71.সুরাহ আল নুহ((01-28)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি
দয়ালু
[1] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﺭﺳَﻠﻨﺎ ﻧﻮﺣًﺎ ﺇِﻟﻰٰ ﻗَﻮﻣِﻪِ
ﺃَﻥ ﺃَﻧﺬِﺭ ﻗَﻮﻣَﻚَ ﻣِﻦ ﻗَﺒﻞِ ﺃَﻥ
ﻳَﺄﺗِﻴَﻬُﻢ ﻋَﺬﺍﺏٌ ﺃَﻟﻴﻢٌ
[1] আমি নূহকে প্রেরণ করেছিলাম তাঁর
সম্প্রদায়ের প্রতি একথা বলেঃ তুমি তোমার
সম্প্রদায়কে সতর্ক কর, তাদের প্রতি
মর্মন্তদ শাস্তি আসার আগে।
[1] Verily, We sent Nûh (Noah) to his
people (Saying): “Warn your people
before there comes to them a painful
torment.”
[2] ﻗﺎﻝَ ﻳٰﻘَﻮﻡِ ﺇِﻧّﻰ ﻟَﻜُﻢ ﻧَﺬﻳﺮٌ
ﻣُﺒﻴﻦٌ
[2] সে বলল, হে আমার সম্প্রদায়! আমি
তোমাদের জন্যে স্পষ্ট সতর্ককারী।
[2] He said: “O my people! Verily, I am a
plain warner to you,
[3] ﺃَﻥِ ﺍﻋﺒُﺪُﻭﺍ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻭَﺍﺗَّﻘﻮﻩُ
ﻭَﺃَﻃﻴﻌﻮﻥِ
[3] এ বিষয়ে যে, তোমরা আল্লাহ তা’আলার
এবাদত কর, তাঁকে ভয় কর এবং আমার আনুগত্য
কর।
[3] “That you should worship Allâh
(Alone), be dutiful to Him, and obey me,
[4] ﻳَﻐﻔِﺮ ﻟَﻜُﻢ ﻣِﻦ ﺫُﻧﻮﺑِﻜُﻢ
ﻭَﻳُﺆَﺧِّﺮﻛُﻢ ﺇِﻟﻰٰ ﺃَﺟَﻞٍ ﻣُﺴَﻤًّﻰ ۚ
ﺇِﻥَّ ﺃَﺟَﻞَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺇِﺫﺍ ﺟﺎﺀَ ﻻ
ﻳُﺆَﺧَّﺮُ ۖ ﻟَﻮ ﻛُﻨﺘُﻢ ﺗَﻌﻠَﻤﻮﻥَ
[4] আল্লাহ তা’আলা তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা
করবেন এবং নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অবকাশ
দিবেন। নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলার নির্দিষ্টকাল
যখন হবে, তখন অবকাশ দেয়া হবে না, যদি
তোমরা তা জানতে!
[4] “He (Allâh) will forgive you of your
sins and respite you to an appointed
term. Verily, the term of Allâh when it
comes, cannot be delayed, if you but
knew.”
[5] ﻗﺎﻝَ ﺭَﺏِّ ﺇِﻧّﻰ ﺩَﻋَﻮﺕُ
ﻗَﻮﻣﻰ ﻟَﻴﻠًﺎ ﻭَﻧَﻬﺎﺭًﺍ
[5] সে বললঃ হে আমার পালনকর্তা! আমি
আমার সম্প্রদায়কে দিবারাত্রি দাওয়াত দিয়েছি;
[5] He said: “O my Lord! Verily, I have
called my people night and day (i.e.
secretly and openly to accept the
doctrine of Islâmic Monotheism) ,
[6] ﻓَﻠَﻢ ﻳَﺰِﺩﻫُﻢ ﺩُﻋﺎﺀﻯ ﺇِﻟّﺎ
ﻓِﺮﺍﺭًﺍ
[6] কিন্তু আমার দাওয়াত তাদের পলায়নকেই
বৃদ্ধি করেছে।
[6] “But all my calling added nothing but
to (their) flight (from the truth)
[7] ﻭَﺇِﻧّﻰ ﻛُﻠَّﻤﺎ ﺩَﻋَﻮﺗُﻬُﻢ ﻟِﺘَﻐﻔِﺮَ
ﻟَﻬُﻢ ﺟَﻌَﻠﻮﺍ ﺃَﺻٰﺒِﻌَﻬُﻢ ﻓﻰ
ﺀﺍﺫﺍﻧِﻬِﻢ ﻭَﺍﺳﺘَﻐﺸَﻮﺍ ﺛِﻴﺎﺑَﻬُﻢ
ﻭَﺃَﺻَﺮّﻭﺍ ﻭَﺍﺳﺘَﻜﺒَﺮُﻭﺍ
ﺍﺳﺘِﻜﺒﺎﺭًﺍ
[7] আমি যতবারই তাদেরকে দাওয়াত দিয়েছি,
যাতে আপনি তাদেরকে ক্ষমা করেন,
ততবারই তারা কানে অঙ্গুলি দিয়েছে,
মুখমন্ডল বস্ত্রাবৃত করেছে, জেদ
করেছে এবং খুব ঔদ্ধত্য প্রদর্শন
করেছে।
[7] “And verily, every time I called unto
them that You might forgive them, they
thrust their fingers into their ears,
covered themselves up with their
garments, and persisted (in their
refusal), and magnified themselves in
pride.
[8] ﺛُﻢَّ ﺇِﻧّﻰ ﺩَﻋَﻮﺗُﻬُﻢ ﺟِﻬﺎﺭًﺍ
[8] অতঃপর আমি তাদেরকে প্রকাশ্যে দাওয়াত
দিয়েছি,
[8] “Then verily, I called to them openly
(aloud);
[9] ﺛُﻢَّ ﺇِﻧّﻰ ﺃَﻋﻠَﻨﺖُ ﻟَﻬُﻢ
ﻭَﺃَﺳﺮَﺭﺕُ ﻟَﻬُﻢ ﺇِﺳﺮﺍﺭًﺍ
[9] অতঃপর আমি ঘোষণা সহকারে প্রচার
করেছি এবং গোপনে চুপিসারে বলেছি।
[9] “Then verily, I proclaimed to them in
public, and I have appealed to them in
private,
[10] ﻓَﻘُﻠﺖُ ﺍﺳﺘَﻐﻔِﺮﻭﺍ ﺭَﺑَّﻜُﻢ
ﺇِﻧَّﻪُ ﻛﺎﻥَ ﻏَﻔّﺎﺭًﺍ
[10] অতঃপর বলেছিঃ তোমরা তোমাদের
পালনকর্তার ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি অত্যন্ত
ক্ষমাশীল।
[10] “I said (to them): ‘Ask forgiveness
from your Lord; Verily, He is Oft-
Forgiving;
[11] ﻳُﺮﺳِﻞِ ﺍﻟﺴَّﻤﺎﺀَ ﻋَﻠَﻴﻜُﻢ
ﻣِﺪﺭﺍﺭًﺍ
[11] তিনি তোমাদের উপর অজস্র বৃষ্টিধারা
ছেড়ে দিবেন,
[11] ‘He will send rain to you in
abundance;
[12] ﻭَﻳُﻤﺪِﺩﻛُﻢ ﺑِﺄَﻣﻮٰﻝٍ ﻭَﺑَﻨﻴﻦَ
ﻭَﻳَﺠﻌَﻞ ﻟَﻜُﻢ ﺟَﻨّٰﺖٍ ﻭَﻳَﺠﻌَﻞ
ﻟَﻜُﻢ ﺃَﻧﻬٰﺮًﺍ
[12] তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি
বাড়িয়ে দিবেন, তোমাদের জন্যে উদ্যান
স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্যে
নদীনালা প্রবাহিত করবেন।
[12] ‘And give you increase in wealth
and children, and bestow on you
gardens and bestow on you rivers.’ ”
[13] ﻣﺎ ﻟَﻜُﻢ ﻻ ﺗَﺮﺟﻮﻥَ ﻟِﻠَّﻪِ
ﻭَﻗﺎﺭًﺍ
[13] তোমাদের কি হল যে, তোমরা আল্লাহ
তা’আলার শ্রেষ্টত্ব আশা করছ না।
[13] What is the matter with you, that
[you fear not Allâh (His punishment),
and] you hope not for reward (from
Allâh or you believe not in His Oneness).
[14] ﻭَﻗَﺪ ﺧَﻠَﻘَﻜُﻢ ﺃَﻃﻮﺍﺭًﺍ
[14] অথচ তিনি তোমাদেরকে বিভিন্ন রকমে
সৃষ্টি করেছেন।
[14] While He has created you in
(different) stages [i.e. first Nutfah, then
‘Alaqah and then Mudghah, see
(VV.23:13,14)].
[15] ﺃَﻟَﻢ ﺗَﺮَﻭﺍ ﻛَﻴﻒَ ﺧَﻠَﻖَ ﺍﻟﻠَّﻪُ
ﺳَﺒﻊَ ﺳَﻤٰﻮٰﺕٍ ﻃِﺒﺎﻗًﺎ
[15] তোমরা কি লক্ষ্য কর না যে, আল্লাহ
কিভাবে সপ্ত আকাশ স্তরে স্তরে সৃষ্টি
করেছেন।
[15] See you not how Allâh has created
the seven heavens one above another,
[16] ﻭَﺟَﻌَﻞَ ﺍﻟﻘَﻤَﺮَ ﻓﻴﻬِﻦَّ ﻧﻮﺭًﺍ
ﻭَﺟَﻌَﻞَ ﺍﻟﺸَّﻤﺲَ ﺳِﺮﺍﺟًﺎ
[16] এবং সেখানে চন্দ্রকে রেখেছেন
আলোরূপে এবং সূর্যকে রেখেছেন
প্রদীপরূপে।
[16] And has made the moon a light
therein, and made the sun a lamp?
[17] ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺃَﻧﺒَﺘَﻜُﻢ ﻣِﻦَ ﺍﻷَﺭﺽِ
ﻧَﺒﺎﺗًﺎ
[17] আল্লাহ তা’আলা তোমাদেরকে মৃত্তিকা
থেকে উদগত করেছেন।
[17] And Allâh has brought you forth
from the (dust of) earth. (Tafsir At-
Tabarî)
[18] ﺛُﻢَّ ﻳُﻌﻴﺪُﻛُﻢ ﻓﻴﻬﺎ
ﻭَﻳُﺨﺮِﺟُﻜُﻢ ﺇِﺧﺮﺍﺟًﺎ
[18] অতঃপর তাতে ফিরিয়ে নিবেন এবং আবার
পুনরুত্থিত করবেন।
[18] Afterwards He will return you into it
(the earth), and bring you forth (again
on the Day of Resurrection)?
[19] ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﺟَﻌَﻞَ ﻟَﻜُﻢُ ﺍﻷَﺭﺽَ
ﺑِﺴﺎﻃًﺎ
[19] আল্লাহ তা’আলা তোমাদের জন্যে
ভূমিকে করেছেন বিছানা।
[19] And Allâh has made for you the
earth a wide expanse.
[20] ﻟِﺘَﺴﻠُﻜﻮﺍ ﻣِﻨﻬﺎ ﺳُﺒُﻠًﺎ
ﻓِﺠﺎﺟًﺎ
[20] যাতে তোমরা চলাফেরা কর প্রশস্ত
পথে।
[20] That you may go about therein in
broad roads.
[21] ﻗﺎﻝَ ﻧﻮﺡٌ ﺭَﺏِّ ﺇِﻧَّﻬُﻢ
ﻋَﺼَﻮﻧﻰ ﻭَﺍﺗَّﺒَﻌﻮﺍ ﻣَﻦ ﻟَﻢ
ﻳَﺰِﺩﻩُ ﻣﺎﻟُﻪُ ﻭَﻭَﻟَﺪُﻩُ ﺇِﻟّﺎ ﺧَﺴﺎﺭًﺍ
[21] নূহ বললঃ হে আমার পালনকর্তা, আমার
সম্প্রদায় আমাকে অমান্য করেছে আর
অনুসরণ করছে এমন লোককে, যার ধন-
সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি কেবল তার ক্ষতিই
বৃদ্ধি করছে।
[21] Nûh (Noah) said: “My Lord! They
have disobeyed me, and followed one
whose wealth and children give him no
increase but loss.
[22] ﻭَﻣَﻜَﺮﻭﺍ ﻣَﻜﺮًﺍ ﻛُﺒّﺎﺭًﺍ
[22] আর তারা ভয়ানক চক্রান্ত করছে।
[22] “And they have plotted a mighty
plot.
[23] ﻭَﻗﺎﻟﻮﺍ ﻻ ﺗَﺬَﺭُﻥَّ ﺀﺍﻟِﻬَﺘَﻜُﻢ
ﻭَﻻ ﺗَﺬَﺭُﻥَّ ﻭَﺩًّﺍ ﻭَﻻ ﺳُﻮﺍﻋًﺎ ﻭَﻻ
ﻳَﻐﻮﺙَ ﻭَﻳَﻌﻮﻕَ ﻭَﻧَﺴﺮًﺍ
[23] তারা বলছেঃ তোমরা তোমাদের
উপাস্যদেরকে ত্যাগ করো না এবং ত্যাগ
করো না ওয়াদ, সূয়া, ইয়াগুছ, ইয়াউক ও নসরকে।
[23] “And they have said: ‘You shall not
leave your gods, nor shall you leave
Wadd, nor Suwâ’, nor Yaghûth, nor
Ya’ûq, nor Nasr (these are the names of
their idols).
[24] ﻭَﻗَﺪ ﺃَﺿَﻠّﻮﺍ ﻛَﺜﻴﺮًﺍ ۖ ﻭَﻻ
ﺗَﺰِﺩِ ﺍﻟﻈّٰﻠِﻤﻴﻦَ ﺇِﻟّﺎ ﺿَﻠٰﻠًﺎ
[24] অথচ তারা অনেককে পথভ্রষ্ট
করেছে। অতএব আপনি জালেমদের
পথভ্রষ্টতাই বাড়িয়ে দিন।
[24] “And indeed they have led many
astray. And (O Allâh): ‘Grant no increase
to the Zâlimûn (polytheists, wrong-doers,
and disbelievers) save error.’ ”
[25] ﻣِﻤّﺎ ﺧَﻄﻴـٰٔﺘِﻬِﻢ ﺃُﻏﺮِﻗﻮﺍ
ﻓَﺄُﺩﺧِﻠﻮﺍ ﻧﺎﺭًﺍ ﻓَﻠَﻢ ﻳَﺠِﺪﻭﺍ
ﻟَﻬُﻢ ﻣِﻦ ﺩﻭﻥِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺃَﻧﺼﺎﺭًﺍ
[25] তাদের গোনাহসমূহের দরুন তাদেরকে
নিমজ্জিত করা হয়েছে, অতঃপর দাখিল করা
হয়েছে জাহান্নামে। অতঃপর তারা আল্লাহ
তা’আলা ব্যতীত কাউকে সাহায্যকারী পায়নি।
[25] Because of their sins they were
drowned, then were made to enter the
Fire, and they found none to help them
instead of Allâh.
[26] ﻭَﻗﺎﻝَ ﻧﻮﺡٌ ﺭَﺏِّ ﻻ ﺗَﺬَﺭ
ﻋَﻠَﻰ ﺍﻷَﺭﺽِ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻜٰﻔِﺮﻳﻦَ
ﺩَﻳّﺎﺭًﺍ
[26] নূহ আরও বললঃ হে আমার পালনকর্তা,
আপনি পৃথিবীতে কোন কাফের
গৃহবাসীকে রেহাই দিবেন না।
[26] And Nûh (Noah) said: “My Lord!
Leave not one of the disbelievers on the
earth!
[27] ﺇِﻧَّﻚَ ﺇِﻥ ﺗَﺬَﺭﻫُﻢ ﻳُﻀِﻠّﻮﺍ
ﻋِﺒﺎﺩَﻙَ ﻭَﻻ ﻳَﻠِﺪﻭﺍ ﺇِﻟّﺎ ﻓﺎﺟِﺮًﺍ
ﻛَﻔّﺎﺭًﺍ
[27] যদি আপনি তাদেরকে রেহাই দেন,
তবে তারা আপনার বান্দাদেরকে পথভ্রষ্ট
করবে এবং জন্ম দিতে থাকবে কেবল
পাপাচারী, কাফের।
[27] “If You leave them, they will mislead
Your slaves, and they will beget none but
wicked disbelievers.”
[28] ﺭَﺏِّ ﺍﻏﻔِﺮ ﻟﻰ ﻭَﻟِﻮٰﻟِﺪَﻯَّ
ﻭَﻟِﻤَﻦ ﺩَﺧَﻞَ ﺑَﻴﺘِﻰَ ﻣُﺆﻣِﻨًﺎ
ﻭَﻟِﻠﻤُﺆﻣِﻨﻴﻦَ ﻭَﺍﻟﻤُﺆﻣِﻨٰﺖِ ﻭَﻻ
ﺗَﺰِﺩِ ﺍﻟﻈّٰﻠِﻤﻴﻦَ ﺇِﻟّﺎ ﺗَﺒﺎﺭًﺍ
[28] হে আমার পালনকর্তা! আপনি আমাকে,
আমার পিতা-মাতাকে, যারা মুমিন হয়ে আমার গৃহে
প্রবেশ করে-তাদেরকে এবং মুমিন পুরুষ ও
মুমিন নারীদেরকে ক্ষমা করুন এবং
যালেমদের কেবল ধ্বংসই বৃদ্ধি করুন।
[28] “My Lord! Forgive me, and my
parents, and him who enters my home as
a believer, and all the believing men and
women. And to the Zâlimûn (polytheists,
wrong-doers, and disbelievers) grant You
no increase but destruction!”
Bangla translation of Quran. Developed
by Syed Mohammad Rasel
Surah Nuh Recitation: Sa’ad Al Ghamdi 1. আমি নূহকে প্রেরণ করেছিলাম তাঁর সম্প্রদায়ের প্রতি একথা বলেঃ তুমি তোমার সম্প্রদায়কে সতর্ক কর, তাদের প্রতি মর্মন্তদ শাস্তি আসার আগে। 2. সে বলল, হে আমার সম্প্রদায়! আমি তোমাদের জন্যে স্পষ্ট সতর্ককারী। 3. এ বিষয়ে যে, তোমরা আল্লাহ তা’আলার এবাদত কর, তাঁকে ভয় কর এবং আমার আনুগত্য কর। 4. আল্লাহ তা’আলা তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করবেন এবং নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অবকাশ দিবেন। নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলার নির্দিষ্টকাল যখন হবে, তখন অবকাশ দেয়া হবে না, যদি তোমরা তা জানতে! 5. সে বললঃ হে আমার পালনকর্তা! আমি আমার সম্প্রদায়কে দিবারাত্রি দাওয়াত দিয়েছি; 6. কিন্তু আমার দাওয়াত তাদের পলায়নকেই বৃদ্ধি করেছে। 7. আমি যতবারই তাদেরকে দাওয়াত দিয়েছি, যাতে আপনি তাদেরকে ক্ষমা করেন, ততবারই তারা কানে অঙ্গুলি দিয়েছে, মুখমন্ডল বস্ত্রাবৃত করেছে, জেদ করেছে এবং খুব ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করেছে। 8. অতঃপর আমি তাদেরকে প্রকাশ্যে দাওয়াত দিয়েছি, 9. অতঃপর আমি ঘোষণা সহকারে প্রচার করেছি এবং গোপনে চুপিসারে বলেছি। 10. অতঃপর বলেছিঃ তোমরা তোমাদের পালনকর্তার ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল। 11. তিনি তোমাদের উপর অজস্র বৃষ্টিধারা ছেড়ে দিবেন, 12. তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি বাড়িয়ে দিবেন, তোমাদের জন্যে উদ্যান স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্যে নদীনালা প্রবাহিত করবেন। 13. তোমাদের কি হল যে, তোমরা আল্লাহ তা’আলার শ্রেষ্টত্ব আশা করছ না। 14. অথচ তিনি তোমাদেরকে বিভিন্ন রকমে সৃষ্টি করেছেন। 15. তোমরা কি লক্ষ্য কর না যে, আল্লাহ কিভাবে সপ্ত আকাশ স্তরে স্তরে সৃষ্টি করেছেন। 16. এবং সেখানে চন্দ্রকে রেখেছেন আলোরূপে এবং সূর্যকে রেখেছেন প্রদীপরূপে। 17. আল্লাহ তা’আলা তোমাদেরকে মৃত্তিকা থেকে উদগত করেছেন। 18. অতঃপর তাতে ফিরিয়ে নিবেন এবং আবার পুনরুত্থিত করবেন। 19. আল্লাহ তা’আলা তোমাদের জন্যে ভূমিকে করেছেন বিছানা। 20. যাতে তোমরা চলাফেরা কর প্রশস্ত পথে। 21. নূহ বললঃ হে আমার পালনকর্তা, আমার সম্প্রদায় আমাকে অমান্য করেছে আর অনুসরণ করছে এমন লোককে, যার ধন-সম্পদ ও সন্তান- সন্ততি কেবল তার ক্ষতিই বৃদ্ধি করছে। 22. আর তারা ভয়ানক চক্রান্ত করছে। 23. তারা বলছেঃ তোমরা তোমাদের উপাস্যদেরকে ত্যাগ করো না এবং ত্যাগ করো না ওয়াদ, সূয়া, ইয়াগুছ, ইয়াউক ও নসরকে। 24. অথচ তারা অনেককে পথভ্রষ্ট করেছে। অতএব আপনি জালেমদের পথভ্রষ্টতাই বাড়িয়ে দিন। 25. তাদের গোনাহসমূহের দরুন তাদেরকে নিমজ্জিত করা হয়েছে, অতঃপর দাখিল করা হয়েছে জাহান্নামে। অতঃপর তারা আল্লাহ তা’আলা ব্যতীত কাউকে সাহায্যকারী পায়নি। 26. নূহ আরও বললঃ হে আমার পালনকর্তা, আপনি পৃথিবীতে কোন কাফের গৃহবাসীকে রেহাই দিবেন না। 27. যদি আপনি তাদেরকে রেহাই দেন, তবে তারা আপনার বান্দাদেরকে পথভ্রষ্ট করবে এবং জন্ম দিতে থাকবে কেবল পাপাচারী, কাফের। 28. হে আমার পালনকর্তা! আপনি আমাকে, আমার পিতা-মাতাকে, যারা মুমিন হয়ে আমার গৃহে প্রবেশ করে-তাদেরকে এবং মুমিন পুরুষ ও মুমিন নারীদেরকে ক্ষমা করুন এবং যালেমদের কেবল ধ্বংসই বৃদ্ধি করুন। *********

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s