87.সুরা আল আ ‘লা (1-19)


ﺑِﺴﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣﻤٰﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣﻴﻢِ – শুরু
করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম
করুণাময়, অতি দয়ালু
[1] ﺳَﺒِّﺢِ ﺍﺳﻢَ ﺭَﺑِّﻚَ ﺍﻷَﻋﻠَﻰ
[1] আপনি আপনার মহান পালনকর্তার
নামের পবিত্রতা বর্ণনা করুন
[1] Glorify the Name of your Lord, the
Most High,
[2] ﺍﻟَّﺬﻯ ﺧَﻠَﻖَ ﻓَﺴَﻮّﻯٰ
[2] যিনি সৃষ্টি করেছেন ও সুবিন্যস্ত
করেছেন।
[2] Who has created (everything), and
then proportioned it;
[3] ﻭَﺍﻟَّﺬﻯ ﻗَﺪَّﺭَ ﻓَﻬَﺪﻯٰ
[3] এবং যিনি সুপরিমিত করেছেন ও পথ
প্রদর্শন করেছেন
[3] And Who has measured
(preordainments for everything even to
be blessed or wretched); and then guided
(i.e. showed mankind the right as well as
wrong paths, and guided the animals to
pasture);
[4] ﻭَﺍﻟَّﺬﻯ ﺃَﺧﺮَﺝَ ﺍﻟﻤَﺮﻋﻰٰ
[4] এবং যিনি তৃণাদি উৎপন্ন করেছেন,
[4] And Who brings out the pasturage,
[5] ﻓَﺠَﻌَﻠَﻪُ ﻏُﺜﺎﺀً ﺃَﺣﻮﻯٰ
[5] অতঃপর করেছেন তাকে কাল
আবর্জনা।
[5] And then makes it dark stubble
[6] ﺳَﻨُﻘﺮِﺋُﻚَ ﻓَﻼ ﺗَﻨﺴﻰٰ
[6] আমি আপনাকে পাঠ করাতে থাকব,
ফলে আপনি বিস্মৃত হবেন না
[6] We shall make you to recite (the
Qur’ân), so you (O Muhammad (SAW))
shall not forget (it),
[7] ﺇِﻟّﺎ ﻣﺎ ﺷﺎﺀَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ۚ ﺇِﻧَّﻪُ ﻳَﻌﻠَﻢُ
ﺍﻟﺠَﻬﺮَ ﻭَﻣﺎ ﻳَﺨﻔﻰٰ
[7] আল্লাহ যা ইচ্ছা করেন তা ব্যতীত।
নিশ্চয় তিনি জানেন প্রকাশ্য ও
গোপন বিষয়।
[7] Except what Allâh, may will, He
knows what is apparent and what is
hidden.
[8] ﻭَﻧُﻴَﺴِّﺮُﻙَ ﻟِﻠﻴُﺴﺮﻯٰ
[8] আমি আপনার জন্যে সহজ শরীয়ত
সহজতর করে দেবো।
[8] And We shall make easy for you (O
Muhammad (SAW)) the easy way (i.e. the
doing of righteous deeds).
[9] ﻓَﺬَﻛِّﺮ ﺇِﻥ ﻧَﻔَﻌَﺖِ ﺍﻟﺬِّﻛﺮﻯٰ
[9] উপদেশ ফলপ্রসূ হলে উপদেশ দান
করুন,
[9] Therefore remind (men) in case the
reminder profits (them)
[10] ﺳَﻴَﺬَّﻛَّﺮُ ﻣَﻦ ﻳَﺨﺸﻰٰ
[10] যে ভয় করে, সে উপদেশ গ্রহণ করবে,
[10] The reminder will be received by
him who fears (Allâh),
[11] ﻭَﻳَﺘَﺠَﻨَّﺒُﻬَﺎ ﺍﻷَﺷﻘَﻰ
[11] আর যে, হতভাগা, সে তা উপেক্ষা
করবে,
[11] But it will be avoided by the
wretched,
[12] ﺍﻟَّﺬﻯ ﻳَﺼﻠَﻰ ﺍﻟﻨّﺎﺭَ ﺍﻟﻜُﺒﺮﻯٰ
[12] সে মহা-অগ্নিতে প্রবেশ করবে।
[12] Who will enter the great Fire (and
whill be made to taste its burning).
[13] ﺛُﻢَّ ﻻ ﻳَﻤﻮﺕُ ﻓﻴﻬﺎ ﻭَﻻ
ﻳَﺤﻴﻰٰ
[13] অতঃপর সেখানে সে মরবেও না,
জীবিতও থাকবে না।
[13] There he will neither die (to be in
rest) nor live (a good living).
[14] ﻗَﺪ ﺃَﻓﻠَﺢَ ﻣَﻦ ﺗَﺰَﻛّﻰٰ
[14] নিশ্চয় সাফল্য লাভ করবে সে, যে
শুদ্ধ হয়
[14] Indeed whosoever purifies himself
(by avoiding polytheism and accepting
Islâmic Monotheism) shall achieve
success,
[15] ﻭَﺫَﻛَﺮَ ﺍﺳﻢَ ﺭَﺑِّﻪِ ﻓَﺼَﻠّﻰٰ
[15] এবং তার পালনকর্তার নাম স্মরণ
করে, অতঃপর নামায আদায় করে।
[15] And remembers (glorifies) the Name
of his Lord (worships none but Allâh),
and prays (five compulsory prayers and
Nawâfil — additional prayers).
[16] ﺑَﻞ ﺗُﺆﺛِﺮﻭﻥَ ﺍﻟﺤَﻴﻮٰﺓَ
ﺍﻟﺪُّﻧﻴﺎ
[16] বস্তুতঃ তোমরা পার্থিব জীবনকে
অগ্রাধিকার দাও,
[16] Nay, you prefer the life of this
world,
[17] ﻭَﺍﻝﺀﺍﺧِﺮَﺓُ ﺧَﻴﺮٌ ﻭَﺃَﺑﻘﻰٰ
[17] অথচ পরকালের জীবন উৎকৃষ্ট ও
স্থায়ী।
[17] Although the Hereafter is better and
more lasting.
[18] ﺇِﻥَّ ﻫٰﺬﺍ ﻟَﻔِﻰ ﺍﻟﺼُّﺤُﻒِ
ﺍﻷﻭﻟﻰٰ
[18] এটা লিখিত রয়েছে পূর্ববতী
কিতাবসমূহে;
[18] Verily, this is in the former
Scriptures —
[19] ﺻُﺤُﻒِ ﺇِﺑﺮٰﻫﻴﻢَ ﻭَﻣﻮﺳﻰٰ
[19] ইব্রাহীম ও মূসার কিতাবসমূহে।
[19] The Scriptures of Ibrâhim
(Abraham) and Mûsa (Moses).
Surah Al A’la
Advertisement
Fire Your Boss
You have residual
bills, why not residual
income ? How much
do you need to pay your monthly
bills? Let me show you how to
generate residual income so
paying your bills is never an
issue.
ALJCAREERS.COM
Ads by AdClickMedia
ﺑِﺴْﻢِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟﺮَّﺣْﻤَﻦِ ﺍﻟﺮَّﺣِﻴﻢِ
1.
আপনি আপনার মহান পালনকর্তার
নামের পবিত্রতা বর্ণনা করুন
2.
যিনি সৃষ্টি করেছেন ও সুবিন্যস্ত
করেছেন।
3.
এবং যিনি সুপরিমিত করেছেন ও পথ
প্রদর্শন করেছেন
4.
এবং যিনি তৃণাদি উৎপন্ন করেছেন,
5.
অতঃপর করেছেন তাকে কাল
আবর্জনা।
6.
আমি আপনাকে পাঠ করাতে থাকব,
ফলে আপনি বিস্মৃত হবেন না
7.
আল্লাহ যা ইচ্ছা করেন তা ব্যতীত।
নিশ্চয় তিনি জানেন প্রকাশ্য ও গোপন
বিষয়।
8.
আমি আপনার জন্যে সহজ শরীয়ত
সহজতর করে দেবো।
9.
উপদেশ ফলপ্রসূ হলে উপদেশ
দান করুন,
10.
যে ভয় করে, সে উপদেশ গ্রহণ
করবে,
11.
আর যে, হতভাগা, সে তা উপেক্ষা
করবে,
12.
সে মহা-অগ্নিতে প্রবেশ করবে।
13.
অতঃপর সেখানে সে মরবেও না,
জীবিতও থাকবে না।
14.
নিশ্চয় সাফল্য লাভ করবে সে, যে
শুদ্ধ হয়
15.
এবং তার পালনকর্তার নাম স্মরণ করে,
অতঃপর নামায আদায় করে।
16.
বস্তুতঃ তোমরা পার্থিব জীবনকে
অগ্রাধিকার দাও,
17.
অথচ পরকালের জীবন উৎকৃষ্ট ও
স্থায়ী।
18.
এটা লিখিত রয়েছে পূর্ববতী
কিতাবসমূহে;
19.
ইব্রাহীম ও মূসার কিতাবসমূহে।
*********