78.সুরাহ আন নাবা (01-40)


শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম
করুণাময়, অতি দয়ালু
[1] ﻋَﻢَّ ﻳَﺘَﺴﺎﺀَﻟﻮﻥَ
[1] তারা পরস্পরে কি বিষয়ে
জিজ্ঞাসাবাদ করছে?
[1] What are they asking (one another
about)?
[2] ﻋَﻦِ ﺍﻟﻨَّﺒَﺈِ ﺍﻟﻌَﻈﻴﻢِ
[2] মহা সংবাদ সম্পর্কে,
[2] About the great news, (i.e. Islâmic
Monotheism, the Qur’ân, which Prophet
Muhammad (SAW) brought and the Day
of Resurrection),
[3] ﺍﻟَّﺬﻯ ﻫُﻢ ﻓﻴﻪِ ﻣُﺨﺘَﻠِﻔﻮﻥَ
[3] যে সম্পর্কে তারা মতানৈক্য করে।
[3] About which they are in
disagreement.
[4] ﻛَﻠّﺎ ﺳَﻴَﻌﻠَﻤﻮﻥَ
[4] না, সত্ত্বরই তারা জানতে পারবে,
[4] Nay, they will come to know!
[5] ﺛُﻢَّ ﻛَﻠّﺎ ﺳَﻴَﻌﻠَﻤﻮﻥَ
[5] অতঃপর না, সত্বর তারা জানতে
পারবে।
[5] Nay, again, they will come to know!
[6] ﺃَﻟَﻢ ﻧَﺠﻌَﻞِ ﺍﻷَﺭﺽَ ﻣِﻬٰﺪًﺍ
[6] আমি কি করিনি ভূমিকে বিছানা
[6] Have We not made the earth as a
bed,
[7] ﻭَﺍﻟﺠِﺒﺎﻝَ ﺃَﻭﺗﺎﺩًﺍ
[7] এবং পর্বতমালাকে পেরেক?
[7] And the mountains as pegs?
[8] ﻭَﺧَﻠَﻘﻨٰﻜُﻢ ﺃَﺯﻭٰﺟًﺎ
[8] আমি তোমাদেরকে জোড়া
জোড়া সৃষ্টি করেছি,
[8] And We have created you in pairs
(male and female, tall and short, good
and bad, etc.)
[9] ﻭَﺟَﻌَﻠﻨﺎ ﻧَﻮﻣَﻜُﻢ ﺳُﺒﺎﺗًﺎ
[9] তোমাদের নিদ্রাকে করেছি
ক্লান্তি দূরকারী,
[9] And We have made your sleep as a
thing for rest
[10] ﻭَﺟَﻌَﻠﻨَﺎ ﺍﻟَّﻴﻞَ ﻟِﺒﺎﺳًﺎ
[10] রাত্রিকে করেছি আবরণ।
[10] And We have made the night as a
covering (through its darkness),
[11] ﻭَﺟَﻌَﻠﻨَﺎ ﺍﻟﻨَّﻬﺎﺭَ ﻣَﻌﺎﺷًﺎ
[11] দিনকে করেছি জীবিকা অর্জনের
সময়,
[11] And We have made the day for
livelihood.
[12] ﻭَﺑَﻨَﻴﻨﺎ ﻓَﻮﻗَﻜُﻢ ﺳَﺒﻌًﺎ
ﺷِﺪﺍﺩًﺍ
[12] নির্মান করেছি তোমাদের
মাথার উপর মজবুত সপ্ত-আকাশ।
[12] And We have built above you seven
strong (heavens),
[13] ﻭَﺟَﻌَﻠﻨﺎ ﺳِﺮﺍﺟًﺎ ﻭَﻫّﺎﺟًﺎ
[13] এবং একটি উজ্জ্বল প্রদীপ সৃষ্টি
করেছি।
[13] And We have made (therein) a
shinning lamp (sun).
[14] ﻭَﺃَﻧﺰَﻟﻨﺎ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻤُﻌﺼِﺮٰﺕِ
ﻣﺎﺀً ﺛَﺠّﺎﺟًﺎ
[14] আমি জলধর মেঘমালা থেকে প্রচুর
বৃষ্টিপাত করি,
[14] And We have sent down from the
rainy clouds abundant water.
[15] ﻟِﻨُﺨﺮِﺝَ ﺑِﻪِ ﺣَﺒًّﺎ ﻭَﻧَﺒﺎﺗًﺎ
[15] যাতে তদ্দ্বারা উৎপন্ন করি শস্য,
উদ্ভিদ।
[15] That We may produce therewith
corn and vegetations,
[16] ﻭَﺟَﻨّٰﺖٍ ﺃَﻟﻔﺎﻓًﺎ
[16] ও পাতাঘন উদ্যান।
[16] And gardens of thick growth.
[17] ﺇِﻥَّ ﻳَﻮﻡَ ﺍﻟﻔَﺼﻞِ ﻛﺎﻥَ
ﻣﻴﻘٰﺘًﺎ
[17] নিশ্চয় বিচার দিবস নির্ধারিত
রয়েছে।
[17] Verily, the Day of Decision is a fixed
time,
[18] ﻳَﻮﻡَ ﻳُﻨﻔَﺦُ ﻓِﻰ ﺍﻟﺼّﻮﺭِ
ﻓَﺘَﺄﺗﻮﻥَ ﺃَﻓﻮﺍﺟًﺎ
[18] যেদিন শিংগায় ফুঁক দেয়া হবে,
তখন তোমরা দলে দলে সমাগত হবে।
[18] The Day when the Trumpet will be
blown, and you shall come forth in
crowds (groups after groups). (Tafsir At-
Tabari)
[19] ﻭَﻓُﺘِﺤَﺖِ ﺍﻟﺴَّﻤﺎﺀُ ﻓَﻜﺎﻧَﺖ
ﺃَﺑﻮٰﺑًﺎ
[19] আকাশ বিদীর্ণ হয়ে; তাতে বহু
দরজা সৃষ্টি হবে।
[19] And the heaven shall be opened,
and it will become as gates,
[20] ﻭَﺳُﻴِّﺮَﺕِ ﺍﻟﺠِﺒﺎﻝُ ﻓَﻜﺎﻧَﺖ
ﺳَﺮﺍﺑًﺎ
[20] এবং পর্বতমালা চালিত হয়ে
মরীচিকা হয়ে যাবে।
[20] And the mountains shall be moved
away from their places and they will be
as if they were a mirage.
[21] ﺇِﻥَّ ﺟَﻬَﻨَّﻢَ ﻛﺎﻧَﺖ ﻣِﺮﺻﺎﺩًﺍ
[21] নিশ্চয় জাহান্নাম প্রতীক্ষায়
থাকবে,
[21] Truly, Hell is a place of ambush —
[22] ﻟِﻠﻄّٰﻐﻴﻦَ ﻣَـٔﺎﺑًﺎ
[22] সীমালংঘনকারীদের
আশ্রয়স্থলরূপে।
[22] A dwelling place for the Tâghûn
(those who transgress the boundry limits
set by Allâh like polytheists, disbelievers
in the Oneness of Allâh, hyprocrites,
sinners, criminals),
[23] ﻟٰﺒِﺜﻴﻦَ ﻓﻴﻬﺎ ﺃَﺣﻘﺎﺑًﺎ
[23] তারা তথায় শতাব্দীর পর শতাব্দী
অবস্থান করবে।
[23] They will abide therein for ages,
[24] ﻻ ﻳَﺬﻭﻗﻮﻥَ ﻓﻴﻬﺎ ﺑَﺮﺩًﺍ ﻭَﻻ
ﺷَﺮﺍﺑًﺎ
[24] তথায় তারা কোন শীতল এবং
পানীয় আস্বাদন করবে না;
[24] Nothing cool shall they taste therein,
nor any drink.
[25] ﺇِﻟّﺎ ﺣَﻤﻴﻤًﺎ ﻭَﻏَﺴّﺎﻗًﺎ
[25] কিন্তু ফুটন্ত পানি ও পূঁজ পাবে।
[25] Except boiling water, and dirty
wound discharges —
[26] ﺟَﺰﺍﺀً ﻭِﻓﺎﻗًﺎ
[26] পরিপূর্ণ প্রতিফল হিসেবে।
[26] An exact recompense (according to
their evil crimes)
[27] ﺇِﻧَّﻬُﻢ ﻛﺎﻧﻮﺍ ﻻ ﻳَﺮﺟﻮﻥَ
ﺣِﺴﺎﺑًﺎ
[27] নিশ্চয় তারা হিসাব-নিকাশ আশা
করত না।
[27] For verily, they used not to look for
a reckoning.
[28] ﻭَﻛَﺬَّﺑﻮﺍ ﺑِـٔﺎﻳٰﺘِﻨﺎ ﻛِﺬّﺍﺑًﺎ
[28] এবং আমার আয়াতসমূহে পুরোপুরি
মিথ্যারোপ করত।
[28] But they belied Our Ayât (proofs,
evidences, verses, lessons, signs,
revelations, and that which Our Prophet
SAW brought) completely.
[29] ﻭَﻛُﻞَّ ﺷَﻲﺀٍ ﺃَﺣﺼَﻴﻨٰﻪُ
ﻛِﺘٰﺒًﺎ
[29] আমি সবকিছুই লিপিবদ্ধ করে
সংরক্ষিত করেছি।
[29] And all things We have recorded in
a Book.
[30] ﻓَﺬﻭﻗﻮﺍ ﻓَﻠَﻦ ﻧَﺰﻳﺪَﻛُﻢ ﺇِﻟّﺎ
ﻋَﺬﺍﺑًﺎ
[30] অতএব, তোমরা আস্বাদন কর, আমি
কেবল তোমাদের শাস্তিই বৃদ্ধি করব।
[30] So taste you (the results of your evil
actions); No increase shall We give you,
except in torment.
[31] ﺇِﻥَّ ﻟِﻠﻤُﺘَّﻘﻴﻦَ ﻣَﻔﺎﺯًﺍ
[31] পরহেযগারদের জন্যে রয়েছে
সাফল্য।
[31] Verily, for the Muttaqûn, there will
be a success (Paradise);
[32] ﺣَﺪﺍﺋِﻖَ ﻭَﺃَﻋﻨٰﺒًﺎ
[32] উদ্যান, আঙ্গুর,
[32] Gardens and vineyards,
[33] ﻭَﻛَﻮﺍﻋِﺐَ ﺃَﺗﺮﺍﺑًﺎ
[33] সমবয়স্কা, পূর্ণযৌবনা তরুণী।
[33] And young full-breasted (mature)
maidens of equal age,
[34] ﻭَﻛَﺄﺳًﺎ ﺩِﻫﺎﻗًﺎ
[34] এবং পূর্ণ পানপাত্র।
[34] And a full cup (of wine).
[35] ﻻ ﻳَﺴﻤَﻌﻮﻥَ ﻓﻴﻬﺎ ﻟَﻐﻮًﺍ ﻭَﻻ
ﻛِﺬّٰﺑًﺎ
[35] তারা তথায় অসার ও মিথ্যা বাক্য
শুনবে না।
[35] No Laghw (dirty, false, evil talk)
shall they hear therein, nor lying;
[36] ﺟَﺰﺍﺀً ﻣِﻦ ﺭَﺑِّﻚَ ﻋَﻄﺎﺀً
ﺣِﺴﺎﺑًﺎ
[36] এটা আপনার পালনকর্তার তরফ
থেকে যথোচিত দান,
[36] A reward from your Lord, an ample
calculated gift (according to the best of
their good deeds).
[37] ﺭَﺏِّ ﺍﻟﺴَّﻤٰﻮٰﺕِ ﻭَﺍﻷَﺭﺽِ
ﻭَﻣﺎ ﺑَﻴﻨَﻬُﻤَﺎ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ۖ ﻻ
ﻳَﻤﻠِﻜﻮﻥَ ﻣِﻨﻪُ ﺧِﻄﺎﺑًﺎ
[37] যিনি নভোমন্ডল, ভূমন্ডল ও
এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর
পালনকর্তা, দয়াময়, কেউ তাঁর সাথে
কথার অধিকারী হবে না।
[37] (From) the Lord of the heavens and
the earth, and whatsoever is in between
them, the Most Gracious with whome
they dare to speak (on the Day of
Resurrection except by His Leave).
[38] ﻳَﻮﻡَ ﻳَﻘﻮﻡُ ﺍﻟﺮّﻭﺡُ
ﻭَﺍﻟﻤَﻠٰﺌِﻜَﺔُ ﺻَﻔًّﺎ ۖ ﻻ ﻳَﺘَﻜَﻠَّﻤﻮﻥَ
ﺇِﻟّﺎ ﻣَﻦ ﺃَﺫِﻥَ ﻟَﻪُ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦُ ﻭَﻗﺎﻝَ
ﺻَﻮﺍﺑًﺎ
[38] যেদিন রূহ ও ফেরেশতাগণ
সারিবদ্ধভাবে দাঁড়াবে। দয়াময়
আল্লাহ যাকে অনুমতি দিবেন, সে
ব্যতিত কেউ কথা বলতে পারবে না
এবং সে সত্যকথা বলবে।
[38] The Day that Ar-Rûh [Jibril (Gabriel)
or another angel] and the angels will
stand forth in rows, none they will not
speak except him whom the Most
Gracious (Allâh) allows, and he will
speak what is right.
[39] ﺫٰﻟِﻚَ ﺍﻟﻴَﻮﻡُ ﺍﻟﺤَﻖُّ ۖ ﻓَﻤَﻦ
ﺷﺎﺀَ ﺍﺗَّﺨَﺬَ ﺇِﻟﻰٰ ﺭَﺑِّﻪِ ﻣَـٔﺎﺑًﺎ
[39] এই দিবস সত্য। অতঃপর যার ইচ্ছা,
সে তার পালনকর্তার কাছে ঠিকানা
তৈরী করুক।
[39] That is (without doubt) the True
Day, so, whosoever wills, let him seek a
place with (or a way to) His Lord (by
obeying Him in this worldly life)!
[40] ﺇِﻧّﺎ ﺃَﻧﺬَﺭﻧٰﻜُﻢ ﻋَﺬﺍﺑًﺎ ﻗَﺮﻳﺒًﺎ
ﻳَﻮﻡَ ﻳَﻨﻈُﺮُ ﺍﻟﻤَﺮﺀُ ﻣﺎ ﻗَﺪَّﻣَﺖ
ﻳَﺪﺍﻩُ ﻭَﻳَﻘﻮﻝُ ﺍﻟﻜﺎﻓِﺮُ ﻳٰﻠَﻴﺘَﻨﻰ
ﻛُﻨﺖُ ﺗُﺮٰﺑًﺎ
[40] আমি তোমাদেরকে আসন্ন শাস্তি
সম্পর্কে সতর্ক করলাম, যেদিন মানুষ
প্রত্যেক্ষ করবে যা সে সামনে প্রেরণ
করেছে এবং কাফের বলবেঃ হায়,
আফসোস-আমি যদি মাটি হয়ে যেতাম।
[40] Verily, We have warned you of a
near torment — the Day when man will
see that (the deeds) which his hands have
sent forth, and the disbeliever will say:1.
তারা পরস্পরে কি বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ
করছে?
2.
মহা সংবাদ সম্পর্কে,
3.
যে সম্পর্কে তারা মতানৈক্য করে।
4.
না, সত্ত্বরই তারা জানতে পারবে,
5.
অতঃপর না, সত্বর তারা জানতে
পারবে।
6.
আমি কি করিনি ভূমিকে বিছানা
7.
এবং পর্বতমালাকে পেরেক?
8.
আমি তোমাদেরকে জোড়া জোড়া
সৃষ্টি করেছি,
9.
তোমাদের নিদ্রাকে করেছি ক্লান্তি
দূরকারী,
10.
রাত্রিকে করেছি আবরণ।
11.
দিনকে করেছি জীবিকা অর্জনের
সময়,
12.
নির্মান করেছি তোমাদের মাথার উপর
মজবুত সপ্ত-আকাশ।
13.
এবং একটি উজ্জ্বল প্রদীপ সৃষ্টি
করেছি।
14.
আমি জলধর মেঘমালা থেকে
প্রচুর বৃষ্টিপাত করি,
15.
যাতে তদ্দ্বারা উৎপন্ন করি শস্য,
উদ্ভিদ।
16.
ও পাতাঘন উদ্যান।
17.
নিশ্চয় বিচার দিবস নির্ধারিত রয়েছে।
18.
যেদিন শিংগায় ফুঁক দেয়া হবে, তখন
তোমরা দলে দলে সমাগত হবে।
19.
আকাশ বিদীর্ণ হয়ে; তাতে বহু
দরজা সৃষ্টি হবে।
20.
এবং পর্বতমালা চালিত হয়ে মরীচিকা
হয়ে যাবে।
21.
নিশ্চয় জাহান্নাম প্রতীক্ষায় থাকবে,
22.
সীমালংঘনকারীদের
আশ্রয়স্থলরূপে।
23.
তারা তথায় শতাব্দীর পর শতাব্দী
অবস্থান করবে।
24.
তথায় তারা কোন শীতল এবং পানীয়
আস্বাদন করবে না;
25.
কিন্তু ফুটন্ত পানি ও পূঁজ পাবে।
26.
পরিপূর্ণ প্রতিফল হিসেবে।
27.
নিশ্চয় তারা হিসাব-নিকাশ আশা করত না।
28.
এবং আমার আয়াতসমূহে পুরোপুরি
মিথ্যারোপ করত।
29.
আমি সবকিছুই লিপিবদ্ধ করে সংরক্ষিত
করেছি।
30.
অতএব, তোমরা আস্বাদন কর, আমি
কেবল তোমাদের শাস্তিই বৃদ্ধি
করব।
31.
পরহেযগারদের জন্যে রয়েছে
সাফল্য।
32.
উদ্যান, আঙ্গুর,
33.
সমবয়স্কা, পূর্ণযৌবনা তরুণী।
34.
এবং পূর্ণ পানপাত্র।
35.
তারা তথায় অসার ও মিথ্যা বাক্য শুনবে
না।
36.
এটা আপনার পালনকর্তার তরফ
থেকে যথোচিত দান,
37.
যিনি নভোমন্ডল, ভূমন্ডল ও
এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর
পালনকর্তা, দয়াময়,
কেউ তাঁর সাথে কথার অধিকারী
হবে না।
38.
যেদিন রূহ ও ফেরেশতাগণ
সারিবদ্ধভাবে দাঁড়াবে।
দয়াময় আল্লাহ যাকে অনুমতি দিবেন,
সে ব্যতিত কেউ কথা বলতে
পারবে না এবং সে সত্যকথা বলবে।
39.
এই দিবস সত্য।
অতঃপর যার ইচ্ছা, সে তার পালনকর্তার
কাছে ঠিকানা তৈরী করুক।
40.
আমি তোমাদেরকে আসন্ন শাস্তি
সম্পর্কে সতর্ক করলাম,
যেদিন মানুষ প্রত্যেক্ষ করবে যা
সে সামনে প্রেরণ করেছে
এবং কাফের বলবেঃ হায়, আফসোস-
আমি যদি মাটি হয়ে যেতাম।
*********