76.সুরাহ আল দাহর (1-31)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি
দয়ালু
[1] ﻫَﻞ ﺃَﺗﻰٰ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻹِﻧﺴٰﻦِ
ﺣﻴﻦٌ ﻣِﻦَ ﺍﻟﺪَّﻫﺮِ ﻟَﻢ ﻳَﻜُﻦ ﺷَﻴـًٔﺎ
ﻣَﺬﻛﻮﺭًﺍ
[1] মানুষের উপর এমন কিছু সময় অতিবাহিত
হয়েছে যখন সে উল্লেখযোগ্য কিছু ছিল
না।
[1] Has there not been over man a
period of time, when he was not a thing
worth mentioning?
[2] ﺇِﻧّﺎ ﺧَﻠَﻘﻨَﺎ ﺍﻹِﻧﺴٰﻦَ ﻣِﻦ
ﻧُﻄﻔَﺔٍ ﺃَﻣﺸﺎﺝٍ ﻧَﺒﺘَﻠﻴﻪِ ﻓَﺠَﻌَﻠﻨٰﻪُ
ﺳَﻤﻴﻌًﺎ ﺑَﺼﻴﺮًﺍ
[2] আমি মানুষকে সৃষ্টি করেছি মিশ্র শুক্রবিন্দু
থেকে, এভাবে যে, তাকে পরীক্ষা করব
অতঃপর তাকে করে দিয়েছি শ্রবণ ও
দৃষ্টিশক্তিসম্পন্ন।
[2] Verily, We have created man from
Nutfah (drops) of mixed semen (sexual
discharge of man and woman), in order
to try him, so We made him hearer and
seer.
[3] ﺇِﻧّﺎ ﻫَﺪَﻳﻨٰﻪُ ﺍﻟﺴَّﺒﻴﻞَ ﺇِﻣّﺎ
ﺷﺎﻛِﺮًﺍ ﻭَﺇِﻣّﺎ ﻛَﻔﻮﺭًﺍ
[3] আমি তাকে পথ দেখিয়ে দিয়েছি। এখন
সে হয় কৃতজ্ঞ হয়, না হয় অকৃতজ্ঞ হয়।
[3] Verily, We showed him the way,
whether he be grateful or ungrateful.
[4] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﻋﺘَﺪﻧﺎ ﻟِﻠﻜٰﻔِﺮﻳﻦَ ﺳَﻠٰﺴِﻠَﺎ۟
ﻭَﺃَﻏﻠٰﻠًﺎ ﻭَﺳَﻌﻴﺮًﺍ
[4] আমি অবিশ্বাসীদের জন্যে প্রস্তুত
রেখেছি শিকল, বেড়ি ও প্রজ্বলিত অগ্নি।
[4] Verily, We have prepared for the
disbelievers iron chains, iron collars,
and a blazing Fire.
[5] ﺇِﻥَّ ﺍﻷَﺑﺮﺍﺭَ ﻳَﺸﺮَﺑﻮﻥَ ﻣِﻦ
ﻛَﺄﺱٍ ﻛﺎﻥَ ﻣِﺰﺍﺟُﻬﺎ ﻛﺎﻓﻮﺭًﺍ
[5] নিশ্চয়ই সৎকর্মশীলরা পান করবে কাফুর
মিশ্রিত পানপাত্র।
[5] Verily, the Abrâr (the pious and
righteous) shall drink of a cup (of wine)
mixed with (water from a spring in
Paradise called) Kâfûr.
[6] ﻋَﻴﻨًﺎ ﻳَﺸﺮَﺏُ ﺑِﻬﺎ ﻋِﺒﺎﺩُ ﺍﻟﻠَّﻪِ
ﻳُﻔَﺠِّﺮﻭﻧَﻬﺎ ﺗَﻔﺠﻴﺮًﺍ
[6] এটা একটা ঝরণা, যা থেকে আল্লাহর
বান্দাগণ পান করবে-তারা একে প্রবাহিত
করবে।
[6] A spring wherefrom the slaves of
Allâh will drink, causing it to gush forth
abundantly.
[7] ﻳﻮﻓﻮﻥَ ﺑِﺎﻟﻨَّﺬﺭِ ﻭَﻳَﺨﺎﻓﻮﻥَ
ﻳَﻮﻣًﺎ ﻛﺎﻥَ ﺷَﺮُّﻩُ ﻣُﺴﺘَﻄﻴﺮًﺍ
[7] তারা মান্নত পূর্ণ করে এবং সেদিনকে ভয়
করে, যেদিনের অনিষ্ট হবে
সুদূরপ্রসারী।
[7] They (are those who) fulfill (their)
vows, and they fear a Day whose evil
will be wide-spreading.
[8] ﻭَﻳُﻄﻌِﻤﻮﻥَ ﺍﻟﻄَّﻌﺎﻡَ ﻋَﻠﻰٰ
ﺣُﺒِّﻪِ ﻣِﺴﻜﻴﻨًﺎ ﻭَﻳَﺘﻴﻤًﺎ ﻭَﺃَﺳﻴﺮًﺍ
[8] তারা আল্লাহর প্রেমে অভাবগ্রস্ত,
এতীম ও বন্দীকে আহার্য দান করে।
[8] And they give food, inspite of their
love for it (or for the love of Him), to
Miskin (the poor), the orphan, and the
captive,
[9] ﺇِﻧَّﻤﺎ ﻧُﻄﻌِﻤُﻜُﻢ ﻟِﻮَﺟﻪِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻻ
ﻧُﺮﻳﺪُ ﻣِﻨﻜُﻢ ﺟَﺰﺍﺀً ﻭَﻻ ﺷُﻜﻮﺭًﺍ
[9] তারা বলেঃ কেবল আল্লাহর সন্তুষ্টির
জন্যে আমরা তোমাদেরকে আহার্য দান করি
এবং তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান ও
কৃতজ্ঞতা কামনা করি না।
[9] (Saying): “We feed you seeking
Allâh’s Countenance only. We wish for
no reward, nor thanks from you.
[10] ﺇِﻧّﺎ ﻧَﺨﺎﻑُ ﻣِﻦ ﺭَﺑِّﻨﺎ ﻳَﻮﻣًﺎ
ﻋَﺒﻮﺳًﺎ ﻗَﻤﻄَﺮﻳﺮًﺍ
[10] আমরা আমাদের পালনকর্তার তরফ
থেকে এক ভীতিপ্রদ ভয়ংকর দিনের ভয়
রাখি।
[10] “Verily, We fear from our Lord a
Day, hard and distressful, that will make
the faces look horrible (from extreme
dislike to it).”
[11] ﻓَﻮَﻗﻯٰﻬُﻢُ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﺷَﺮَّ ﺫٰﻟِﻚَ
ﺍﻟﻴَﻮﻡِ ﻭَﻟَﻘّﻯٰﻬُﻢ ﻧَﻀﺮَﺓً
ﻭَﺳُﺮﻭﺭًﺍ
[11] অতঃপর আল্লাহ তাদেরকে সেদিনের
অনিষ্ট থেকে রক্ষা করবেন এবং
তাদেরকে দিবেন সজীবতা ও আনন্দ।
[11] So Allâh saved them from the evil of
that Day, and gave them Nadhrah (a light
of beauty) and joy.
[12] ﻭَﺟَﺰﻯٰﻬُﻢ ﺑِﻤﺎ ﺻَﺒَﺮﻭﺍ
ﺟَﻨَّﺔً ﻭَﺣَﺮﻳﺮًﺍ
[12] এবং তাদের সবরের প্রতিদানে
তাদেরকে দিবেন জান্নাত ও রেশমী
পোশাক।
[12] And their recompense shall be
Paradise, and silken garments, because
they were patient.
[13] ﻣُﺘَّﻜِـٔﻴﻦَ ﻓﻴﻬﺎ ﻋَﻠَﻰ
ﺍﻷَﺭﺍﺋِﻚِ ۖ ﻻ ﻳَﺮَﻭﻥَ ﻓﻴﻬﺎ
ﺷَﻤﺴًﺎ ﻭَﻻ ﺯَﻣﻬَﺮﻳﺮًﺍ
[13] তারা সেখানে সিংহাসনে হেলান দিয়ে
বসবে। সেখানে রৌদ্র ও শৈত্য অনুভব
করবে না।
[13] Reclining therein on raised thrones,
they will see there neither the excessive
heat of the sun, nor the excessive bitter
cold, (as in Paradise there is no sun and
no moon).
[14] ﻭَﺩﺍﻧِﻴَﺔً ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﻇِﻠٰﻠُﻬﺎ
ﻭَﺫُﻟِّﻠَﺖ ﻗُﻄﻮﻓُﻬﺎ ﺗَﺬﻟﻴﻠًﺎ
[14] তার বৃক্ষছায়া তাদের উপর ঝুঁকে থাকবে
এবং তার ফলসমূহ তাদের আয়ত্তাধীন রাখা
হবে।
[14] And the shade thereof is close upon
them, and the bunches of fruit thereof
will hang low within their reach.
[15] ﻭَﻳُﻄﺎﻑُ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ ﺑِـٔﺎﻧِﻴَﺔٍ ﻣِﻦ
ﻓِﻀَّﺔٍ ﻭَﺃَﻛﻮﺍﺏٍ ﻛﺎﻧَﺖ ﻗَﻮﺍﺭﻳﺮﺍ۠
[15] তাদেরকে পরিবেশন করা হবে রূপার
পাত্রে এবং স্ফটিকের মত পানপাত্রে।
[15] And amongst them will be passed
round vessels of silver and cups of
crystal —
[16] ﻗَﻮﺍﺭﻳﺮَﺍ۟ ﻣِﻦ ﻓِﻀَّﺔٍ
ﻗَﺪَّﺭﻭﻫﺎ ﺗَﻘﺪﻳﺮًﺍ
[16] রূপালী স্ফটিক পাত্রে,
পরিবেশনকারীরা তা পরিমাপ করে পূর্ণ
করবে।
[16] Crystal-clear, made of silver. They
will determine the measure thereof
(according to their wishes).
[17] ﻭَﻳُﺴﻘَﻮﻥَ ﻓﻴﻬﺎ ﻛَﺄﺳًﺎ ﻛﺎﻥَ
ﻣِﺰﺍﺟُﻬﺎ ﺯَﻧﺠَﺒﻴﻠًﺎ
[17] তাদেরকে সেখানে পান করানো হবে
‘যানজাবীল’ মিশ্রিত পানপাত্র।
[17] And they will be given to drink
there of a cup (of wine) mixed with
Zanjabîl (ginger).
[18] ﻋَﻴﻨًﺎ ﻓﻴﻬﺎ ﺗُﺴَﻤّﻰٰ
ﺳَﻠﺴَﺒﻴﻠًﺎ
[18] এটা জান্নাতস্থিত ‘সালসাবীল’ নামক একটি
ঝরণা।
[18] A spring there, called Salsabîl.
[19] ۞ ﻭَﻳَﻄﻮﻑُ ﻋَﻠَﻴﻬِﻢ
ﻭِﻟﺪٰﻥٌ ﻣُﺨَﻠَّﺪﻭﻥَ ﺇِﺫﺍ ﺭَﺃَﻳﺘَﻬُﻢ
ﺣَﺴِﺒﺘَﻬُﻢ ﻟُﺆﻟُﺆًﺍ ﻣَﻨﺜﻮﺭًﺍ
[19] তাদের কাছে ঘোরাফেরা করবে চির
কিশোরগণ। আপনি তাদেরকে দেখে মনে
করবেন যেন বিক্ষিপ্ত মনি-মুক্তা।
[19] And round about them will (serve)
boys of everlasting youth. If you see
them, you would think them scattered
pearls.
[20] ﻭَﺇِﺫﺍ ﺭَﺃَﻳﺖَ ﺛَﻢَّ ﺭَﺃَﻳﺖَ
ﻧَﻌﻴﻤًﺎ ﻭَﻣُﻠﻜًﺎ ﻛَﺒﻴﺮًﺍ
[20] আপনি যখন সেখানে দেখবেন, তখন
নেয়ামতরাজি ও বিশাল রাজ্য দেখতে পাবেন।
[20] And when you look there (in
Paradise), you will see a delight (that
cannot be imagined), and a great
dominion.
[21] ﻋٰﻠِﻴَﻬُﻢ ﺛِﻴﺎﺏُ ﺳُﻨﺪُﺱٍ
ﺧُﻀﺮٌ ﻭَﺇِﺳﺘَﺒﺮَﻕٌ ۖ ﻭَﺣُﻠّﻮﺍ
ﺃَﺳﺎﻭِﺭَ ﻣِﻦ ﻓِﻀَّﺔٍ ﻭَﺳَﻘﻯٰﻬُﻢ
ﺭَﺑُّﻬُﻢ ﺷَﺮﺍﺑًﺎ ﻃَﻬﻮﺭًﺍ
[21] তাদের আবরণ হবে চিকন সবুজ রেশম
ও মোটা সবুজ রেশম এবং তাদেরকে পরিধান
করোনো হবে রৌপ্য নির্মিত কংকণ এবং
তাদের পালনকর্তা তাদেরকে পান করাবেন
‘শরাবান-তহুরা’।
[21] Their garments will be of fine green
silk, and gold embroidery. They will be
adorned with bracelets of silver, and
their Lord will give them a pure drink.
[22] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺬﺍ ﻛﺎﻥَ ﻟَﻜُﻢ ﺟَﺰﺍﺀً
ﻭَﻛﺎﻥَ ﺳَﻌﻴُﻜُﻢ ﻣَﺸﻜﻮﺭًﺍ
[22] এটা তোমাদের প্রতিদান। তোমাদের
প্রচেষ্টা স্বীকৃতি লাভ করেছে।
[22] (And it will be said to them):
“Verily, this is a reward for you, and
your endeavour has been accepted.”
[23] ﺇِﻧّﺎ ﻧَﺤﻦُ ﻧَﺰَّﻟﻨﺎ ﻋَﻠَﻴﻚَ
ﺍﻟﻘُﺮﺀﺍﻥَ ﺗَﻨﺰﻳﻠًﺎ
[23] আমি আপনার প্রতি পর্যায়ক্রমে
কোরআন নাযিল করেছি।
[23] Verily, It is We Who have sent down
the Qur’ân to you (O Muhammad SAW)
by stages.
[24] ﻓَﺎﺻﺒِﺮ ﻟِﺤُﻜﻢِ ﺭَﺑِّﻚَ ﻭَﻻ
ﺗُﻄِﻊ ﻣِﻨﻬُﻢ ﺀﺍﺛِﻤًﺎ ﺃَﻭ ﻛَﻔﻮﺭًﺍ
[24] অতএব, আপনি আপনার পালনকর্তার
আদেশের জন্যে ধৈর্য্য সহকারে
অপেক্ষা করুন এবং ওদের মধ্যকার কোন
পাপিষ্ঠ কাফেরের আনুগত্য করবেন না।
[24] Therefore be patient (O Muhammad
SAW) with costancy to the Command of
your Lord (Allâh, by doing your duty to
Him and by conveying His Message to
mankind), and obey neither a sinner nor
a disbeliever among them.
[25] ﻭَﺍﺫﻛُﺮِ ﺍﺳﻢَ ﺭَﺑِّﻚَ ﺑُﻜﺮَﺓً
ﻭَﺃَﺻﻴﻠًﺎ
[25] এবং সকাল-সন্ধ্যায় আপন পালনকর্তার নাম
স্মরণ করুন।
[25] And remember the Name of your
Lord every morning and afternoon [i.e.
offering of the Morning (Fajr), Zuhr, and
‘Asr prayers].
[26] ﻭَﻣِﻦَ ﺍﻟَّﻴﻞِ ﻓَﺎﺳﺠُﺪ ﻟَﻪُ
ﻭَﺳَﺒِّﺤﻪُ ﻟَﻴﻠًﺎ ﻃَﻮﻳﻠًﺎ
[26] রাত্রির কিছু অংশে তাঁর উদ্দেশে সিজদা
করুন এবং রাত্রির দীর্ঘ সময় তাঁর পবিত্রতা
বর্ণনা করুন।
[26] And during night, prostrate yourself
to Him (i.e. the offering of Maghrib and
‘Ishâ’ prayers), and glorify Him a long
night through (i.e. Tahajjud prayer)
[27] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺆُﻻﺀِ ﻳُﺤِﺒّﻮﻥَ
ﺍﻟﻌﺎﺟِﻠَﺔَ ﻭَﻳَﺬَﺭﻭﻥَ ﻭَﺭﺍﺀَﻫُﻢ
ﻳَﻮﻣًﺎ ﺛَﻘﻴﻠًﺎ
[27] নিশ্চয় এরা পার্থিব জীবনকে ভালবাসে
এবং এক কঠিন দিবসকে পশ্চাতে ফেলে
রাখে।
[27] Verily, these (disbelievers) love the
present life of this world, and put behind
them a heavy Day (that will be hard).
[28] ﻧَﺤﻦُ ﺧَﻠَﻘﻨٰﻬُﻢ ﻭَﺷَﺪَﺩﻧﺎ
ﺃَﺳﺮَﻫُﻢ ۖ ﻭَﺇِﺫﺍ ﺷِﺌﻨﺎ ﺑَﺪَّﻟﻨﺎ
ﺃَﻣﺜٰﻠَﻬُﻢ ﺗَﺒﺪﻳﻠًﺎ
[28] আমি তাদেরকে সৃষ্টি করেছি এবং মজবুত
করেছি তাদের গঠন। আমি যখন ইচ্ছা করব,
তখন তাদের পরিবর্তে তাদের অনুরূপ লোক
আনব।
[28] It is We Who created them, and We
have made them of strong built. And
when We will, We can replace them with
others like them with a complete
replacement.
[29] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺬِﻩِ ﺗَﺬﻛِﺮَﺓٌ ۖ ﻓَﻤَﻦ
ﺷﺎﺀَ ﺍﺗَّﺨَﺬَ ﺇِﻟﻰٰ ﺭَﺑِّﻪِ ﺳَﺒﻴﻠًﺎ
[29] এটা উপদেশ, অতএব যার ইচ্ছা হয় সে
তার পালনকর্তার পথ অবলম্বন করুক।
[29] Verily, this (Verses of the Qur’ân) is
an admonition, so whosoever wills, let
him take a Path to his Lord (Allâh).
[30] ﻭَﻣﺎ ﺗَﺸﺎﺀﻭﻥَ ﺇِﻟّﺎ ﺃَﻥ
ﻳَﺸﺎﺀَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ۚ ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﻛﺎﻥَ
ﻋَﻠﻴﻤًﺎ ﺣَﻜﻴﻤًﺎ
[30] আল্লাহর অভিপ্রায় ব্যতিরেকে তোমরা
অন্য কোন অভিপ্রায় পোষণ করবে না।
আল্লাহ সর্বজ্ঞ প্রজ্ঞাময়।
[30] But you cannot will, unless Allâh
wills. Verily, Allâh is Ever All-Knowing,
All-Wise
[31] ﻳُﺪﺧِﻞُ ﻣَﻦ ﻳَﺸﺎﺀُ ﻓﻰ
ﺭَﺣﻤَﺘِﻪِ ۚ ﻭَﺍﻟﻈّٰﻠِﻤﻴﻦَ ﺃَﻋَﺪَّ ﻟَﻬُﻢ
ﻋَﺬﺍﺑًﺎ ﺃَﻟﻴﻤًﺎ
[31] তিনি যাকে ইচ্ছা তাঁর রহমতে দাখিল
করেন। আর যালেমদের জন্যে তো
প্রস্তুত রেখেছেন মর্মন্তুদ শাস্তি।
[31] He will admit to His Mercy whom He
wills and as for the Zâlimûn —
(polytheists, wrong-doers) He has
prepared a painful torment.

Advertisements