64. সুরাহ আল তাগাবুন(01-18)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম
করুণাময়, অতি দয়ালু
[1] ﻳُﺴَﺒِّﺢُ ﻟِﻠَّﻪِ ﻣﺎ ﻓِﻰ
ﺍﻟﺴَّﻤٰﻮٰﺕِ ﻭَﻣﺎ ﻓِﻰ ﺍﻷَﺭﺽِ ۖ ﻟَﻪُ
ﺍﻟﻤُﻠﻚُ ﻭَﻟَﻪُ ﺍﻟﺤَﻤﺪُ ۖ ﻭَﻫُﻮَ ﻋَﻠﻰٰ
ﻛُﻞِّ ﺷَﻲﺀٍ ﻗَﺪﻳﺮٌ
[1] নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলে যা কিছু
আছে, সবই আল্লাহর পবিত্রতা ঘোষণা
করে। রাজত্ব তাঁরই এবং প্রশংসা
তাঁরই। তিনি সর্ববিষয়ে সর্বশক্তিমান।
[1] Whatsoever is in the heavens and
whatsoever is on the earth glorifies
Allâh. His is the dominion, and to Him
belong all the praises and thanks, and He
is Able to do all things.
[2] ﻫُﻮَ ﺍﻟَّﺬﻯ ﺧَﻠَﻘَﻜُﻢ ﻓَﻤِﻨﻜُﻢ
ﻛﺎﻓِﺮٌ ﻭَﻣِﻨﻜُﻢ ﻣُﺆﻣِﻦٌ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ
ﺑِﻤﺎ ﺗَﻌﻤَﻠﻮﻥَ ﺑَﺼﻴﺮٌ
[2] তিনিই তোমাদেরকে সৃষ্টি
করেছেন, অতঃপর তোমাদের মধ্যে
কেউ কাফের এবং কেউ মুমিন। তোমরা
যা কর, আল্লাহ তা দেখেন।
[2] He it is Who created you, then some
of you are disbelievers and some of you
are believers. And Allâh is All-Seer of
what you do.
[3] ﺧَﻠَﻖَ ﺍﻟﺴَّﻤٰﻮٰﺕِ ﻭَﺍﻷَﺭﺽَ
ﺑِﺎﻟﺤَﻖِّ ﻭَﺻَﻮَّﺭَﻛُﻢ ﻓَﺄَﺣﺴَﻦَ
ﺻُﻮَﺭَﻛُﻢ ۖ ﻭَﺇِﻟَﻴﻪِ ﺍﻟﻤَﺼﻴﺮُ
[3] তিনি নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলকে
যথাযথভাবে সৃষ্টি করেছেন এবং
তোমাদেরকে আকৃতি দান করেছেন,
অতঃপর সুন্দর করেছেন তোমাদের
আকৃতি। তাঁরই কাছে প্রত্যাবর্তন।
[3] He has created the heavens and the
earth with truth, and He shaped you and
made good your shapes, And to Him is
the final Return.
[4] ﻳَﻌﻠَﻢُ ﻣﺎ ﻓِﻰ ﺍﻟﺴَّﻤٰﻮٰﺕِ
ﻭَﺍﻷَﺭﺽِ ﻭَﻳَﻌﻠَﻢُ ﻣﺎ ﺗُﺴِﺮّﻭﻥَ
ﻭَﻣﺎ ﺗُﻌﻠِﻨﻮﻥَ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠﻴﻢٌ
ﺑِﺬﺍﺕِ ﺍﻟﺼُّﺪﻭﺭِ
[4] নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলে যা আছে,
তিনি তা জানেন। তিনি আরও জানেন
তোমরা যা গোপনে কর এবং যা
প্রকাশ্যে কর। আল্লাহ অন্তরের
বিষয়াদি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞাত।
[4] He knows what is in the heavens and
on earth, and He knows what you
conceal and what you reveal. And Allâh
is the All-Knower of what is in the
breasts (of men).
[5] ﺃَﻟَﻢ ﻳَﺄﺗِﻜُﻢ ﻧَﺒَﺆُﺍ۟ ﺍﻟَّﺬﻳﻦَ
ﻛَﻔَﺮﻭﺍ ﻣِﻦ ﻗَﺒﻞُ ﻓَﺬﺍﻗﻮﺍ ﻭَﺑﺎﻝَ
ﺃَﻣﺮِﻫِﻢ ﻭَﻟَﻬُﻢ ﻋَﺬﺍﺏٌ ﺃَﻟﻴﻢٌ
[5] তোমাদের পুর্বে যারা কাফের
ছিল, তাদের বৃত্তান্ত কি তোমাদের
কাছে পৌছেনি? তারা তাদের
কর্মের শাস্তি আস্বাদন করেছে, এবং
তাদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক
শাস্তি।
[5] Has not the news reached you of
those who disbelieved aforetime? And so
they tasted the evil result of their
disbelief, and theirs will be a painful
torment.
[6] ﺫٰﻟِﻚَ ﺑِﺄَﻧَّﻪُ ﻛﺎﻧَﺖ ﺗَﺄﺗﻴﻬِﻢ
ﺭُﺳُﻠُﻬُﻢ ﺑِﺎﻟﺒَﻴِّﻨٰﺖِ ﻓَﻘﺎﻟﻮﺍ ﺃَﺑَﺸَﺮٌ
ﻳَﻬﺪﻭﻧَﻨﺎ ﻓَﻜَﻔَﺮﻭﺍ ﻭَﺗَﻮَﻟَّﻮﺍ ۚ
ﻭَﺍﺳﺘَﻐﻨَﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﻏَﻨِﻰٌّ
ﺣَﻤﻴﺪٌ
[6] এটা এ কারণে যে, তাদের কাছে
তাদের রসূলগণ প্রকাশ্য
নিদর্শনাবলীসহ আগমন করলে তারা
বলতঃ মানুষই কি আমাদেরকে
পথপ্রদর্শন করবে? অতঃপর তারা
কাফের হয়ে গেল এবং মুখ ফিরিয়ে
নিল। এতে আল্লাহর কিছু আসে যায়
না। আল্লাহ অমুখাপেক্ষী প্রশংসিত।
[6] That was because there came to them
their Messengers with clear proofs
(signs), but they said: “Shall mere men
guide us?” So they disbelieved and
turned away (from the truth), But Allâh
was not in need (of them). And Allâh is
Rich (Free of all needs), Worthy of all
praise.
[7] ﺯَﻋَﻢَ ﺍﻟَّﺬﻳﻦَ ﻛَﻔَﺮﻭﺍ ﺃَﻥ ﻟَﻦ
ﻳُﺒﻌَﺜﻮﺍ ۚ ﻗُﻞ ﺑَﻠﻰٰ ﻭَﺭَﺑّﻰ
ﻟَﺘُﺒﻌَﺜُﻦَّ ﺛُﻢَّ ﻟَﺘُﻨَﺒَّﺆُﻥَّ ﺑِﻤﺎ
ﻋَﻤِﻠﺘُﻢ ۚ ﻭَﺫٰﻟِﻚَ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻟﻠَّﻪِ
ﻳَﺴﻴﺮٌ
[7] কাফেররা দাবী করে যে, তারা
কখনও পুনরুত্থিত হবে না। বলুন, অবশ্যই
হবে, আমার পালনকর্তার কসম, তোমরা
নিশ্চয় পুরুত্থিত হবে। অতঃপর
তোমাদেরকে অবহিত করা হবে যা
তোমরা করতে। এটা আল্লাহর পক্ষে
সহজ।
[7] The disbelievers pretend that they
will never be resurrected (for the
Account). Say (O Muhammad SAW): “Yes!
By my Lord, you will certainly be
resurrected, then you will be informed of
(and recompensed for) what you did,
and that is easy for Allâh.
[8] ﻓَـٔﺎﻣِﻨﻮﺍ ﺑِﺎﻟﻠَّﻪِ ﻭَﺭَﺳﻮﻟِﻪِ
ﻭَﺍﻟﻨّﻮﺭِ ﺍﻟَّﺬﻯ ﺃَﻧﺰَﻟﻨﺎ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺑِﻤﺎ
ﺗَﻌﻤَﻠﻮﻥَ ﺧَﺒﻴﺮٌ
[8] অতএব তোমরা আল্লাহ তাঁর রসূল
এবং অবতীর্ন নূরের প্রতি বিশ্বাস
স্থাপন কর। তোমরা যা কর, সে বিষয়ে
আল্লাহ সম্যক অবগত।
[8] Therefore, believe in Allâh and His
Messenger (Muhammad SAW), and in the
Light (this Qur’ân) which We have sent
down. And Allâh is All-Aware of what
you do.
[9] ﻳَﻮﻡَ ﻳَﺠﻤَﻌُﻜُﻢ ﻟِﻴَﻮﻡِ ﺍﻟﺠَﻤﻊِ ۖ
ﺫٰﻟِﻚَ ﻳَﻮﻡُ ﺍﻟﺘَّﻐﺎﺑُﻦِ ۗ ﻭَﻣَﻦ
ﻳُﺆﻣِﻦ ﺑِﺎﻟﻠَّﻪِ ﻭَﻳَﻌﻤَﻞ ﺻٰﻠِﺤًﺎ
ﻳُﻜَﻔِّﺮ ﻋَﻨﻪُ ﺳَﻴِّـٔﺎﺗِﻪِ ﻭَﻳُﺪﺧِﻠﻪُ
ﺟَﻨّٰﺖٍ ﺗَﺠﺮﻯ ﻣِﻦ ﺗَﺤﺘِﻬَﺎ
ﺍﻷَﻧﻬٰﺮُ ﺧٰﻠِﺪﻳﻦَ ﻓﻴﻬﺎ ﺃَﺑَﺪًﺍ ۚ
ﺫٰﻟِﻚَ ﺍﻟﻔَﻮﺯُ ﺍﻟﻌَﻈﻴﻢُ
[9] সেদিন অর্থাৎ, সমাবেশের দিন
আল্লাহ তোমাদেরকে সমবেত করবেন।
এ দিন হার-জিতের দিন। যে ব্যক্তি
আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে
এবং সৎকর্ম সম্পাদন করে, আল্লাহ তার
পাপসমূহ মোচন করবেন এবং তাকে
জান্নাতে দাখিল করবেন। যার
তলদেশে নির্ঝরিনীসমূহ প্রবাহিত হবে,
তারা তথায় চিরকাল বসবাস করবে।
এটাই মহাসাফল্য।
[9] (And remember) the Day when He
will gather you (all) on the Day of
Gathering, that will be the Day of mutual
loss and gain (i.e. loss for the
disbelievers as they will enter the Hell-
fire and gain for the believers as they
will enter Paradise). And whosoever
believes in Allâh and performs righteous
good deeds, He will expiate from him his
sins, and will admit him to Gardens
under which rivers flow (Paradise) to
dwell therein forever, that will be the
great success.
[10] ﻭَﺍﻟَّﺬﻳﻦَ ﻛَﻔَﺮﻭﺍ ﻭَﻛَﺬَّﺑﻮﺍ
ﺑِـٔﺎﻳٰﺘِﻨﺎ ﺃُﻭﻟٰﺌِﻚَ ﺃَﺻﺤٰﺐُ ﺍﻟﻨّﺎﺭِ
ﺧٰﻠِﺪﻳﻦَ ﻓﻴﻬﺎ ۖ ﻭَﺑِﺌﺲَ ﺍﻟﻤَﺼﻴﺮُ
[10] আর যারা কাফের এবং আমার
আয়াতসমূহকে মিথ্যা বলে, তারাই
জাহান্নামের অধিবাসী, তারা তথায়
অনন্তকাল থাকবে। কতই না মন্দ
প্রত্যাবর্তনস্থল এটা।
[10] But those who disbelieved (in the
Oneness of Allâh – Islâmic Monotheism)
and denied Our Ayât (proofs, evidences,
verses, lessons, signs, revelations, etc.),
they will be the dwellers of the Fire, to
dwell therein forever. And worst indeed
is that destination
[11] ﻣﺎ ﺃَﺻﺎﺏَ ﻣِﻦ ﻣُﺼﻴﺒَﺔٍ ﺇِﻟّﺎ
ﺑِﺈِﺫﻥِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ۗ ﻭَﻣَﻦ ﻳُﺆﻣِﻦ ﺑِﺎﻟﻠَّﻪِ
ﻳَﻬﺪِ ﻗَﻠﺒَﻪُ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺑِﻜُﻞِّ ﺷَﻲﺀٍ
ﻋَﻠﻴﻢٌ
[11] আল্লাহর নির্দেশ ব্যতিরেকে
কোন বিপদ আসে না এবং যে
আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস করে, তিনি
তার অন্তরকে সৎপথ প্রদর্শন করেন।
আল্লাহ সর্ববিষয়ে সম্যক পরিজ্ঞাত।
[11] No calamity befalls, but by the Leave
[i.e. Decision and Qadar (Divine
Preordainments)] of Allâh, and
whosoever believes in Allâh, He guides
his heart [to the true Faith with
certainty, i.e. what has befallen him was
already written for him by Allâh from
the Qadar (Divine Preordainments)], And
Allâh is the All-Knower of everything.
[12] ﻭَﺃَﻃﻴﻌُﻮﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻭَﺃَﻃﻴﻌُﻮﺍ
ﺍﻟﺮَّﺳﻮﻝَ ۚ ﻓَﺈِﻥ ﺗَﻮَﻟَّﻴﺘُﻢ ﻓَﺈِﻧَّﻤﺎ
ﻋَﻠﻰٰ ﺭَﺳﻮﻟِﻨَﺎ ﺍﻟﺒَﻠٰﻎُ ﺍﻟﻤُﺒﻴﻦُ
[12] তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর এবং
রসূলুল্লাহর আনুগত্য কর। যদি তোমরা
মুখ ফিরিয়ে নাও, তবে আমার রসূলের
দায়িত্ব কেবল খোলাখুলি পৌছে
দেয়া।
[12] Obey Allâh, and obey the Messenger
(Muhammad SAW), but if you turn away,
then the duty of Our Messenger is only to
convey (the Message) clearly.
[13] ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻻ ﺇِﻟٰﻪَ ﺇِﻟّﺎ ﻫُﻮَ ۚ ﻭَﻋَﻠَﻰ
ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓَﻠﻴَﺘَﻮَﻛَّﻞِ ﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨﻮﻥَ
[13] আল্লাহ তিনি ব্যতীত কোন মাবুদ
নেই। অতএব মুমিনগণ আল্লাহর উপর
ভরসা করুক।
[13] Allâh! Lâ ilâha illa Huwa (none has
the right to be worshipped but He), And
in Allâh (Alone), therefore, let the
believers put their trust.
[14] ﻳٰﺄَﻳُّﻬَﺎ ﺍﻟَّﺬﻳﻦَ ﺀﺍﻣَﻨﻮﺍ ﺇِﻥَّ
ﻣِﻦ ﺃَﺯﻭٰﺟِﻜُﻢ ﻭَﺃَﻭﻟٰﺪِﻛُﻢ ﻋَﺪُﻭًّﺍ
ﻟَﻜُﻢ ﻓَﺎﺣﺬَﺭﻭﻫُﻢ ۚ ﻭَﺇِﻥ ﺗَﻌﻔﻮﺍ
ﻭَﺗَﺼﻔَﺤﻮﺍ ﻭَﺗَﻐﻔِﺮﻭﺍ ﻓَﺈِﻥَّ ﺍﻟﻠَّﻪَ
ﻏَﻔﻮﺭٌ ﺭَﺣﻴﻢٌ
[14] হে মুমিনগণ, তোমাদের কোন
কোন স্ত্রী ও সন্তান-সন্ততি
তোমাদের দুশমন। অতএব তাদের
ব্যাপারে সতর্ক থাক। যদি মার্জনা কর,
উপেক্ষা কর, এবং ক্ষমা কর, তবে
আল্লাহ ক্ষমাশীল, করুনাময়।
[14] O you who believe! Verily, among
your wives and your children are your
enemies (who may stop you from the
obedience of Allâh), therefore beware of
them! But if you pardon (them) and
overlook, and forgive (their faults), then
verily, Allâh is Oft-Forgiving, Most
Merciful.
[15] ﺇِﻧَّﻤﺎ ﺃَﻣﻮٰﻟُﻜُﻢ ﻭَﺃَﻭﻟٰﺪُﻛُﻢ
ﻓِﺘﻨَﺔٌ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋِﻨﺪَﻩُ ﺃَﺟﺮٌ
ﻋَﻈﻴﻢٌ
[15] তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-
সন্ততি তো কেবল পরীক্ষাস্বরূপ। আর
আল্লাহর কাছে রয়েছে মহাপুরস্কার।
[15] Your wealth and your children are
only a trial, whereas Allâh! With Him is
a great reward (Paradise).
[16] ﻓَﺎﺗَّﻘُﻮﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻣَﺎ ﺍﺳﺘَﻄَﻌﺘُﻢ
ﻭَﺍﺳﻤَﻌﻮﺍ ﻭَﺃَﻃﻴﻌﻮﺍ ﻭَﺃَﻧﻔِﻘﻮﺍ
ﺧَﻴﺮًﺍ ﻟِﺄَﻧﻔُﺴِﻜُﻢ ۗ ﻭَﻣَﻦ ﻳﻮﻕَ
ﺷُﺢَّ ﻧَﻔﺴِﻪِ ﻓَﺄُﻭﻟٰﺌِﻚَ ﻫُﻢُ
ﺍﻟﻤُﻔﻠِﺤﻮﻥَ
[16] অতএব তোমরা যথাসাধ্য
আল্লাহকে ভয় কর, শুন, আনুগত্য কর এবং
ব্যয় কর। এটা তোমাদের জন্যে
কল্যাণকর। যারা মনের কার্পন্য থেকে
মুক্ত, তারাই সফলকাম।
[16] So keep your duty to Allâh and fear
Him as much as you can; listen and
obey; and spend in charity, that is better
for yourselves. And whosoever is saved
from his own covetousness, then they are
the successful ones.
[17] ﺇِﻥ ﺗُﻘﺮِﺿُﻮﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻗَﺮﺿًﺎ
ﺣَﺴَﻨًﺎ ﻳُﻀٰﻌِﻔﻪُ ﻟَﻜُﻢ ﻭَﻳَﻐﻔِﺮ
ﻟَﻜُﻢ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺷَﻜﻮﺭٌ ﺣَﻠﻴﻢٌ
[17] যদি তোমরা আল্লাহকে উত্তম ঋণ
দান কর, তিনি তোমাদের জন্যে তা
দ্বিগুণ করে দেবেন এবং তোমাদেরকে
ক্ষমা করবেন। আল্লাহ গুণগ্রাহী,
সহনশীল।
[17] If you lend Allâh a goodly loan (i.e.
spend in Allâh’s Cause) He will double it
for you, and will forgive you. And Allâh
is Most Ready to appreciate and to
reward, Most Forbearing,
[18] ﻋٰﻠِﻢُ ﺍﻟﻐَﻴﺐِ ﻭَﺍﻟﺸَّﻬٰﺪَﺓِ
ﺍﻟﻌَﺰﻳﺰُ ﺍﻟﺤَﻜﻴﻢُ
[18] তিনি দৃশ্য ও অদৃশ্যের জ্ঞানী,
পরাক্রান্ত, প্রজ্ঞাময়।
[18] All-Knower of the unseen and seen,
the All-Mighty, the All-Wise.
Bangla translation of Quran. Developed
by Syed Mohammad Rasel
Surah Al Taghabun Recitation: Sa’ad Al Ghamdi 1. নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলে যা কিছু আছে, সবই আল্লাহর পবিত্রতা ঘোষণা করে। রাজত্ব তাঁরই এবং প্রশংসা তাঁরই। তিনি সর্ববিষয়ে সর্বশক্তিমান। 2. তিনিই তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তোমাদের মধ্যে কেউ কাফের এবং কেউ মুমিন। তোমরা যা কর, আল্লাহ তা দেখেন। 3. তিনি নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলকে যথাযথভাবে সৃষ্টি করেছেন এবং তোমাদেরকে আকৃতি দান করেছেন, অতঃপর সুন্দর করেছেন তোমাদের আকৃতি। তাঁরই কাছে প্রত্যাবর্তন। 4. নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলে যা আছে, তিনি তা জানেন। তিনি আরও জানেন তোমরা যা গোপনে কর এবং যা প্রকাশ্যে কর। আল্লাহ অন্তরের বিষয়াদি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞাত। 5. তোমাদের পুর্বে যারা কাফের ছিল, তাদের বৃত্তান্ত কি তোমাদের কাছে পৌছেনি? তারা তাদের কর্মের শাস্তি আস্বাদন করেছে, এবং তাদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি। 6. এটা এ কারণে যে, তাদের কাছে তাদের রসূলগণ প্রকাশ্য নিদর্শনাবলীসহ আগমন করলে তারা বলতঃ মানুষই কি আমাদেরকে পথপ্রদর্শন করবে? অতঃপর তারা কাফের হয়ে গেল এবং মুখ ফিরিয়ে নিল। এতে আল্লাহর কিছু আসে যায় না। আল্লাহ অমুখাপেক্ষী প্রশংসিত। 7. কাফেররা দাবী করে যে, তারা কখনও পুনরুত্থিত হবে না। বলুন, অবশ্যই হবে, আমার পালনকর্তার কসম, তোমরা নিশ্চয় পুরুত্থিত হবে। অতঃপর তোমাদেরকে অবহিত করা হবে যা তোমরা করতে। এটা আল্লাহর পক্ষে সহজ। 8. অতএব তোমরা আল্লাহ তাঁর রসূল এবং অবতীর্ন নূরের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন কর। তোমরা যা কর, সে বিষয়ে আল্লাহ সম্যক অবগত। 9. সেদিন অর্থাৎ, সমাবেশের দিন আল্লাহ তোমাদেরকে সমবেত করবেন। এ দিন হার-জিতের দিন। যে ব্যক্তি আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম সম্পাদন করে, আল্লাহ তার পাপসমূহ মোচন করবেন এবং তাকে জান্নাতে দাখিল করবেন। যার তলদেশে নির্ঝরিনীসমূহ প্রবাহিত হবে, তারা তথায় চিরকাল বসবাস করবে। এটাই মহাসাফল্য। 10. আর যারা কাফের এবং আমার আয়াতসমূহকে মিথ্যা বলে, তারাই জাহান্নামের অধিবাসী, তারা তথায় অনন্তকাল থাকবে। কতই না মন্দ প্রত্যাবর্তনস্থল এটা। 11. আল্লাহর নির্দেশ ব্যতিরেকে কোন বিপদ আসে না এবং যে আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস করে, তিনি তার অন্তরকে সৎপথ প্রদর্শন করেন। আল্লাহ সর্ববিষয়ে সম্যক পরিজ্ঞাত। 12. তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রসূলুল্লাহর আনুগত্য কর। যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও, তবে আমার রসূলের দায়িত্ব কেবল খোলাখুলি পৌছে দেয়া। 13. আল্লাহ তিনি ব্যতীত কোন মাবুদ নেই। অতএব মুমিনগণ আল্লাহর উপর ভরসা করুক। 14. হে মুমিনগণ, তোমাদের কোন কোন স্ত্রী ও সন্তান-সন্ততি তোমাদের দুশমন। অতএব তাদের ব্যাপারে সতর্ক থাক। যদি মার্জনা কর, উপেক্ষা কর, এবং ক্ষমা কর, তবে আল্লাহ ক্ষমাশীল, করুনাময়। 15. তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি তো কেবল পরীক্ষাস্বরূপ। আর আল্লাহর কাছে রয়েছে মহাপুরস্কার। 16. অতএব তোমরা যথাসাধ্য আল্লাহকে ভয় কর, শুন, আনুগত্য কর এবং ব্যয় কর। এটা তোমাদের জন্যে কল্যাণকর। যারা মনের কার্পন্য থেকে মুক্ত, তারাই সফলকাম। 17. যদি তোমরা আল্লাহকে উত্তম ঋণ দান কর, তিনি তোমাদের জন্যে তা দ্বিগুণ করে দেবেন এবং তোমাদেরকে ক্ষমা করবেন। আল্লাহ গুণগ্রাহী, সহনশীল। 18. তিনি দৃশ্য ও অদৃশ্যের জ্ঞানী, পরাক্রান্ত, প্রজ্ঞাময়। *********

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s