূতকারী, পরাক্রমশালীর ন্যায়
তাদেরকে পাকড়াও করলাম।
[42] (They) belied all Our Signs, so We
seized them with a Seizure of the All-
Mighty, All-Capable (Omnipotent).
[43] ﺃَﻛُﻔّﺎﺭُﻛُﻢ ﺧَﻴﺮٌ ﻣِﻦ ﺃُﻭﻟٰﺌِﻜُﻢ
ﺃَﻡ ﻟَﻜُﻢ ﺑَﺮﺍﺀَﺓٌ ﻓِﻰ ﺍﻟﺰُّﺑُﺮِ
[43] তোমাদের মধ্যকার কাফেররা কি
তাদের চাইতে শ্রেষ্ঠ ? না তোমাদের
মুক্তির সনদপত্র রয়েছে কিতাবসমূহে?
[43] Are your disbelievers (O Quraish!)
better than these [nations of Nûh (Noah),
Lut (Lot), Sâlih, and the people of Fir’aun
(Pharaoh), who were destroyed)? Or have
you an immunity (against Our Torment)
in the Divine Scriptures?
[44] ﺃَﻡ ﻳَﻘﻮﻟﻮﻥَ ﻧَﺤﻦُ ﺟَﻤﻴﻊٌ
ﻣُﻨﺘَﺼِﺮٌ
[44] না তারা বলে যে, আমারা এক
অপরাজেয় দল?
[44] Or say they: “We are a great
multitude, victorious.?”
[45] ﺳَﻴُﻬﺰَﻡُ ﺍﻟﺠَﻤﻊُ ﻭَﻳُﻮَﻟّﻮﻥَ
ﺍﻟﺪُّﺑُﺮَ
[45] এ দল তো সত্ত্বরই পরাজিত হবে
এবং পৃষ্ঠপ্রদর্শন করবে।
[45] Their multitude will be put to flight,
and they will show their backs.
[46] ﺑَﻞِ ﺍﻟﺴّﺎﻋَﺔُ ﻣَﻮﻋِﺪُﻫُﻢ
ﻭَﺍﻟﺴّﺎﻋَﺔُ ﺃَﺩﻫﻰٰ ﻭَﺃَﻣَﺮُّ
[46] বরং কেয়ামত তাদের প্রতিশ্রুত
সময় এবং কেয়ামত ঘোরতর বিপদ ও
তিক্ততর।
[46] Nay, but the Hour is their appointed
time (for their full recompense), and the
Hour will be more grievous and more
bitter.
[47] ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻤُﺠﺮِﻣﻴﻦَ ﻓﻰ ﺿَﻠٰﻞٍ
ﻭَﺳُﻌُﺮٍ
[47] নিশ্চয় অপরাধীরা পথভ্রষ্ট ও
বিকারগ্রস্ত।
[47] Verily, the Mujrimûn (polytheists,
disbelievers, sinners, criminals) are in
error (in this world) and will burn (in
the Hell-fire in the Hereafter).
[48] ﻳَﻮﻡَ ﻳُﺴﺤَﺒﻮﻥَ ﻓِﻰ ﺍﻟﻨّﺎﺭِ
ﻋَﻠﻰٰ ﻭُﺟﻮﻫِﻬِﻢ ﺫﻭﻗﻮﺍ ﻣَﺲَّ
ﺳَﻘَﺮَ
[48] যেদিন তাদেরকে মুখ হিঁচড়ে টেনে
নেয়া হবে জাহান্নামে, বলা হবেঃ
অগ্নির খাদ্য আস্বাদন কর।
[48] The Day they will be dragged on
their faces into the Fire (it will be said to
them): “Taste you the touch of Hell!”
[49] ﺇِﻧّﺎ ﻛُﻞَّ ﺷَﻲﺀٍ ﺧَﻠَﻘﻨٰﻪُ
ﺑِﻘَﺪَﺭٍ
[49] আমি প্রত্যেক বস্তুকে পরিমিতরূপে
সৃষ্টি করেছি।
[49] Verily, We have created all things
with Qadar (Divine Preordainments of
all things before their creation, as
written in the Book of Decrees Al-Lauh
Al-Mahfûz).
[50] ﻭَﻣﺎ ﺃَﻣﺮُﻧﺎ ﺇِﻟّﺎ ﻭٰﺣِﺪَﺓٌ
ﻛَﻠَﻤﺢٍ ﺑِﺎﻟﺒَﺼَﺮِ
[50] আমার কাজ তো এক মুহূর্তে
চোখের পলকের মত।
[50] And Our Commandment is but one,
as the twinkling of an eye.
[51] ﻭَﻟَﻘَﺪ ﺃَﻫﻠَﻜﻨﺎ ﺃَﺷﻴﺎﻋَﻜُﻢ
ﻓَﻬَﻞ ﻣِﻦ ﻣُﺪَّﻛِﺮٍ
[51] আমি তোমাদের সমমনা
লোকদেরকে ধ্বংস করেছি, অতএব,
কোন চিন্তাশীল আছে কি?
[51] And indeed, We have destroyed
your likes, then is there any that will
remember (or receive admonition)?
[52] ﻭَﻛُﻞُّ ﺷَﻲﺀٍ ﻓَﻌَﻠﻮﻩُ ﻓِﻰ
ﺍﻟﺰُّﺑُﺮِ
[52] তারা যা কিছু করেছে, সবই
আমলনামায় লিপিবদ্ধ আছে।
[52] And everything they have done is
noted in (their) Records (of deeds).
[53] ﻭَﻛُﻞُّ ﺻَﻐﻴﺮٍ ﻭَﻛَﺒﻴﺮٍ
ﻣُﺴﺘَﻄَﺮٌ
[53] ছোট ও বড় সবই লিপিবদ্ধ।
[53] And everything, small and big, is
written down (in Al-Lauh Al-Mahfûz
already beforehand i.e. before it befalls,
or is done by its doer: ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ﺑﺎﻟﻘﺪﺭ ) (See
the Qur’ân V.57:22 and its footnote).
[54] ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻤُﺘَّﻘﻴﻦَ ﻓﻰ ﺟَﻨّٰﺖٍ
ﻭَﻧَﻬَﺮٍ
[54] খোদাভীরুরা থাকবে জান্নাতে
ও নির্ঝরিণীতে।
[54] Verily, The Muttaqûn (the pious – see
V.2:2), will be in the midst of Gardens
and Rivers (Paradise).
[55] ﻓﻰ ﻣَﻘﻌَﺪِ ﺻِﺪﻕٍ ﻋِﻨﺪَ
ﻣَﻠﻴﻚٍ ﻣُﻘﺘَﺪِﺭٍ
[55] যোগ্য আসনে, সর্বাধিপতি
সম্রাটের সান্নিধ্যে।
[55] In a seat of truth (i.e. Paradise),
near the Omnipotent King (Allâh the one,
the All-Blessed, the Most High, the Owner
of Majesty and Honour).
Bangla translation of Quran. Developed
by Syed Mohammad Rasel.
Surah Al Qamar Recitation: Sa’ad Al Ghamdi 1. কেয়ামত আসন্ন, চন্দ্র বিদীর্ণ হয়েছে। 2. তারা যদি কোন নিদর্শন দেখে তবে মুখ ফিরিয়ে নেয় এবং বলে, এটা তো চিরাগত জাদু। 3. তারা মিথ্যারোপ করছে এবং নিজেদের খেয়াল- খুশীর অনুসরণ করছে। প্রত্যেক কাজ যথাসময়ে স্থিরীকৃত হয়। 4. তাদের কাছে এমন সংবাদ এসে গেছে, যাতে সাবধানবাণী রয়েছে। 5. এটা পরিপূর্ণ জ্ঞান, তবে সতর্ককারীগণ তাদের কোন উপকারে আসে না। 6. অতএব, আপনি তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিন। যেদিন আহবানকারী আহবান করবে এক অপ্রিয় পরিণামের দিকে, 7. তারা তখন অবনমিত নেত্রে কবর থেকে বের হবে বিক্ষিপ্ত পংগপাল সদৃশ। 8. তারা আহবানকারীর দিকে দৌড়াতে থাকবে। কাফেরা বলবেঃ এটা কঠিন দিন। 9. তাদের পূর্বে নূহের সম্প্রদায়ও মিথ্যারোপ করেছিল। তারা মিথ্যারোপ করেছিল আমার বান্দা নূহের প্রতি এবং বলেছিলঃ এ তো উম্মাদ। তাঁরা তাকে হুমকি প্রদর্শন করেছিল। 10. অতঃপর সে তার পালনকর্তাকে ডেকে বললঃ আমি অক্ষম, অতএব, তুমি প্রতিবিধান কর। 11. তখন আমি খুলে দিলাম আকাশের দ্বার প্রবল বারিবর্ষণের মাধ্যমে। 12. এবং ভুমি থেকে প্রবাহিত করলাম প্রস্রবণ। অতঃপর সব পানি মিলিত হল এক পরিকম্পিত কাজে। 13. আমি নূহকে আরোহণ করালাম এক কাষ্ঠ ও পেরেক নির্মিত জলযানে। 14. যা চলত আমার দৃষ্টি সামনে। এটা তার পক্ষ থেকে প্রতিশোধ ছিল, যাকে প্রত্যখ্যান করা হয়েছিল। 15. আমি একে এক নিদর্শনরূপে রেখে দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 16. কেমন কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 17. আমি কোরআনকে সহজ করে দিয়েছি বোঝার জন্যে। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 18. আদ সম্প্রদায় মিথ্যারোপ করেছিল, অতঃপর কেমন কঠোর হয়েছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 19. আমি তাদের উপর প্রেরণ করেছিলাম ঝঞ্জাবায়ু এক চিরাচরিত অশুভ দিনে। 20. তা মানুষকে উৎখাত করছিল, যেন তারা উৎপাটিত খর্জুর বৃক্ষের কান্ড। 21. অতঃপর কেমন কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 22. আমি কোরআনকে বোঝার জন্যে সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 23. অতঃপর কেমন কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 24. আমি কোরআনকে বোঝার জন্যে সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 25. আমাদের মধ্যে কি তারই প্রতি উপদেশ নাযিল করা হয়েছে? বরং সে একজন মিথ্যাবাদী, দাম্ভিক। 26. এখন আগামীকল্যই তারা জানতে পারবে কে মিথ্যাবাদী, দাম্ভিক। 27. আমি তাদের পরীক্ষার জন্য এক উষ্ট্রী প্রেরণ করব, অতএব, তাদের প্রতি লক্ষ্য রাখ এবং সবর কর। 28. এবং তাদেরকে জানিয়ে দাও যে, তাদের মধ্যে পানির পালা নির্ধারিত হয়েছে এবং পালাক্রমে উপস্থিত হতে হবে। 29. অতঃপর তারা তাদের সঙ্গীকে ডাকল। সে তাকে ধরল এবং বধ করল। 30. অতঃপর কেমন কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 31. আমি তাদের প্রতি একটিমাত্র নিনাদ প্রেরণ করেছিলাম। এতেই তারা হয়ে গেল শুষ্ক শাখাপল্লব নির্মিত দলিত খোয়াড়ের ন্যায়। 32. আমি কোরআনকে বোঝার জন্যে সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 33. লূত-সম্প্রদায় সতর্ককারীদের প্রতি মিথ্যারোপ করেছিল। 34. আমি তাদের প্রতি প্রেরণ করেছিলাম প্রস্তর বর্ষণকারী প্রচন্ড ঘূর্ণিবায়ু; কিন্তু লূত পরিবারের উপর নয়। আমি তাদেরকে রাতের শেষপ্রহরে উদ্ধার করেছিলাম। 35. আমার পক্ষ থেকে অনুগ্রহ স্বরূপ। যারা কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে, আমি তাদেরকে এভাবে পুরস্কৃত করে থকি। 36. লূত (আঃ) তাদেরকে আমার প্রচন্ড পাকড়াও সম্পর্কে সতর্ক করেছিল। অতঃপর তারা সতর্কবাণী সম্পর্কে বাকবিতন্ডা করেছিল। 37. তারা লূতের (আঃ) কাছে তার মেহমানদেরকে দাবী করেছিল। তখন আমি তাদের চক্ষু লোপ করে দিলাম। অতএব, আস্বাদন কর আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী। 38. তাদেরকে প্রত্যুষে নির্ধারিত শাস্তি আঘাত হেনেছিল। 39. অতএব, আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী আস্বাদন কর। 40. আমি কোরআনকে বোঝবার জন্যে সহজ করে দিয়েছি। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 41. ফেরাউন সম্প্রদায়ের কাছেও সতর্ককারীগণ আগমন করেছিল। 42. তারা আমার সকল নিদর্শনের প্রতি মিথ্যারোপ করেছিল। অতঃপর আমি পরাভূতকারী, পরাক্রমশালীর ন্যায় তাদেরকে পাকড়াও করলাম। 43. তোমাদের মধ্যকার কাফেররা কি তাদের চাইতে শ্রেষ্ঠ ? না তোমাদের মুক্তির সনদপত্র রয়েছে কিতাবসমূহে? 44. না তারা বলে যে, আমারা এক অপরাজেয় দল? 45. এ দল তো সত্ত্বরই পরাজিত হবে এবং পৃষ্ঠপ্রদর্শন করবে। 46. বরং কেয়ামত তাদের প্রতিশ্রুত সময় এবং কেয়ামত ঘোরতর বিপদ ও তিক্ততর। 47. নিশ্চয় অপরাধীরা পথভ্রষ্ট ও বিকারগ্রস্ত। 48. যেদিন তাদেরকে মুখ হিঁচড়ে টেনে নেয়া হবে জাহান্নামে, বলা হবেঃ অগ্নির খাদ্য আস্বাদন কর। 49. আমি প্রত্যেক বস্তুকে পরিমিতরূপে সৃষ্টি করেছি। 50. আমার কাজ তো এক মুহূর্তে চোখের পলকের মত। 51. আমি তোমাদের সমমনা লোকদেরকে ধ্বংস করেছি, অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি? 52. তারা যা কিছু করেছে, সবই আমলনামায় লিপিবদ্ধ আছে। 53. ছোট ও বড় সবই লিপিবদ্ধ। 54. খোদাভীরুরা থাকবে জান্নাতে ও নির্ঝরিণীতে। 55. যোগ্য আসনে, সর্বাধিপতি সম্রাটের সান্নিধ্যে। *********

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s